Inqilab Logo

শনিবার, ১৩ জুলাই ২০২৪, ২৯ আষাঢ় ১৪৩১, ০৬ মুহাররম ১৪৪৬ হিজরী

তিন দফা বাড়িয়েও হজ কোটার অর্ধেকও রেজিস্ট্রেশন হয়নি

অনলাইন ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ৭ মার্চ, ২০২৩, ১১:১১ এএম

বিমান ভাড়া ও সউদী সরকারের পক্ষ থেকে সার্ভিস চার্জ বাড়ানোর প্রভাব পড়েছে হজযাত্রায়। তিন দফা সময় বাড়িয়েও এবারের হজযাত্রার আশানুরূপ সাড়া মিলছে না। মঙ্গলবার নিবন্ধনের শেষদিনে কোটার অর্ধেকও রেজিস্ট্রেশন হওয়ার সম্ভাবনা নেই।
সউদী আরবের সঙ্গে চুক্তি অনুযায়ী- ২০২৩ সালে বাংলাদেশ থেকে ১ লাখ ২৭ হাজার ১৯৮ জন হজে যাওয়ার কথা। এ পর্যন্ত বেসরকারিভাবে মোট প্রাক-নিবন্ধন করেছেন ৪৬ হাজার ৫৫৭ জন।
গতকাল সোমবার নিবন্ধন করেছেন ৫ হাজার ৮৯০ জন। আর সরকারি মোট প্রাক-নিবন্ধন করেছেন ৮ হাজার ৮৭৩ জন। সোমবার নিবন্ধন করেছেন ৫১০ জন।
ইসলামের ৫টি স্তম্ভের মধ্যে অন্যতম হজ। ইচ্ছা করলেই কেউ হজে যেতে পারে না। হজের জন্য সর্বপ্রথম শর্তই হলো- আর্থিকভাবে সামর্থ্য থাকতে হবে। অতঃপর শারীরিক সক্ষমতা লাগবে। আর মানসিক প্রস্তুতিও হজের জন্য আবশ্যক বিষয়।
আর্থিক সামর্থ্য বলতে হজ করতে যত টাকা ব্যয় হবে, তা নিজে পরিশোধ করতে হবে। কোনো রকমের ধার বা ঋণ করে হজ করা যাবে না। এককথায় ঋণমুক্ত শারীরিক ও আর্থিকভাবে সক্ষম ব্যক্তিদের ওপরেই হজ ফরজ।
বাংলাদেশ থেকে হজ পালনকারীদের একটি বড় অংশ বয়োবৃদ্ধ। যারা নিজের উপার্জন থেকে বছরের পর বছর টাকা জমিয়ে হজের প্রস্তুতি গ্রহণ করেন। কিন্তু হঠাৎ করে হজের খরচ দেড় লাখ বেড়ে যাওয়ায় তারা বাড়তি খরচ যোগাড় করতে সক্ষম হচ্ছেন না। তার ওপর দ্রব্যমূল্যের ঊর্ধ্বগতি ও ভবিষ্যৎ অর্থনৈতিক সংকটের আশঙ্কায় অনেকে হজে যেতে আগ্রহী হচ্ছেন না।
হজ এজেন্সির মালিকরা বলছেন, এ বছর হঠাৎ খরচ বেড়ে যাওয়ায় তারা বড় রকমের ধাক্কা খেয়েছেন। এর আগে হজযাত্রীরা টাকা নিয়ে পেছনে ঘুরেছেন কিন্তু কোটা না থাকায় পাঠাতে পারেননি।
কিন্তু এবার কোটার অর্ধেক যাত্রীও মিলছে না। প্রাক-নিবন্ধন করতে ৩০ হাজার টাকা জমা দিতে হয় যা পরবর্তীতে ফেরতযোগ্য। আর নিবন্ধনের চূড়ান্ত সময় জমা দিতে হয় অবশিষ্ট টাকা। তবে পাহাড়সম এই খরচ না জোগাতে পেরে অনেকেই চূড়ান্ত নিবন্ধন করছেন না। বরং প্রাক-নিবন্ধনের টাকা ফেরত নেয়ার আবেদন করছেন অনেকেই।
এসোসিয়েশন অব ট্রাভেল এজেন্টস অব বাংলাদেশ (আটাব) মহাসচিব আবদুস সালাম আরেফ বলেন, প্যাকেজ মূল্য বেশি হওয়াতে সাড়া মিলছে খুবই কম। খরচ আরও কম হওয়া উচিত ছিল। কারণ এখন যে প্যাকেজ মূল্য ধরা হয়েছে সেটি অনেকের সাধ্যের বাইরে। আমাদের সংগঠনের পক্ষ থেকে বারবারই খরচ কমানোর দাবি জানিয়ে আসছি। আশা করছি এ বিষয়ে সরকার একটি পদক্ষেপ নেবে।
নিবন্ধনের সময় বাড়ানো বিষয়ে আশাবাদী হজ এজেন্সিজ এসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ (হাব) এর সাধারণ সম্পাদক ফারুক আহমদ সরদার। তিনি বলেন, আমাদের দেশের মানুষের প্রবণতাই হচ্ছে শেষ মুহূর্তে সিদ্ধান্ত নেয়া। শেষ দিনে রেকর্ড সংখ্যক মানুষ নিবন্ধন করতে পারে।
ধর্ম মন্ত্রণালয়ের হজ অনুবিভাগের অতিরিক্ত সচিব মো. মতিউল ইসলাম বলেন, আমরা আশা করছি শেষ পর্যন্ত কোটা পূর্ণ হবে। কারণ এ বছর আমরা অনেক আগে থেকেই নিবন্ধন প্রক্রিয়া শুরু করেছি। খরচ কমানোর বিষয়ে তিনি বলেন, খরচ কমানোর সুযোগ নাই।
ধর্ম মন্ত্রণালয়ের নির্দেশনা অনুযায়ী প্রাক-নিবন্ধনকারীদের হজের চূড়ান্ত নিবন্ধনের শেষ তারিখ ছিল গত ২৩শে ফেব্রুয়ারি। প্রথম দফায় এই মেয়াদ ২৮শে ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত বাড়ানো হয়। কিন্তু কোটা পূরণ না হওয়ায় দ্বিতীয় দফায় ৭ই মার্চ পর্যন্ত বর্ধিত করা হয়।



 

Show all comments
  • Md Hamidul Islam ৭ মার্চ, ২০২৩, ২:৫২ পিএম says : 0
    আমি ও আমার স্ত্রী হজ্জে যাওয়ার নিয়্যত করেছি। কিন্তু এ বারের হজ্জ প্যাকেজ আমার সাধ্যের বাইরে। যে কারনে আমি খুবই মনোকষ্টে আছি। সরকার ও সংশ্লিষ্টদের কাছে আকুল আবেদন হজ্জ প্যাকেজ কমিয়ে আমার মত সাধারণ মুসলমানদের হজ্জব্রত পালন করার সুযোগ করে দিন।
    Total Reply(0) Reply

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: হজ

২৮ ফেব্রুয়ারি, ২০২৩
১৫ ফেব্রুয়ারি, ২০২৩
১৩ ফেব্রুয়ারি, ২০২৩

আরও
আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ
গত​ ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ