Inqilab Logo

বুধবার, ১৭ জুলাই ২০২৪, ২ শ্রাবন ১৪৩১, ১০ মুহাররম ১৪৪৬ হিজরী

নায়ক মান্না চলে যাওয়ার ১৫ বছর

অনলাইন ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ১৭ ফেব্রুয়ারি, ২০২৩, ৮:৫০ পিএম

বাংলাদেশের অন্যতম সফল ও জনপ্রিয় নায়ক মান্নার চলে যাওয়ার আজ ১৫ বছর। ২০০৮ সালের আজকের এই দিনে ৪৪ বছর বয়সে হৃদ্‌রোগে আক্রান্ত হয়ে তিনি মৃত্যুবরণ করেন। মান্নার মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে মান্নাকে স্মরণ করছে তাঁর পরিবার ও ভক্তরা। তাঁর সহধর্মিণী শেলী মান্না জানান, প্রতি বছরের মতো এবারও দিনটি বিশেষভাবে পালন করা হচ্ছে।

শেলী মান্না জানান, ‘মান্না ফাউন্ডেশনের কমিটি থেকে দোয়া ও মিলাদের আয়োজন করা হয়েছে। টাঙ্গাইলে পারিবারিকভাবেও মান্নার মৃত্যুবার্ষিকী পালিত হয়েছে। এ ছাড়া আজ শুক্রবার মান্নার নিজ জেলা টাঙ্গাইলের প্রেস ক্লাবে মান্না স্মরণে অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়েছে।’

এর পাশাপাশি ‘মান্না ফাউন্ডেশন চট্টগ্রাম’-এর উদ্যোগে চট্টগ্রাম প্রেস ক্লাবে আজ শুক্রবার বিকেলে ৪টায় শোক ও স্মরণসভার আয়োজন করা হয়েছে।

সংগঠনটির সভাপতি মোহাম্মদ এনামুল হক মিঠু জানান, ‘গণমানুষের নায়ক মান্নার স্মরণে চট্টগ্রাম প্রেসক্লাবে আজ শুক্রবার বিকেলে ৪টায় ফাউন্ডেশনের পক্ষ থেকে দোয়ার আয়োজন করা হয়েছে। প্রতি বছরের মতো এবারও আমরা আমাদের প্রিয় নায়ককে স্মরণ করব।’

সৈয়দ মোহাম্মদ আসলাম তালুকদার ১৯৮৪ সালে বিএফডিসি আয়োজিত নতুন মুখের সন্ধানের মাধ্যমে চলচ্চিত্রে অভিষেক হয়ে মান্না নামে পরিচিতি পান। তাঁর অভিনীত প্রথম ছবি ‘তওবা’ (১৯৮৪)। এরপর একে একে প্রায় সাড়ে তিন শ ছবিতে অভিনয় করেন জনপ্রিয় এই নায়ক। মান্না অভিনীত প্রথম মুক্তিপ্রাপ্ত ছবি ‘পাগলি’। ১৯৯১ সালে মোস্তফা আনোয়ার পরিচালিত ‘কাসেম মালার প্রেম’ ছবিতে প্রথম একক নায়ক হিসেবে কাজ করেন মান্না। ছবিটি ব্যবসায়িকভাবে সাফল্য পাওয়ার পর মান্নাকে আর পেছন ফিরে তাকাতে হয়নি। অ্যাকশন হিরো হিসেবে তুমুল দর্শকপ্রিয়তা পাওয়া মান্না রোমান্টিক ধাঁচের ছবিতেও নিজের দক্ষতার প্রমাণ দিয়েছেন। এরপর খ্যাতিমান নির্মাতা কাজী হায়াত পরিচালিত ‘দাঙ্গা’ ও ‘ত্রাস’ ছবির মাধ্যমে একক নায়ক হিসেবে প্রতিষ্ঠা পান মান্না। পর্যায়ক্রমে মোস্তফা আনোয়ার পরিচালিত ‘অন্ধ প্রেম’, মনতাজুর রহমান আকবর পরিচালিত ‘প্রেম দিওয়ানা’, ‘ডিসকো ড্যান্সার’, কাজী হায়াৎ পরিচালিত ‘দেশদ্রোহী’ ছবিগুলোর মাধ্যমে দেশের অন্যতম শীর্ষ জনপ্রিয় তারকাতে পরিণত হন মান্না।

১৯৯৯ সালে ‘কে আমার বাবা’, ‘আম্মাজান’, ‘লাল বাদশা’র মতো ব্যবসাসফল চলচ্চিত্রে কাজ করেন মান্না। ‘আম্মাজান’ চলচ্চিত্রে তাঁর অনবদ্য অভিনয় মন্ত্রমুগ্ধ করে দর্শক-সমালোচকদের। এই চলচ্চিত্রকে তাঁর ক্যারিয়ারের অন্যতম মাইলফলক হিসেবে ধরা হয়।

প্রযোজক হিসেবেও মান্না বেশ সফল ছিলেন। তাঁর প্রতিষ্ঠান থেকে যত ছবি প্রযোজনা করেছেন, নিজে প্রযোজক হয়ে কৃতাঞ্জলি কথাচিত্র থেকে প্রতিটি ছবি ব্যবসাসফল হয়েছিল। ছবিগুলোর মধ্যে রয়েছে ‘লুটতরাজ’, ‘লাল বাদশা’, ‘আব্বাজান’, ‘স্বামী-স্ত্রীর যুদ্ধ’, ‘দুই বধূ এক স্বামী’, ‘মনের সাথে যুদ্ধ’, ‘মান্না ভাই’, ও ‘পিতা-মাতার আমানত’।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: ঢালিউড

১৭ ফেব্রুয়ারি, ২০২৩

আরও
আরও পড়ুন
গত​ ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ