Inqilab Logo

সোমবার, ১৫ জুলাই ২০২৪, ৩১ আষাঢ় ১৪৩১, ০৮ মুহাররম ১৪৪৬ হিজরী

যুদ্ধ থামাতে সহায়তার জন্য চীন সফরে যাচ্ছেন ফ্রান্সের প্রেসিডেন্ট

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ২৬ ফেব্রুয়ারি, ২০২৩, ৭:৪৪ পিএম

ইউক্রেনে সংঘাত থামাতে চীনের প্রেসিডেন্টের সহায়তা চাইতে আগামী এপ্রিল মাসে চীন সফর করবেন ফ্রান্সের প্রেসিডেন্ট ইমানুয়েল ম্যাখোঁ। শনিবার তিনি নিজেই এ ঘোষণা দেন।

ইতোমধ্যে ইউক্রেন যুদ্ধ থামাতে আবারও আলোচনার আহ্বান জানিয়েছে চীন। যুদ্ধে উস্কানি দেয়ার জন্য তারা যুক্তরাষ্ট্র ও তার পশ্চিমা মিত্রদেরও সমালোচনা করেছে। প্রতিবেশী ইউক্রেনে পরাশক্তি রাশিয়ার ‘বিশেষ সামরিক অভিযানের’ পর মস্কোর সঙ্গে বেইজিংয়ের ঘনিষ্ঠতার কারণে যুক্তরাষ্ট্র ও এর মিত্রদের পক্ষ থেকে বেশ চাপে আছে মহাপ্রাচীরের দেশটি।

এর আগে বৃহস্পতিবার চীনের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় থেকে প্রকাশিত বার্তায় ১২ দফা তুলে ধরে নিজের অবস্থান আবারও স্পষ্ট করেছে দেশটি। শুক্রবার মার্কিন সংবাদমাধ্যম সিএনএন এ তথ্য জানিয়ে বলেছে, চীন এই চলমান সংঘাতের রাজনৈতিক সমাধান চেয়েছে। বেইজিং চায়—যুদ্ধ বন্ধে আবারও শান্তি আলোচনা শুরু হোক এবং পশ্চিমের এক তরফা নিষেধাজ্ঞার অবসান হোক।

প্যারিসে অনুষ্ঠানরত কৃষি বিষয়ক এক প্রদর্শনীতে অংশ নেয়ার পর পৃথক বক্তব্যে মাখোঁ জানান, তিনি ‘এপ্রিলের শুরুর দিকে’ চীন সফরে যাবেন। ফরাসি নেতা বলেন, ‘এটা একটা সুসংবাদ, যে চীন শান্তি প্রতিষ্ঠার উদ্যোগ নিয়েছে।’ তিনি আরও বলেন, শান্তি তখনই আসবে যখন, ‘রাশিয়ার আগ্রাসন বন্ধ হবে, সেনা প্রত্যাহার হবে এবং ইউক্রেনের ভূখণ্ডের সার্বভৌমত্ব ও জনগোষ্ঠীর প্রতি সম্মান জানানো হবে’।

তিনি যোগ করেন, 'রাশিয়ার ওপর চাপ সৃষ্টি করার জন্য আমাদের চীনের সহায়তা প্রয়োজন, যাতে তারা কখনোই কেমিক্যাল বা পারমাণবিক অস্ত্র ব্যবহার না করে—এবং শান্তির আলোচনার পূর্বশর্ত হিসেবে তারা যেনো এই আগ্রাসন বন্ধ করে'। ম্যাখোঁর চীন সফরের ঘোষণা আসার অল্প সময় আগে চীনের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় জানায়, শি জিন পিংয়ের আমন্ত্রণে ২৮ ফেব্রুয়ারি থেকে ২ মার্চ বেলারুশের প্রেসিডেন্ট আলেক্সান্ডার লুকাশেঙ্কো রাষ্ট্রীয় সফরে চীনে থাকবেন। রুশ প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিনের দীর্ঘদিনের মিত্র হিসেবে লুকাশেঙ্কো সুপরিচিত।

চীনের পররাষ্ট্রমন্ত্রী কিন গ্যাং এক বিবৃতিতে জানান, তিনি বেলারুশের পররাষ্ট্রমন্ত্রী সের্গেই আলেইনিকের সঙ্গে শুক্রবারে ফোনে কথা বলেছেন। তিনি আলেইনিককে জানান, বেইজিং পারষ্পরিক রাজনৈতিক আস্থা প্রতিষ্ঠায় মিনস্কের সঙ্গে কাজ করতে আগ্রহী। কিন গ্যাং আরও জানান, চীন একইসঙ্গে বেলারুশের জাতীয় স্থিতিশীলতা বজায় রাখা ও দেশের অভ্যন্তরীণ বিষয়গুলোতে ‘বহিঃশক্তির’ হস্তক্ষেপের বিরোধিতা করায় সহায়তা অব্যাহত রাখবে এবং কোনো শক্তি যেনো বেলারুশের বিরুদ্ধে ‘অবৈধ’ একপাক্ষিক বিধিনিষেধ আরোপ না করে, সেদিকে নজর রাখবে। সূত্র: আল-জাজিরা।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: প্রেসিডেন্ট


আরও
আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ
গত​ ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ