Inqilab Logo

বুধবার, ২৯ মে ২০২৪, ১৫ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১, ২০ জিলক্বদ ১৪৪৫ হিজরী

ব্রিটেনে নতুন প্রধানমন্ত্রীর দায়িত্ব নিলেন লিজ ট্রাস

প্রথম ভাষণে তিনটি অগ্রাধিকার ঘোষণা

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ৭ সেপ্টেম্বর, ২০২২, ১২:০০ এএম | আপডেট : ১২:০৬ এএম, ৭ সেপ্টেম্বর, ২০২২

ব্রিটেনের রানি এলিজাবেথের আমন্ত্রণে প্রধানমন্ত্রীর দায়িত্ব নিলেন ক্ষমতাসীন কনজারভেটিভ পার্টির নতুন প্রধান লিজ ট্রাস। এর মাধ্যমে দুৎমাসের এক অন্তর্বর্তীকালীন প্রশাসনের অবসান ঘটলো, যেটি শুরু হয়েছিল একাধিক কেলেঙ্কারির জেরে, যখন বরিস জনসনকে পদত্যাগে বাধ্য করা হয়েছিল। মিজ ট্রাস স্কটল্যান্ডে রানির ব্যক্তিগত বাসভবন ব্যালমোরাল প্রাসাদে গিয়ে রানির সাথে দেখা করেন। ইউরোপে যুদ্ধ এবং দেশে গুরুতর অর্থনৈতিক সমস্যার পটভূমিতে লিজ ট্রাস প্রধানমন্ত্রীর দায়িত্বভার হাতে তুলে নিলেন।
এর মধ্য দিয়ে ব্রিটেনের তৃতীয় নারী প্রধানমন্ত্রী হলেন তিনি। প্রথম নারী প্রধানমন্ত্রী ছিলেন মার্গারেট থ্যাচার। দ্বিতীয়জন থেরেসা মে। আর তৃতীয় হলেন লিজ ট্রাস।
তার বক্তৃতায় লিজ ট্রাস তিনটি তাৎক্ষণিক অগ্রাধিকার তালিকাভুক্ত করেছেন যা তিনি প্রধানমন্ত্রী হিসাবে মোকাবেলা করবেন:
ট্রাস বলেছেন যে, তিনি ‘কর হ্রাস এবং সংস্কারের মাধ্যমে অর্থনীতি বৃদ্ধির সাহসী পরিকল্পনা’ নিয়ে ‘ব্রিটেনকে আবার কাজ করাতে’ মনোনিবেশ করবেন। তিনি বলেন, তিনি ‘যুক্তরাজ্যকে কাজ, নির্মাণ এবং বৃদ্ধি পেতে’ তার মিশনের অংশ হিসাবে ‘কঠোর পরিশ্রমের প্রতিদান দিতে এবং ব্যবসা-বান্ধব প্রবৃদ্ধি ও বিনিয়োগকে উৎসাহিত করার জন্য কর কমিয়ে দেবেন’। তিনি যোগ করেছেন যে, তিনি ‘নিশ্চিত করবেন যে, আমরা হাসপাতাল, স্কুল, রাস্তা এবং ব্রডব্যান্ড তৈরি করছি’।
ট্রাস ‘পুতিনের যুদ্ধের কারণে সৃষ্ট শক্তি সঙ্কট মোকাবিলা করার’ প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন। তিনি বলেন, তিনি জ্বালানি বিলগুলো মোকাবিলা করতে এবং আমাদের ভবিষ্যতের জ্বালানি সরবরাহ সুরক্ষিত করতে এ সপ্তাহে পদক্ষেপ নেবেন’।
প্রধানমন্ত্রী বলেন, তিনি নিশ্চিত করবেন যে, লোকেরা ডাক্তারদের অ্যাপয়েন্টমেন্ট পেতে পারে এবং তাদের প্রয়োজনীয় স্বাস্থ্যসেবাগুলোতে অ্যাক্সেস পেতে পারে। ‘আমরা আমাদের স্বাস্থ্য পরিষেবাকে দৃঢ়ভাবে রাখব’ তিনি বলেন।
এদিকে লিবারেল ডেমোক্র্যাট নেতা লিজ ট্রাসের প্রধানমন্ত্রী হিসেবে প্রথম বক্তৃতার পর সাধারণ নির্বাচনের আহ্বান পুনর্ব্যক্ত করেছেন। এক বিবৃতিতে স্যার এড ডেভি বলেছেন, নতুন প্রধানমন্ত্রীর শীতকালীন জ্বালানির মূল্যবৃদ্ধি বাতিল করে ‘সঠিক কাজটি করার’ এবং তারপরে ‘একটি সাধারণ নির্বাচন আহ্বান করার’ সময় এসেছে।
তিনি বলেন, তিনি ‘মর্মাহত’ যে, ট্রাস এবং টোরি পার্টি ‘জীবন সঙ্কটের ব্যয়ের মধ্য দিয়ে আমাদের দেশকে সাহায্য করার জন্য কোনো ধারণা নিয়ে আসতে সম্পূর্ণভাবে ব্যর্থ হয়েছেন’। ‘তাদের ব্যর্থতা ব্যবসাগুলোকে প্রান্তে ঠেলে দিয়েছে এবং পরিবার এবং পেনশনভোগীদের জন্য চরম উদ্বেগ সৃষ্টি করেছে’।
লিজ ট্রাসের সমর্থকরা তার বক্তৃতার সাথে সাথে হাততালি দিয়ে উল্লাস করে। কিন্তু পিএ নিউজ এজেন্সি বলছে যে, ডাউনিং স্ট্রিটের নিরাপত্তা কর্ডনের বাইরে কিছু বিক্ষোভকারী উচ্চঃস্বরে মিউজিক বাজাচ্ছিল যার মধ্যে রয়েছে টিয়ার্স ফর ফিয়ার্সের লেখা ম্যাড ওয়ার্ল্ড গানটি। লিজ ট্রাস তার বক্তৃতা দেওয়ার সাথে সাথে প্রতিবাদকারীদের সেøাগান এবং একটি এয়ার হর্নও শোনা যায়।
অধিকাংশ ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী দায়িত্ব গ্রহণের প্রথম দিনে বাকিংহাম প্রাসাদ সফর করার মধ্য দিয়ে আনুষ্ঠানিক কাজ শুরু করেছেন। শুরুতে তাদেরকে আনুষ্ঠানিকভাবে প্রধানমন্ত্রী নিয়োগ দিয়েছেন রানী। কিন্তু লিজ ট্রাসের জন্য তা শুরু হয় এক হাজার মাইলের এক সফরের মধ্য দিয়ে। এ পথ পাড়ি দিয়ে তিনি বালমোরাল ক্যাসেলে পৌঁছেন। লন্ডন থেকে স্কটল্যান্ড ভ্রমণের দূরত্ব এবং খারাপ আবহাওয়া লিজ ট্রাসকে রানীর সাথে দেখা করতে প্রায় ১০ মিনিট দেরি করিয়ে দেয়। সেখানে ‘কিসিং হ্যান্ডস’ অর্থাৎ হাত চুম্বনের এক অনুষ্ঠানের মধ্য দিয়ে তাকে প্রধানমন্ত্রী নিয়োগ করেন রানী। তিনি তাকে নতুন সরকার গঠনের আমন্ত্রণ জানান।
নিয়োগ পাওয়ার পর ১০ ডাউনিং স্ট্রিটের উদ্দেশে যাত্রা করেন নতুন প্রধানমন্ত্রী লিজ ট্রাস। এটিই তার নতুন কর্মক্ষেত্রে এবং নতুন বাসস্থান। সেখানে পৌঁছে প্রধানমন্ত্রী হিসেবে প্রথম ভাষণ দেয়ার কথা তার। এ সময় তিনি ঘোষণা করবেন, তার সরকার কী করতে যাচ্ছে। তার নতুন প্রশাসনের প্রথম কাজ হবে পাইকারি জ্বালানির ক্রমবর্ধমান মূল্যবৃদ্ধি থেকে দেশবাসীকে রক্ষা করা। এ লক্ষ্যে বাসাবাড়িতে জ্বালানির ব্যয় প্রায় আঠারো মাসের জন্য স্থগিত রাখা হবে। জ্বালানি কোম্পানিগুলোকে সরকার এর পরিবর্তে ঋণ দেবে।
এর আগে বিদায়ী প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসনও প্রথা অনুযায়ী ব্যালমোরাল প্রাসাদে গিয়ে রানির কাছে তার পদত্যাগপত্র জমা দেন। সেখান থেকে বেরিয়ে এসে এক বক্তৃতায় তিনি প্রধানমন্ত্রী থাকাকালীন করোনা মহামারি মোকাবেলা এবং ব্রেক্সিট চুক্তিসহ তার অর্জনগুলো তুলে ধরেন। তবে যেসব কেলেঙ্কারির জন্য তিনি চাকরি খুইয়েছেন সে সম্পর্কে মি. জনসন কোনো কথা বলেননি। সূত্র : নিউইয়র্ক টাইমস, বিবিসি বাংলা।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: ব্রিটেনের


আরও
আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ
গত​ ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ