Inqilab Logo

শনিবার, ১৫ জুন ২০২৪, ০১ আষাঢ় ১৪৩১, ০৮ যিলহজ ১৪৪৫ হিজরী

কয়েক দশকের মধ্যে প্রথমবারের মতো কমেছে চীনের জনসংখ্যা

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ১৮ জানুয়ারি, ২০২৩, ১২:০০ এএম

মঙ্গলবার ন্যাশনাল ব্যুরো অফ স্ট্যাটিস্টিকস প্রকাশিত এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, বিশ্বের সবচেয়ে জনবহুল দেশ চীনের জনসংখ্যা কমছে। ৬০ বছরেরও বেশি সময় ধরে চলতে থাকা জন্মহার কমেছে। এবং মৃত্যুর হার কমেছে। পরিসংখ্যান ব্যুরো জানিয়েছে, বিদেশিদের বাদ দিয়ে মূল ভ‚খÐের চীনের জনসংখ্যা ২০২২ সালে ৮,৫০,০০০ জন কমে ১৪১ কোটি হয়েছে। দেশটি ২০২২ সালের জন্য ৯৫ লাখ ৬০ হাজার জন্ম এবং ১ কোটি ৪ লাখ ১ হাজার মৃত্যুর রিপোর্ট করেছে।

ন্যাশনাল ব্যুরো অফ স্ট্যাটিস্টিকসের তথ্য প্রকাশ করেছে যে ২০২১ সালে নতুন জন্ম ১৩ শতাংশ কমেছে এবং ২০২০ সালে এটি ২২ শতাংম কমেছে। এদিকে, দেশটির স্বাস্থ্য কর্তৃপক্ষ প্রকাশ করেছে যে, চীনা হাসপাতালে ৪ ডিসেম্বর, ২০২২ এবং ১২ জানুয়ারী, ২০২৩ এর মধ্যে প্রায় ৬০,০০০ মানুষ কোভিডে মারা গেছে। চীনের এক-সন্তান নীতির সমালোচক লেখক ই ফুক্সিয়ান বলেছেন, চীনে শেষবার জনসংখ্যার রেকর্ড করা হয়েছিল ১৯৬০ এর দশকের গোড়ার দিকে। ক্রমহ্রাসমান জনসংখ্যা চীনে জনসংখ্যাগত সঙ্কটের লক্ষণ হতে পারে। দ্য নিউ ইয়র্ক টাইমস জানিয়েছে, ছয় দশকের মধ্যে প্রথমবারের মতো গত বছর জন্মের তুলনায় মৃত্যুর সংখ্যা বেশি। ন্যাশনাল ব্যুরো অফ স্ট্যাটিস্টিক্সের তথ্যে দেখা গেছে ২০২২ সালে চীনে ৯৫ লাখ ৬০ হাজার জন্ম হয়েছে, অর্থাৎ প্রতি হাজারে জন্মহার কমে রেকর্ড ৬.৭৭ হয়েছে। যেখানে ১ কোটি ৪ লাখ ১ হাজার মানুষ মারা গেছে। ৬০-এর দশকের গোড়ার দিকে চীনে প্রথমবারের মতো জন্মের চেয়ে মৃত্যু বেশি ছিল, যখন গ্রেট লিপ ফরওয়ার্ড, মাও সেতুং-এর ব্যর্থ অর্থনৈতিক পরীক্ষা, ব্যাপক দুর্ভিক্ষ ও মৃত্যুর দিকে নিয়ে যায়।

প্রত্যাশিত আয়ুতে দীর্ঘস্থায়ী বৃদ্ধির সঙ্গে এই পতন চীনকে একটি জনসংখ্যাগত সঙ্কটের দিকে ঠেলে দিচ্ছে। যা বিশ্বের অর্থনীতির ওপরেও প্রভাব ফেলতে পারে বলে বিশেষজ্ঞরা নিউ ইয়র্ক টাইমসকে বলেছেন। আরভিনের ক্যালিফোর্নিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের সমাজবিজ্ঞানের একজন অধ্যাপক যিনি চীনের জনসংখ্যার বিশেষজ্ঞ ওয়াং ফেং এর মতে, দীর্ঘ সময়ের মধ্যে, আমরা এমন একটি চীন দেখতে যাচ্ছি যা বিশ্ব কখনও দেখেনি। যেহেতু চীনে কম জন্ম হচ্ছে এবং আরও বেশি মানুষ বয়স্ক হচ্ছে, এমন একটি দিন খুব শীঘ্রই আসবে যখন চীনের গতি বাড়াতে কর্মক্ষম বয়সের পর্যাপ্ত লোক থাকবে না। শ্রমের ঘাটতি কর রাজস্ব কমিয়ে দেবে। কিছু বিশেষজ্ঞের মতে, চীনের জনসংখ্যার হ্রাস বৈশ্বিক ব্যবস্থার জন্য প্রভাব ফেলতে পারে, ভারতের জনসংখ্যা এই বছরের শেষের দিকে চীনকে ছাড়িয়ে যেতে পারে।

বেইজিং-এ এক সংবাদ ব্রিফিংয়ে জাতীয় পরিসংখ্যান ব্যুরোর পরিচালক কাং ই বলেছেন, চীন মহামারী বিচ্ছিন্নতা থেকে বেরিয়ে আসার ফলে ২০২৩ সালে অর্থনীতির উন্নতি হবে বলে আশা করা হচ্ছে। তিনি আরও বলেছিলেন যে, চীনের জনসংখ্যা হ্রাস উদ্বেগের কারণ নয় এবং সামগ্রিক শ্রম সরবরাহ এখনও চাহিদাকে ছাড়িয়ে গেছে। সূত্র : এনবিসি।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: চীন


আরও
আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ
গত​ ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ