Inqilab Logo

বৃহস্পতিবার, ২৩ মে ২০২৪, ০৯ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১, ১৪ জিলক্বদ ১৪৪৫ হিজরী

পরিবেশ দূষণ সভ্যতার প্রতি মারাত্মক হুমকি

আফতাব চৌধুরী | প্রকাশের সময় : ২২ আগস্ট, ২০২২, ১২:০০ এএম

শিল্প-সভ্যতাজাত এক ভয়ঙ্কর বিপদ হলো বায়ুমন্ডলে ওজোন স্তরের ক্ষয় বা গহ্বর সৃষ্টি। বায়ুমন্ডলে ওজোন স্তরের ক্ষয়-ক্ষতি নিয়ে আলোচনা শুরু হয় বিগত তিন দশক আগে। সূর্যের অতি বেগুনি রশ্মি যাতে সরাসরি পৃথিবীপৃষ্ঠে না আসে, সেই বাধা দেওয়ার কাজটি করে থাকে বায়ুমন্ডলে ওজোন স্তর। দেখা গেছে, ব্রোমাইট ও ক্লোরিনযুক্ত রাসায়নিক পদার্থের প্রসারণের ফলে বায়ুমন্ডলের সমতা নষ্ট হচ্ছে, সৃষ্টি হচ্ছে গহ্বরের। বিশেষত শীতাতপ নিয়ন্ত্রণ ব্যবস্থা, স্টাইরোফোম, স্প্রে শিল্প ইত্যাদিতে ব্যবহৃত ক্লোরোফ্লুরোকার্বন (সিএফসি) এবং আগুন নেভাবার জন্য হ্যালন নামক রাসায়নিকের ব্যবহার অত্যধিক বেড়ে যাবার ফলে ওজোন স্তরে ক্ষত সৃষ্টি হচ্ছে। সূর্য থেকে আসা ক্ষতিকর অতি বেগুনি রশ্মির অনেকটাই শুষে নেয় ওজোন স্তর। কিন্তু সেখানে যদি গহ্বর সৃষ্টি হয়, তাহলে ওই রশ্মি সরাসরি পৃথিবীতে পৌঁছবে এবং জীবজগতে প্রাণ সংশয় দেখা দেবে।

বিজ্ঞানীরা দেখেছেন যে, বাতাসে যদি এক শতাংশ ওজোন কমে যায়, তাহলে ৩০ লক্ষ থেকে ১.৫ কোটি মানুষের চামড়ায় ক্যান্সার দেখা দেবে, ৫ লক্ষ থেকে ২৮ লক্ষ মানুষের চোখে নতুন করে চোখে ছানি পড়বে। এই ওজোন স্তর ঘটিত সমস্যা বর্তমানে বিজ্ঞানীদের ভাবিয়ে তুলেছে। ১৯৩১ সালে ক্লোরোফ্লুরোকার্বন অবিষ্কারের পর থেকে ব্যাপক ব্যবহার এবং আধুনিক ইলেকট্রনিক শিল্পে এর চাহিদা বেড়েছে। ১৯৮৬ সালের এক সমীক্ষায় দেখা যায়, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ও ইউরোপীয় ইউনিয়নের উৎপাদন সমগ্র বিশ্বের মোট উৎপাদনের ৭০ শতাংশ এবং ব্যবহার মোট বিশ্ব ব্যবহারের ৫০ শতাংশ। পরিণামে পৃথিবীর দক্ষিণ মেরু প্রদেশের ওজোন স্তরে ছিদ্রের সৃষ্টি হয়েছে। তবে আশার কথা, ক্লোরোফ্লেুারোকার্বনের বিকল্প রাসায়নিকের উৎপাদন শুরু হয়েছে।

সভ্যতার সবচেয়ে বড়ো সংকট হিসাবে দেখা দিয়েছে শিল্পে ব্যবহৃত বর্জ্য পদার্থ। কোথায় ফেলা হবে এই বর্জ্যসমূহ? যেখানেই ফেলা হোক না কেন, তার থেকে দূষণ ছড়াবেই। বিপজ্জনক রাসায়নিক বর্জ্য সৃষ্টি হয় জৈব রাসায়নিক শিল্পে। ১৯৩০ সালে যেখানে উৎপাদন ছিল ১০ লক্ষ টন, ১৯৯০ সালে তা বেড়ে হয়েছে ৫০ কোটি টন। এই সব বর্জ্য জমা হচ্ছে হ্রদে, পুকুরে, নদীতে, সাগরে। মানুষ এযাবৎ ৭০ লক্ষ রাসায়নিক তৈরি করেছে। প্রতি বছর কয়েক হাজার নতুন রাসায়নিক আসছে। এদের মধ্যে ৮০০০ রাসায়নিক বিপজ্জনক। ১৯৯২ সালে ২৩০ কোটি গ্যালন শিল্পজাত বর্জ্যপদার্থ সাগরে ফেলা হয়। নিউইয়র্কের বর্জ্য ফেলার স্থান স্টটেন দ্বীপ, সেখানে প্রতিদিন ২২,০০০ টন বর্জ্য জমা হচ্ছে। আমেরিকার শিল্পকারখানা বছরে ৫৬ কোটি টন মারাত্মক ক্ষতিকারক বর্জ্য সৃষ্টি করে। এই বর্জ্য পদার্থের মধ্যে অতি মাত্রায় ক্ষতিকারক হল পারমাণবিক বর্জ্য। এ নিয়ে মানুষ কী করবে, জানেন না বিজ্ঞানীরা। পারমাণবিক চুল্লির জ্বালানি হল ইউরেনিয়াম। এই পদার্থটিকে যখন খনি থেকে তোলা হয় তখন সে রেডন নামে এক তেজষ্ক্রিয় গ্যাস বিকিরণ করে, যা শ্রমিকদের ফুসফুসে ঢুকে ক্যান্সার সৃষ্টি করে। ইউরেনিয়াম খনি থেকে বিকিরিত গামা রশ্মি মানুষের যৌন ক্রমোজোমের জিনগত বৈকল্য সৃষ্টি করে। ইউরেনিয়ামকে জ্বালানি দন্ডের মাধ্যমে আণবিক চুল্লিতে প্রবেশ করানোর পর তা ভাঙন প্রক্রিয়ায় বিপুল তাপশক্তি ও অসংখ্য বর্জ্য পদার্থের সৃষ্টি করে।

একদল মানুষ আছে, যারা নানা রকম ইনজেকশন দিয়ে কৃত্রিমভাবে গরুর দুধ বাড়াতে চায়। তারা শিশু খাদ্যে ভেজাল মেশায়, মানুষের খাদ্যে ভেজাল মেশায়, মানুষের মনে বিষ ঢোকায়। আসলে ভোগবাদী সভ্যতা প্রাণীদেরই পণ্য করে তোলেনি, মানুষকেও পণ্যের পর্যায়ে নামিয়ে এনেছে। প্রাকৃতিক সম্পদকে লুণ্ঠন করে শিল্প বিপ্লবোত্তর ধনী দেশগুলো যে ভোগবাদী সমাজের আদর্শ নিয়েছে তাতে সকলেই পণ্য।

পৃথিবীর সম্পদকে অসম বণ্টন করে ধ্বংসকে ত্বরান্বিত করা হচ্ছে। উদাহরণ হিসেবে উল্লেখ করা যেতে পারে, পশ্চিমী ধনী দেশগুলো বিপুল পরিমাণে মাংস খায়, যার ফলে তারা পশুপালন করে না, বাণিজ্যিক পণ্যের মতই তাদের চাষ করে। ১ কেজি মুরগীর মাংসের জন্য ২ কেজি শস্য এবং ১ কেজি শূকরের মাংসের জন্য ৪ কেজি শস্য প্রয়োজন। ফলে তারা ২৫ শতাংশ জনসংখ্যার অংশ হয়েও পৃথিবীর ৭৫ শতাংশ শস্য ভোগ করে। অনেক ক্ষেত্রে দেখা গেছে আম পাকানোর জন্য এমন একটি সিন্থেটিক উপাদান ব্যবহার করা হচ্ছে, যা পুরুষ শুক্রাণুকে নষ্ট করে দিচ্ছে। চাষের ক্ষেত্রে যে কীটনাশক ব্যবহার করা হচ্ছে, তাও পুরুষের শুক্রাণুর ওপর বিরূপ প্রতিক্রিয়া সৃষ্টি করে।

পাহাড়ে পূর্ত দফতরের কাজের সঙ্গে যেসব প্রযুক্তিবিদ বিশেষজ্ঞরা যুক্ত রয়েছেন এবং যাঁদের অভিজ্ঞতা দু-দশকেরও বেশি তাঁদের কারো কারো মতে মাত্র দু’ঘণ্টা টানা প্রবল বর্ষণে পাহাড়ের বিস্তৃত এলাকায় ছড়িয়ে ছিটিয়ে প্রায় একই সময় ধ্বংসলীলা ছড়িয়ে দিতে সক্ষম। পাহাড় ধ্বসে যাওয়া নতুন ঘটনা নয়, কিন্তু অতিমাত্রায় বেড়ে যাওয়া চিন্তার বিষয়। পাহাড়ে জনসংখ্যার চাপ বৃদ্ধি, যথেষ্টভাবে বসতবাড়ি, পাহাড়ি রাস্তায় যানবাহনের চাপ বৃদ্ধি সব কিছুর বিপন্ন করে তুলছে পাহাড়ি অঞ্চলকে। একই চিত্র দেখা যাচ্ছে, ভারতের হিমাচলপ্রদেশ, কাশ্মীরে। হিমাচলপ্রদেশ যে ড্যাম গড়া হচ্ছে, তাতে পাহাড়ি পরিবেশ ও ভূত্বকের ভারসাম্য নষ্ট হচ্ছে বলে দীর্ঘ আন্দোলনও চালিয়েছিলেন সুন্দরলাল বহুগুণা। যা হোক কম বেশি সব দেশেই পাহাড়ে পর্যটকদের ভিড় তার পরিবেশকে বিপন্ন করছে, নানাভাবে বিপর্যস্ত হচ্ছে প্রাকৃতিক ভারসাম্য।

প্রতিদিনই সংবাদপত্রে শহরের বায়ু দূষণের পরিমাণের হিসেব দেওয়া হচ্ছে। ব্রাজিলের রিও ডি জেনিরোতে ১৯৯২ সালে যে সম্মেলন হয়েছিল পরিবেশ নিয়ে তাতে আবহাওয়া নিয়ে চুক্তি স্বাক্ষরিত হয় এবং সর্বশেষ জাপানের কিয়োটা শহরের সম্মেলনে চুক্তি হয় ২০১২ সালের মধ্যে বাতাসে কার্বন-ডাই-অক্সাইডের পরিমাণ কমিয়ে ফেলার কিন্তু তা সম্ভব হয়নি। এদিকে আমেরিকা ওই চুক্তিতে মানেনি। বায়ুদূষণের জন্য বিজ্ঞানীরা কার্বন-ডাই-অক্সাইড, সালফার-ডাই-অক্সাইড, নাইট্রোজেন-ডাই-অক্সাইড, মিথেন প্রভৃতিকে দায়ী করেন। বিভিন্ন খনিজ জ্বালানি যেমন কয়লা, পেট্রোল, ডিজেল, প্রাকৃতিক গ্যাস পোড়ালে বাতাসে কার্বন-ডাই-অক্সাইডের পরিমাণ বেড়ে যায়। হিসেব অনুযায়ী বিগত একশ’ বছরে বাতাসে ২৫ শতাংশ কার্বন-ডাই-অক্সাইড বেড়েছে। তাপবিদ্যুৎ উৎপাদনের সময় প্রচুর সালফার-ডাই-অক্সাইড বাতাসে মেশে। সালফার-ডাই-অক্সাইড বাতাসে থাকা অক্সিজেন ও জলীয় বাষ্পের সঙ্গে মিশে সালফিউরিক অ্যাসিড এবং নাইট্রিক অ্যাসিড উৎপন্ন করে। এ দুই প্রকার অ্যাসিড বৃষ্টির সঙ্গে মাটিতে নেমে আসে। অ্যাসিড বৃষ্টির ফলে মাটির উর্বরা শক্তি হ্রাস পায়, উদ্ভিদের বৃদ্ধি ক্ষতিগ্রস্ত হয়, পানির উৎসগুলো দূষিত হয়ে পড়ে। বায়ুদূষণের ফলে পৃথিবীর উষ্ণতা বাড়ে। বিজ্ঞানীরা সতর্ক করে বলেছেন, বায়ুদূষণের পরিমাণ না কমালে ২০৪০ সাল নাগাদ পৃথিবীর উষ্ণতা ৫০ সেন্টিগ্রেড বেড়ে যাবে। তাতে মরু অঞ্চলে বরফ গলবে, হিমবাহগুলো গলতে শুরু করবে, পানিস্তর ২-৩ ফুট বেড়ে যাবে। ফলে সমুদ্র উপকূলের শহরগুলো ডুবে যাবার সম্ভাবনা দেখা দেবে। এমনকি আমেরিকার মায়ামি, ফ্লোরিডার মতো শহর ডুবে যাবে।

পরিবেশকে দূষণমুক্ত রাখার চেষ্টা শুধুমাত্র মুষ্টিমেয় বৈজ্ঞানিকের বা পরিবেশ সচেতন ব্যক্তিদের হাতে সোপর্দ করে যেভাবে চলছে, সেভাবে চললে যে অনিবার্য পরিণতি নেমে আসবে সে বিষয়টি নিশ্চিত। ধনী দেশগুলোর ইদানীং একটা প্রবণতা লক্ষ করা যাচ্ছে পরিবেশ দূষণের যাবতীয় দায় তৃতীয় বিশ্বের দেশগুলোর ঘাড়ে চাপিয়ে নিজেদের ক্লিন রাখার চেষ্টা। অথচ আমরা দেখেছি পৃথিবীর যাবতীয় দূষণের সিংহভাগ দূষণের জন্য প্রত্যক্ষ অথবা পরোক্ষভাবে দায়ী উন্নত দেশগুলো। আমরা তৃতীয় বিশ্বের মানুষেরা দূষণ নিয়ে চেঁচামেচি করি তা কেবলমাত্র অক্ষমের বিলাপ ছাড়া অন্য কিছু নয়।

লেখক: সাংবাদিক ও কলামিস্ট।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: পরিবেশ দূষণ সভ্যতার প্রতি মারাত্মক হুমকি
আরও পড়ুন