Inqilab Logo

বুধবার , ৭ জুন ২০২৩, ২৪ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯, ১৭ যিলক্বদ ১৪৪৪ হিজরী

ইসরাইলের দখলকৃত ফিলিস্তিনি এলাকাকে ‘অধিকৃত’ বলতে নারাজ যুক্তরাষ্ট্র

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ২৮ জানুয়ারি, ২০২৩, ৬:৪৩ পিএম

শুক্রবার মার্কিন স্টেট ডিপার্টমেন্টে একটি মতবিনিময়ের সময়, বাইডেনের পররাষ্ট্র নীতি দলের মুখপাত্র জেনিন এবং পশ্চিম তীরের অন্যান্য অঞ্চলের ফিলিস্তিনিদের ইসরাইলের সামরিক দখলের অধীনে বসবাসকারী হিসাবে বর্ণনা করতে অস্বীকার করেছিলেন।

জেনিনে দশজন ফিলিস্তিনিকে হত্যাকারী ইসরাইলি সামরিক অভিযানের পরিপ্রেক্ষিতে, স্টেট ডিপার্টমেন্টের মুখপাত্র বেদান্ত প্যাটেলকে বারবার জিজ্ঞাসা করা হয়েছিল যে, তারা ফিলিস্তিনের এলাকা দখল করেছে কিনা। তবে তিনি প্রতিবারই প্রশ্নটি এড়িয়ে গিয়েছেন।

এদিকে, মার্কিন সেক্রেটারি অফ স্টেট অ্যান্টনি ব্লিঙ্কেন ইসরাইলি নেতাদের সাথে দেখা করতে যাচ্ছেন এবং বাইডেন প্রশাসন ট্রাম্পের আমলে প্রতিফলিতভাবে ইসরাইলপন্থী নীতিগুলো গ্রহণ করছে বলে মনে হচ্ছে। জেরুজালেমকে ইসরাইলের রাজধানী হিসেবে আনুষ্ঠানিক স্বীকৃতি এবং গোলান মালভূমিতে ইসরাইলের অধিভুক্ত এলাকা বলে দেয়া স্বীকৃতি বাতিল না করার পাশাপাশি, বাইডেন এখন ট্রাম্পের দখলদারিত্বের স্বীকৃতির অনুকরণ করছেন (যেমন ট্রাম্পের ঘোষণায় যে, বসতিগুলি অবৈধ নয়)।

বাইডেন ইসরাইলের দখল নিয়ে মিশ্র সংকেত পাঠিয়েছেন। তার পররাষ্ট্রমন্ত্রী অ্যান্টনি ব্লিঙ্কেন ২০২১ সালে সিনেটের শুনানিতে, ইসরাইলি দখল বা বসতি স্থাপনের কোনও উল্লেখ এড়িয়ে গিয়েছিলেন এবং ইসরাইলের প্রতি বাইডেনের দীর্ঘ সমর্থনের পক্ষে যুক্তি দিয়েছিলেন। তিনি বলেছিলেন যে, তিনি আরব রাজতন্ত্রের সাথে ইসরাইলের সম্পর্ক স্বাভাবিক করার ট্রাম্পের নীতির ‘অগ্রগতি’ চালিয়ে যেতে চান। কিন্তু বাইডেন দখলদারিত্বের বিরোধিতাকারী জাতিসংঘের প্রস্তাবগুলোকে সমর্থন করেছেন এবং গত অক্টোবরে স্টেট ডিপার্টমেন্টের নেড প্রাইস সাক্ষাতকারে স্বীকার করেছেন যে, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র এ অঞ্চলগুলিকে সামরিক দখলের অধীন বলে বিবেচনা করে। সূত্র: মন্ডোওয়েইস।

 



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: যুক্তরাষ্ট্র


আরও
আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ
গত​ ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ