Inqilab Logo

বুধবার, ২৮ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, ১৫ ফাল্গুন ১৪৩০, ১৭ শাবান সানি ১৪৪৫ হিজরী

আরও ২ হাজার ট্যাঙ্ক, ৩ লাখ সেনা প্রস্তুত করছে রাশিয়া

বাখমুতে প্রবেশের সমস্ত রাস্তা রুশ বাহিনীর নিয়ন্ত্রণে ন্যাটোতে ইউক্রেনের প্রবেশ বিশ্বযুদ্ধের কারণ হবে, হুঁশিয়ারি হাঙ্গেরির হামলার জন্য নির্দেশনা দেয়া যুক্তরাষ্ট্র, ইউক্রেনের কর্মকর

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ১১ ফেব্রুয়ারি, ২০২৩, ১২:০০ এএম

রাশিয়া আগামী সপ্তাহে ইউক্রেনের পূর্ব ডনবাস অঞ্চল দখলের জন্য নতুন আক্রমণের জন্য প্রায় ২ হাজার ট্যাঙ্ক এবং ৩ লাখ সৈন্য প্রস্তুত করেছে, ইউক্রেনের একজন গোয়েন্দা কর্মকর্তা সতর্ক করেছেন। এদিকে, ডনবাসের কৌশলগত গুরুত্বপূর্ণ শহর বাখমুতে প্রবেশের সমস্ত রাস্তা নিয়ন্ত্রণে নিয়েছে রুশ বাহিনী।
কয়েক সপ্তাহ ধরে, ইউক্রেনীয় কর্মকর্তারা যুদ্ধক্ষেত্রে কয়েক মাস অচলাবস্থার পরে রাশিয়ার নতুন আক্রমণ সম্পর্কে সতর্ক করেছেন। আরো হাজার হাজার সাঁজোয়া যান, আর্টিলারি সিস্টেম, সেইসাথে শতাধিক ফাইটার জেট এবং হেলিকপ্টার দ্বারা রাশিয়ার আক্রমণটিকে শক্তিশালী করা হবে বলে মনে করা হচ্ছে। হামলাটি ২৪ ফেব্রæয়ারি ভ্লাদিমির পুতিনের তার পূর্ণ-মাত্রায় অভিযানের সূচনার এক বছরের বার্ষিকীর সাথে মিলিয়ে হবে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

যুদ্ধের বৃদ্ধির মধ্যে, সামরিক বিশ্লেষকরা দাবি করেছেন যে, দীর্ঘ প্রতীক্ষিত রাশিয়ান আক্রমণ ইতিমধ্যেই শুরু হয়েছে এবং প্রতীকী তারিখের কাছাকাছি আসার সাথে সাথে এটি ত্বরান্বিত হবে বলে মনে করা হচ্ছে। ইউক্রেনের একজন সামরিক কর্মকর্তা ফরেন পলিসি নিউজ ওয়েবসাইটকে বলেছেন, ‘আগামী ১০ দিনের মধ্যে আমরা একটি নতুন, বিশাল আগ্রাসন আশা করছি।’ ইউক্রেনের সামরিক গোয়েন্দারা বিশ্বাস করে যে, রাশিয়ার এখন দেশের অভ্যন্তরে ৩ লাখেরও বেশি সৈন্য রয়েছে, যা যুদ্ধ শুরুর আগে তার সীমান্তে যে পরিমাণ জমা হয়েছিল তার প্রায় দ্বিগুণ।

কিয়েভের করা অনুমান অনুসারে, রাশিয়ান সামরিক বাহিনী নতুন আক্রমণের জন্য ১,৮০০টি ট্যাঙ্ক, ৩,৯৫০টি সাঁজোয়া যান, ২,৭০০টি আর্টিলারি সিস্টেম, ৮১০টি সোভিয়েত যুগের মাল্টি লঞ্চ রকেট সিস্টেম, ৪০০টি যুদ্ধবিমান এবং ৩০০টি হেলিকপ্টার প্রস্তুত করেছে। ‘প্রথম তরঙ্গে যা ঘটেছিল তার চেয়ে এটি অনেক বড়,’ কর্মকর্তা বলেছিলেন, ‘তারা (যুদ্ধক্ষেত্রে) কোনো হতাহত বা ক্ষতি নিয়ে চিন্তা করে না।’

জেনারেল ভ্যালেরি গেরাসিমভ, যিনি গত মাসে ক্রেমলিন দ্বারা ইউক্রেনে রাশিয়ান বাহিনীর সামগ্রিক কমান্ডার হিসাবে নিযুক্ত হয়েছেন, আশা করা হচ্ছে তিনি ডোনেৎস্ক এবং লুহানস্কের অবশিষ্ট ডনবাস অঞ্চলগুলো মুক্ত করার প্রচেষ্টাকে কেন্দ্রীভ‚ত করবেন। এখন অবধি, রাশিয়ান বাহিনী ডোনেৎস্কের বাখমুত এবং প্রতিবেশী লুহানস্কের ক্রেমিন্নার চারপাশে ক্রমবর্ধমান সম্পূর্ণ মুক্ত করতে পেরেছে। বৃহস্পতিবার, লুহানস্কের আঞ্চলিক গভর্নর সেরহি হাইদাই বলেছেন, ক্রেমিনার কাছে ইউক্রেনের প্রতিরক্ষা ভেদ করার চেষ্টায় রাশিয়া একটি বড় আক্রমণ শুরু করেছে।

এদিকে, আর্টিওমভস্ক শহরে যাওয়ার সমস্ত রাস্তা (যাকে ইউক্রেনের বাখমুত বলা হয়) রাশিয়ার সশস্ত্র বাহিনীর নিয়ন্ত্রণে রয়েছে বলে ডোনেৎস্ক পিপলস রিপাবলিক (ডিপিআর) এর ভারপ্রাপ্ত প্রধানের উপদেষ্টা ইগর কিমাকভস্কি শুক্রবার জানিয়েছেন। ‘ক্রসনায়া গোরা এলাকার মুক্তির ঘোষণা করা হয়েছে, যা স্পষ্ট করে যে, সমস্ত রাস্তা এখন আমাদের ফায়ারিং রেঞ্জের মধ্যে রয়েছে। তবে রাস্তা বাদেও বনভ‚মির ভেতর দিয়ে এবং রুক্ষ এলাকার উপর দিয়ে যাওয়া সম্ভব তাই ইউক্রেনীয় সৈন্যদের জন্য এখনও সেখানে সেনা এবং গোলাবারুদ সরবরাহের উপায় রয়েছে। কিন্তু সমস্ত রাস্তা রাশিয়ান সশস্ত্র বাহিনীর গোলার পাল্লার মধ্যে রয়েছে,’ তিনি উল্লেখ করেছিলেন।

কিমাকভস্কির মতে, ইউক্রেনীয় সৈন্যরা শীঘ্রই একটি অবরুদ্ধ হয়ে পড়বে এবং আর্টিওমভস্ককে আত্মসমর্পণ করতে হবে। ভারপ্রাপ্ত ডিপিআর প্রধান ডেনিস পুশিলিন এর আগে বলেছিলেন যে, শহরের আশেপাশের এলাকায় লড়াই চলছে যা ইউক্রেনের সেনাবাহিনী দ্বারা নিয়ন্ত্রিত ছিল। মার্কিন ও ইইউ কর্মকর্তাদের বরাত দিয়ে বৃহস্পতিবার বøুমবার্গ রিপোর্ট করেছে যে, পশ্চিমা দেশগুলো কিয়েভকে কালক্ষেপণ করতে, তার বাহিনীকে বাঁচাতে এবং বসন্তে আক্রমণ চালানোর জন্য লেপার্ড ট্যাঙ্কের আগমনের জন্য অপেক্ষা করার সুপারিশ করেছে, এমনকি যদি এর জন্য আর্টিওমভস্ককে আত্মসমর্পণও করতে হয়।

ন্যাটোতে ইউক্রেনের প্রবেশ বিশ্বযুদ্ধের কারণ হবে : হাঙ্গেরির সরকার ইউক্রেনের ন্যাটোতে যোগদানের আকাঙ্খাকে সমর্থন করে না এবং ইউক্রেনের জাতীয় সংখ্যালঘুদের অধিকার রক্ষা না করলে ইউরোপীয় ইউনিয়নে কিয়েভের সম্ভাব্য প্রবেশের সুযোগ করে দিতে চায় না, প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের মন্ত্রী গারগেলি গুলিয়াস বৃহস্পতিবার সাংবাদিকদের বলেন।

ইউক্রেনের ন্যাটোতে যোগদানের আকাঙ্খার বিষয়ে এক প্রশ্নের উত্তরে তিনি উল্লেখ করেন, যে কোনো দেশ সদস্যপদ আবেদন করতে পারে। ‘তবে, এ মুহূর্তে, ইউক্রেনের ন্যাটোতে অবিলম্বে যোগদানের অর্থ হবে বিশ্বযুদ্ধ,’ গুলিয়াস সতর্ক করে দিয়ে বলেছিলেন। ইউক্রেনের ইইউ সদস্যতার সম্ভাবনার কথা বলতে গিয়ে তিনি জোর দিয়ে বলেছিলেন যে, কিয়েভকে অবশ্যই জাতীয় সংখ্যালঘুদের অধিকার রক্ষায় অগ্রগতি নিশ্চিত করতে হবে - বিশেষ করে, ট্রান্স-কার্পাথিয়ান অঞ্চলে ইউক্রেনের হাঙ্গেরিয়ানদের - যদি তারা বুদাপেস্টকে দিয়ে তাদের সদস্যপদের আবেদন অনুমোদন করাতে চায়। এ পর্যন্ত, ইউক্রেনে গৃহীত শিক্ষা এবং জাতীয় ভাষা সম্পর্কিত আইন, ‘ইউরোপীয় নিয়ম মেনে চলে না’। এ বিষয়ে তাদেরকে ‘অগ্রগতি করতে হবে’, হাঙ্গেরিয়ান কর্মকর্তা যোগ করেছেন।

হামলার জন্য নির্দেশনা দেয়া যুক্তরাষ্ট্র, ইউক্রেনের কর্মকর্তাদের স্বীকারোক্তি : ইউক্রেনীয় কর্মকর্তারা স্বীকার করেছেন যে, ইউক্রেনীয় সেনারা ওয়াশিংটন বা তার মিত্রদের দ্বারা নির্ধারিত লক্ষ্যবস্তুতে মার্কিন তৈরি রকেট সিস্টেম দিয়ে গুলি করছে, ইউক্রেনীয় এবং মার্কিন কর্মকর্তাদের বরাত দিয়ে ওয়াশিংটন পোস্ট জানিয়েছে।
নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক ইউক্রেনীয় কর্মকর্তাদের বরাত দিয়ে সংবাদপত্রটি লিখেছে যে, উন্নত মার্কিন-প্রদত্ত রকেট সিস্টেম ব্যবহার করে বেশিরভাগ হামলার জন্য ইউক্রেনীয়দের ‘মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র এবং তার মিত্রদের দ্বারা প্রদত্ত বা নিশ্চিত করা সমন্বয়ের প্রয়োজন হয়’। প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, এ বিষয়টি পেন্টাগনের জন্য সংঘাতে গভীর এবং আরও সক্রিয় ভ‚মিকা প্রকাশ করে।

‘একজন সিনিয়র ইউক্রেনীয় কর্মকর্তা বলেছেন যে, ইউক্রেনীয় বাহিনী ইউরোপের অন্য কোথাও অবস্থিত ঘাঁটি থেকে মার্কিন সামরিক কর্মীদের দেয়া সুনির্দিষ্ট সমন্বয় ছাড়া উন্নত অস্ত্র প্রায়শই ব্যবহার করে না,’ ওয়াশিংটন পোস্ট বলেছে, ‘ইউক্রেনীয় কর্মকর্তারা বলছেন যে, এ প্রক্রিয়াটি কিয়েভকে দীর্ঘ পাল্লার অস্ত্র দেয়ার বিষয়ে ওয়াশিংটনের আস্থা নিশ্চিত করে।’

নাম প্রকাশ না করার শর্তে একজন মার্কিন কর্মকর্তা স্বীকার করেছেন যে, তার দেশ লক্ষ্যবস্তু নির্ধারনে ‘মূল’ ভ‚মিকা পালন করছে। ‘নির্ভুলতা নিশ্চিত করতে এবং সর্বাধিক কার্যকারিতার জন্য সীমিত গোলাবারুদ সংরক্ষণের লক্ষ্যে সহায়তা প্রদান করা হয়েছে,’ তিনি বলেছেন। এ কর্মকর্তা আরও বলেছেন যে, ‘ইউক্রেন কোথায় কোথয়া হামলা করবে সে বিষয়ে সবসময় মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের অনুমোদন চায় না এবং নিয়মিতভাবে অন্যান্য অস্ত্র দিয়ে রাশিয়ান বাহিনীর লক্ষ্যবস্তু করে।’ তার মতে, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ‘শুধুমাত্র উপদেষ্টা ভ‚মিকায় স্থানাঙ্ক এবং সুনির্দিষ্ট টার্গেটিং তথ্য প্রদান করে।’

ইউক্রেন যুক্তরাষ্ট্রকে আর্মি ট্যাকটিক্যাল মিসাইল সিস্টেম বা এটিএসিএমএস দেয়ার জন্য অনুরোধ করেছে। সম্ভাব্য উত্তেজনা বৃদ্ধি সম্পর্কে ওয়াশিংটনের উদ্বেগের বিষয়ে মন্তব্য করে, একজন ইউক্রেনীয় কর্মকর্তা বলেছেন, আপনি যেভাবেই হোক প্রতিটি শট নিয়ন্ত্রণ করছেন, তাই আপনি যখন বলেন, ‘আমরা ভয় পাচ্ছি যে আপনি এটিকে অন্য কোনো উদ্দেশ্যে ব্যবহার করতে যাচ্ছেন,’ ঠিক আছে, আমরা পারি। তবে আমরা চাইলেও তা করি না।
ইউক্রেনে ভারী অস্ত্র সরবরাহে রাশিয়ার অভিযান ইউরোপে পরিচালিত হতে পারে : ইউক্রেনের সামরিক বাহিনীর দ্বারা পশ্চিমা সরবরাহকৃত ভারী অস্ত্রের ব্যবহার রাশিয়াকে ইউরোপের দিকে যেতে প্ররোচিত করবে, স্টেট ডুমার স্পিকার ভ্যাচেসøাভ ভোলোদিন বৃহস্পতিবার একটি পূর্ণাঙ্গ অধিবেশনে বলেছেন।

‘যদি বিশেষ সামরিক অভিযান শুরু না করা হতো, তাহলে আমরা আমাদের জানালার নিচে বিস্ফোরণের শব্দ শুনতে পেতাম। (ইউক্রেনে) ভারী অস্ত্রের ব্যবহার এবং (মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো) বাইডেন ও ইউরোপীয় নেতাদের থেকে নিজেদের রক্ষা করার জন্য আমাদের ইউরোপের কাছাকাছি যেতে বাধ্য করবে। তাদের বোঝা উচিত যে আমাদের জনগণ, রাশিয়ান নাগরিকরা এখানে একত্রিত হয়েছে। তাই যারা ভয় পেয়েছিলেন তারা প্রস্থানের দিকে রওনা হয়েছেন, কিন্তু যারা তাদের দায়িত্ব সম্পর্কে সচেতন তারা এখানে থাকার জন্য আছেন,’ সিনিয়র আইন প্রণেতা আশ্বাস দিয়েছিলেন। সমস্ত রাশিয়ান রাজনৈতিক দল, ‘বাম থেকে ডানপন্থী, এ বিষয়ে একমত’, তিনি যোগ করেছেন। এর আগে বৃহস্পতিবার, রাশিয়ার উপ-পররাষ্ট্রমন্ত্রী সের্গেই রিয়াবকভ বলেছিলেন যে, রাশিয়া শঙ্কা ও উদ্বেগের সাথে পর্যবেক্ষণ করছে যে ইদানীং পশ্চিমের পক্ষ থেকে ইউক্রেনে কতদূর পর্যন্ত অস্ত্র সরবরাহ করা যেতে পারে এমন কোনও ‘আত্মসংযম’ নেই।

ইউক্রেনে যুদ্ধবিমান পাঠানোর ধারণা নাকচ করেছেন ফরাসি প্রেসিডেন্ট : অদূর ভবিষ্যতে কোনো অবস্থাতেই ইউক্রেন সরকারকে যুদ্ধবিমান সরবরাহ করা যাবে না। ফরাসী প্রেসিডেন্ট ইমানুয়েল ম্যাখ্যোঁ শুক্রবার ইউক্রেনের প্রেসিডেন্ট ভলোদিমির জেলেনস্কির সফরকে কেন্দ্র করে সাম্প্রতিক ইইউ শীর্ষ সম্মেলনের পর সাংবাদিকদের বলেছেন। ‘ফাইটার জেট ডেলিভারি একটি অগ্রাধিকার নয়। ইউক্রেনের সেনাবাহিনীর এখন এটির প্রয়োজন নেই,’ তিনি বলেছিলেন, ‘কোন অবস্থাতেই আগামী সপ্তাহে যুদ্ধবিমান সরবরাহ করা যাবে না।’

জেলেনস্কিকে খালি হাতে ফেরত পাঠালো ইউরোপ : বৃহস্পতিবার, ইউরোপীয় ইউনিয়নের নেতারা ব্রাসেলসে একটি শীর্ষ সম্মেলন ডেকেছিলেন। সেখানে প্রথমবারের মতো, তারা ইউক্রেনের প্রেসিডেন্ট ভলোদিমির জেলেনস্কির সাথে ব্যক্তিগতভাবে যোগদান করেছিলেন। তা সত্তে¡ও তারা ইইউ শেষ পর্যন্ত কিয়েভে যুদ্ধবিমান সরবরাহের প্রতিশ্রæতি দেয়নি। এর বদলে ব্রাসেলস বিশেষ সামরিক অভিযানের প্রথম বার্ষিকীতে মস্কোর উপর অতিরিক্ত নিষেধাজ্ঞা আরোপের পরিকল্পনা ঘোষণা করেছে।

জার্মান এমইপি গুনার বেক রাশিয়ার ইজভেস্টিয়াকে বলেছেন, ‘আমি মনে করি বেশ কয়েকটি ইইউ সদস্য দেশ পৃথকভাবে যুদ্ধবিমান পাঠাতে সম্মত হতে পারে, তবে আমি অন্তত শীঘ্রই কোনও যৌথ চুক্তি আশা করি না।’ তিনি ব্যাখ্যা করেছিলেন যে, ইইউ চুক্তিতে এর কোনও আইনি ভিত্তি নেই, যখন প্রতিরক্ষা এবং বাহ্যিক সুরক্ষা বিষয়গুলি সদস্য দেশগুলির বিশেষাধিকার রয়ে গেছে।

সরবরাহের ক্ষেত্রে ইউরোপীয় ইউনিয়ন কী সিদ্ধান্ত নেবে তা ভবিষ্যদ্বাণী করা কঠিন, কারণ বøকটি সর্বদা পর্দার আড়ালে সিদ্ধান্ত নেয় এবং যারা দ্বিমত পোষণ করেন তাদের প্রায়শই এই জাতীয় সিদ্ধান্তের দিকে ঠেলে দেয়া হয়, হায়ার স্কুল অব ইকোনমিক্সের সের্গেই শিন বলেন, ইউক্রেন ছিল ইউরোপীয় কাউন্সিলের এজেন্ডার একটি বিষয় এবং জেলেনস্কিকে আমন্ত্রণ জানানো একটি প্রতীকী পদক্ষেপ ছিল। ‘যদিও ইউরোপীয়রা ইইউতে যোগদানের জন্য ইউক্রেনের উচ্চাকাক্সক্ষাকে সমর্থন করে, তবে তাদের আরও চাপের বিষয় নিয়ে আলোচনা করতে হবে যা তারা অভ্যন্তরীণভাবে সম্মুখীন হচ্ছে, উদাহরণস্বরূপ, আরেকটি অভিবাসন সঙ্কটের হুমকি,’ তিনি যোগ করেছেন।
ভালদাই ডিসকাশন ক্লাবের প্রোগ্রাম ডিরেক্টর ওলেগ বারাবানভ যুক্তি দিয়েছেন যে, যুদ্ধ বিমান সরবরাহ করার সিদ্ধান্তটি যেভাবেই হোক নেয়া হবে, যদিও তা বর্তমান শীর্ষ সম্মেলনে হয়নি। ১৪-১৫ ফেব্রæয়ারি ব্রাসেলসে ন্যাটো প্রতিরক্ষা মন্ত্রীদের বৈঠকে আলোচনা চলতে পারে। এছাড়াও, কিয়েভ আগামী শুক্রবার শুরু হতে যাওয়া ৫৯তম মিউনিখ নিরাপত্তা সম্মেলনে বিষয়টি উত্থাপন করার পরিকল্পনা করেছে। সূত্র : তাস, ওয়াশিংটন পোস্ট, দ্য টেলিগ্রাফ।



 

Show all comments
  • Tufan Loskar ১১ ফেব্রুয়ারি, ২০২৩, ৮:৪০ এএম says : 0
    রাশিয়ার মিত্রদের উচিত রাশিয়াকে সহায়তা করা।কারন যুদ্ধটা চলবে এখন পরোক্ষভাবে যুক্তরাষ্ট্র ও তার মিত্রদের বিরুদ্ধে।
    Total Reply(0) Reply
  • Tufan Loskar ১১ ফেব্রুয়ারি, ২০২৩, ৮:৪০ এএম says : 0
    রাশিয়ার মিত্রদের উচিত রাশিয়াকে সহায়তা করা।কারন যুদ্ধটা চলবে এখন পরোক্ষভাবে যুক্তরাষ্ট্র ও তার মিত্রদের বিরুদ্ধে।
    Total Reply(0) Reply
  • Md Ali Hosen ১১ ফেব্রুয়ারি, ২০২৩, ৮:৪০ এএম says : 0
    ইউক্রেনকে এসব অস্ত্র কি ফিরিতে দিচ্ছে যুক্তরাষ্ট্র যুক্তরাজ্য জার্মান ফ্রান্স
    Total Reply(0) Reply
  • Sayeed-ul Huq Khan ১১ ফেব্রুয়ারি, ২০২৩, ৮:৪১ এএম says : 0
    It seems to be a prestigious participation in the war between RUSSIA and UCRANE !
    Total Reply(0) Reply
  • Sayeed-ul Huq Khan ১১ ফেব্রুয়ারি, ২০২৩, ৮:৪১ এএম says : 0
    It seems to be a prestigious participation in the war between RUSSIA and UCRANE !
    Total Reply(0) Reply
  • Rashed Khan ১১ ফেব্রুয়ারি, ২০২৩, ৮:৪১ এএম says : 0
    এই যুদ্ধে পশ্চিমা অস্ত্র উৎপাদনকারী দেশের৷ স্বার্থ হাসিল হচ্ছে আর সব দেশের বাঁশ
    Total Reply(0) Reply
  • Nazmul Hussain ১১ ফেব্রুয়ারি, ২০২৩, ৮:৪১ এএম says : 0
    ইউক্রেন ও রাশিয়ার যুদ্ধে রাশিয়া যদি যুদ্ধের মাঠে জিততে না পারলেও,,,,, পুতিনই জিতছে বলে মনে করবো,,,,, কারন পুতিনকে কয়টি রাষ্ট্র সাহয্য করছে,,,, আর ইউক্রেনকে পুরো পশ্চিমারা সাহায্য করছে,,,, পুতিন তাও টিকে আছে -
    Total Reply(0) Reply
  • Nazmul Hussain ১১ ফেব্রুয়ারি, ২০২৩, ৮:৪১ এএম says : 0
    ইউক্রেন ও রাশিয়ার যুদ্ধে রাশিয়া যদি যুদ্ধের মাঠে জিততে না পারলেও,,,,, পুতিনই জিতছে বলে মনে করবো,,,,, কারন পুতিনকে কয়টি রাষ্ট্র সাহয্য করছে,,,, আর ইউক্রেনকে পুরো পশ্চিমারা সাহায্য করছে,,,, পুতিন তাও টিকে আছে -
    Total Reply(0) Reply

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: রাশিয়া-ইউক্রেন


আরও
আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ
গত​ ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ