Inqilab Logo

মঙ্গলবার, ০৯ এপ্রিল ২০২৪, ২৬ চৈত্র ১৪৩০, ২৯ রমজান ১৪৪৫ হিজরী

‘রাশিয়া, চীনের বিরুদ্ধে বিপজ্জনক খেলায় যোগ দিয়েছে মার্কিন দালাল কানাডা’

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ২৪ ডিসেম্বর, ২০২২, ২:২১ পিএম

এশিয়া-প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চলে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের অবস্থানকে শক্তিশালী করার জন্য এবং রাশিয়া ও চীনের বিরুদ্ধে ওয়াশিংটনের বিপজ্জনক খেলায় যোগদানের জন্য কানাডার তীব্র সমালোচনা করেছেন রাশিয়ার পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের উত্তর আমেরিকা বিভাগের প্রধান আলেকজান্ডার দারচিয়েভ বলেছেন।

কূটনীতিক উল্লেখ করেছেন এশিয়া-প্যাসিফিক, যেখানেকে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র তাদের নিয়ন্ত্রণে তথাকথিত ইন্দো-প্যাসিফিক অঞ্চলে (আইপিআর) পুনর্গঠন করতে চায়, কানাডা বাধ্যতার সাথে চীনকে নিবৃত্ত করতে এবং ন্যাটোর ধ্বংসাত্মক সম্ভাবনাকে প্রজেক্ট করার জন্য তার পরিষেবাগুলি অফার করছে। ‘অটোয়া সক্রিয়ভাবে সংকীর্ণ-ব্লক প্রকল্পগুলির দরজায় কড়া নাড়ছে, যেমন যুক্তরাষ্ট্র-যুক্তরাজ্য-অস্ট্রেলিয়ার ‘অকাস’ চুক্তি এবং কোয়াড চুক্তি, যা মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র, জাপান, অস্ট্রেলিয়া এবং ভারত নিয়ে গঠিত,’ দারচিয়েভ জোর দিয়েছিলেন৷

‘তারা (কানাডা) অকাস প্লাস প্রকল্পের কাঠামোর মধ্যে 'পার্টনারস ইন দ্য ব্লু প্যাসিফিক’ নামক চীন বিরোধী উদ্যোগের দিকেও নজর রাখছে,’ তিনি বলেন, ‘কানাডা সী ড্রাগন নৌ মহড়ার পাশাপাশি আইপিআরের ছদ্মবেশে চিফস অফ স্টাফের সম্মেলনে একটি স্থায়ী অংশগ্রহণকারী।’ ‘এ ক্ষেত্রে, প্রদত্ত অঞ্চলে কানাডার পদক্ষেপগুলি ধ্বংসাত্মক এবং চীন ও রাশিয়ার সাথে তাদের স্থবিরতার ক্ষেত্রে সেখানে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র এবং ন্যাটোর অবস্থানকে শক্তিশালী করার লক্ষ্য।’ তিনি আরও বলেন, ‘এটি একটি বিপজ্জনক খেলা যেখানে অটোয়া যুক্তরাষ্ট্রের দালাল হিসাবে কাজ করে।’

কূটনীতিক এই বিষয়টির জন্য দুঃখ প্রকাশ করেছেন যে কানাডা দীর্ঘদিন ধরে তার স্বাধীন পররাষ্ট্র নীতি পরিত্যাগ করেছে, যা কানাডার বর্তমান প্রধানমন্ত্রী জাস্টিন ট্রুডোর পিতা পিয়েরে ট্রুডোর এবং জিন ক্রেটিয়েনের মতো কিংবদন্তি প্রধানমন্ত্রীদের অধীনে বিশ্ব মঞ্চে এটিকে একটি বিশিষ্ট খেলোয়াড়ে পরিণত করেছে।

‘তখন একটি মাঝারি আকারের শক্তি হিসাবে, ম্যাপেল লিফ দেশটি সঠিকভাবে দীর্ঘস্থায়ী আঞ্চলিক সংঘাতের একটি সংখ্যক সমাধানে মধ্যস্থতাকারী হিসাবে কাজ করেছে,’ তিনি উল্লেখ করেছিলেন, ‘আমরা এখন যা দেখছি তা হল যে অটোয়া শুধুমাত্র তার দক্ষিণের প্রতিবেশীর (যুক্তরাষ্ট্র) হাতের পুতুল হয়ে ওঠেনি, তারা অনেক ক্ষেত্রেই রাসোফোবিক অনুভূতি এবং সামাজিক ক্ষেত্রে ওয়াশিংটনকে ছাড়িয়ে গেছে, যা স্বাভাবিকের উদার-বিশ্ববাদী দৃষ্টান্তকে আক্রমণাত্মকভাবে ঠেলে দেয়ার পাশাপাশি মানব সমাজের মৌলিক ভিত্তির জন্য ধ্বংসাত্মক।’

কানাডার প্রতিরক্ষা প্রধান অনিতা আনন্দ এর আগে বলেছিলেন যে অটোয়া তার কর্মের নতুন কৌশলের কাঠামোর মধ্যে ইন্দো-প্যাসিফিক অঞ্চলে তাদেরর সামরিক উপস্থিতি বাড়াতে চাইছে। সূত্র: তাস।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: কানাডা


আরও
আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ
গত​ ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ