Inqilab Logo

রোববার, ২৫ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, ১২ ফাল্গুন ১৪৩০, ১৪ শাবান সানি ১৪৪৫ হিজরী

রাশিয়াকে প্রাণঘাতী অস্ত্র দিতে পারে চীন

আশঙ্কা প্রকাশ যুক্তরাষ্ট্রের বাখমুতের কাছে অবস্থান আরও শাক্তিশালী করেছে রুশ সেনা ষ খারকভের গুরুত্বপূর্ণ শহর মুক্ত ষ শিগগিরই রাশিয়ার নিয়ন্ত্রণে ফিরে যাবে খেরসন : ভারপ্রাপ্ত গভর্নর

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ২০ ফেব্রুয়ারি, ২০২৩, ১২:০০ এএম

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র আশঙ্কা করছে যে, চীন কথিতভাবে রাশিয়াকে প্রাণঘাতী অস্ত্র দেয়ার কথা বিবেচনা করছে। মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী এন্টনি ব্লিঙ্কেন এনবিসিকে দেয়া একটি সাক্ষাতকারে এ কথা বলেছেন, যার একটি অংশ গতকাল প্রচারিত হয়েছিল।

ব্লিঙ্কেন-এর মতে, চীনা স্টেট কাউন্সিলর এবং সিসিপি সেন্ট্রাল ফরেন অ্যাফেয়ার্স অফিসের ডিরেক্টর ওয়াং ইয়ের সাথে একটি কথোপকথনে, তিনি ‘রাশিয়ার প্রতি চীনের সমর্থন সম্পর্কে আমাদের (মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের) খুব বাস্তব উদ্বেগগুলো শেয়ার করার সুযোগ পেয়েছিলেন। মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ‘গত কয়েক বছর ধরে আমরা যা দেখেছি তা হচ্ছে, রাশিয়ার প্রতি চীনের সমর্থন অবশ্যই কিছু রাজনৈতিক এবং অলঙ্কৃত, এমনকি কিছু অ-মারাত্মক অস্ত্র সমর্থনও থাকতে পারে। তবে আমরা খুবই উদ্বিগ্ন যে, চীন রাশিয়াকে প্রাণঘাতী অস্ত্রের সমর্থন দেয়ার বিষয়টি বিবেচনা করছে।’

তিনি বলেছিলেন যে, রাশিয়াকে ‘মারাত্মক অস্ত্র দিয়ে সমর্থন’ প্রদান করা ‘আমাদের (চীন-মার্কিন) সম্পর্কের ক্ষেত্রে (বেইজিংয়ের জন্য) গুরুতর পরিণতি’ হবে। তিনি আরও বলেছিলেন যে, এটি এমন কিছু ছিল যা ‘প্রেসিডেন্ট (জো) বাইডেন (চীনা) প্রেসিডেন্ট শি (জিনপিং) এর সাথে বেশ কয়েকটি অনুষ্ঠানে উল্লেখ করেছেন’। জানুয়ারির শেষের দিকে, মার্কিন জাতীয় নিরাপত্তা পরিষদের কৌশলগত যোগাযোগের সমন্বয়কারী জন কিরবি বলেছিলেন যে, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ইউক্রেনে রাশিয়ার বিশেষ সামরিক অভিযানকে সমর্থন না করার জন্য চীনকে অনুরোধ করেছে। তার মতে, মস্কোর বিরুদ্ধে মার্কিন নিষেধাজ্ঞার ব্যবস্থা লঙ্ঘনকারী চীনা কোম্পানিগুলো সহ, ওয়াশিংটন সেই সংস্থাগুলোর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়ার ইচ্ছা প্রকাশ করেছিল।

বাখমুতের কাছে অবস্থান আরও শাক্তিশালী করেছে রুশ সেনা : শনিবার ডোনেৎস্ক পিপলস রিপাবলিক (ডিপিআর) এর ভারপ্রাপ্ত প্রধান ডেনিস পুশিলিন বলেছেন, রাশিয়ান বাহিনী আর্টিওমভস্কের (ইউক্রেনীয় নাম বাখমুত) কাছে তাদের অবস্থান শক্তিশালী করেছে। আর্টিওমোভস্ককে মুক্ত করা হচ্ছে। এখন আমাদের কাছে এর উপকণ্ঠে অবস্থানের উন্নতির বিষয়ে তথ্য রয়েছে, সেটি হল প্রসকোভিয়েভকা গ্রাম (ইউক্রেনীয় নাম পারাসকোভিয়েভকা) মুক্ত করা হয়েছে, যা আমাদের চাসভ ইয়ারের দিকে বাকি রাস্তা অবরোধের কাছাকাছি এগিয়ে যেতে সক্ষম করে। প্রকৃতপক্ষে পাঁচটি রাস্তার মধ্যে এটিই ছিল একমাত্র রাস্তা, যার দ্বারা শত্রু সেনাদের রসদ সরবরাহ করা হচ্ছিল,’ তিনি ‘উই আর টুগেদার’ স্বেচ্ছাসেবকদের আঞ্চলিক সদর দফতরের একটি কর্মশালায় সাংবাদিকদের বলেন।

পুশিলিনের মতে, চাসভ ইয়ারের দিকে রাস্তা আটকানো আর্টিওমোভস্কের মুক্তিকে আরও কাছে নিয়ে আসবে। ‘এটি আসলে একটি রাস্তা, তবে এটি শাখাযুক্ত। অন্য কথায়, এটিকে অবরুদ্ধ করতে হবে এবং তারপরে আমরা আর্টিওমভস্কের মুক্তিকে খুব কাছাকাছি নিয়ে আসব,’ ডিপিআরের ভারপ্রাপ্ত প্রধান বলেছেন। আর্টিওমভস্ক, যা ডোনেৎস্ক পিপলস রিপাবলিকের কিয়েভ-নিয়ন্ত্রিত এলাকায় অবস্থিত, ডনবাসে ইউক্রেনীয় সেনাদের জন্য একটি প্রধান সরবরাহ কেন্দ্র। শহর জুড়ে চলছে তুমুল যুদ্ধ চলছে। গত ১৬ ফেব্রুয়ারী পুশিলিন জানিয়েছিলেন যে, রাশিয়ান বাহিনী আর্টিওমভস্কের নিকটবর্তী সমস্ত গুরুত্বপূর্ণ উচ্চভূমি এলাকা দখল করেছে।

খারকভের গুরুত্বপূর্ণ শহর মুক্ত : রাশিয়ার পশ্চিমা বাহিনী খারকভ অঞ্চলের গ্র্যানিকোভকা বসতি পুরোপুরি মুক্ত করেছে। রাশিয়ার প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র লেফটেন্যান্ট জেনারেল ইগর কোনাশেনকভ শনিবার সাংবাদিকদের এ তথ্য জানিয়েছেন। ‘কুপিয়ানস্ক ফ্রন্টলাইনে পশ্চিমা বাহিনীর একটি আক্রমণাত্মক অভিযানের ফলে খারকভ অঞ্চলের গ্র্যানিকোভকা বসতি সম্পূর্ণরূপে মুক্ত করা হয়েছে,’ তিনি বলেছিলেন।

শীঘ্রই রাশিয়ার নিয়ন্ত্রণে ফিরে যাবে খেরসন : খেরসন শহরটি শীঘ্রই রাশিয়ার নিয়ন্ত্রণে ফিরে আসবে, শনিবার খেরসন অঞ্চলের ভারপ্রাপ্ত গভর্নর ভ্লাদিমির সালদো বলেছেন। তার মতে, এটি খুব শীঘ্রই ঘটবে। ‘লোকেরা আমাকে জিজ্ঞাসা করে যে, খেরসন সম্পর্কে আমরা কী মনে করি? আমাদের নিশ্চিত যে, অদূর ভবিষ্যতে, খুব শীঘ্রই, খেরসন শহর আবার রাশিয়ান ফেডারেশনের মধ্যে খেরসন অঞ্চলের অংশ হবে,’ সালদো ‘উই আর টুগেদার’ ক্যাম্পেইনের স্বেচ্ছাসেবকদের আঞ্চলিক সদর দফতরের জন্য একটি সেমিনারে সাংবাদিকদের ছিলেন।
সালদো জোর দিয়ে বলেছিলেন যে, খেরসনকে সাময়িকভাবে ছেড়ে দেয়া হয়েছিল এবং তিনি শহরটি থেকে বেসামরিক নাগরিকদের সরিয়ে নেয়ার জন্য রাশিয়ান পিপলস ফ্রন্টের প্রশংসা করেছিলেন। ‘আবাসিকদের সরিয়ে নেয়ার জন্য একটি বড় আকারের অভিযানের আয়োজন করা হয়েছিল,’ তিনি বলেছিলেন, ‘খেরসনের প্রায় ১ লাখ ৫০ হাজার বাসিন্দা এবং (ডিনিপার নদীর) ডান তীরে বসবাসকারী লোকদের বাম তীরে স্থানান্তরিত করা হয়েছিল।’

১৮ অক্টোবর ২০২২ সালে সালদো বলেছিলেন যে, ইউক্রেনীয় বাহিনী কাখোভকা জলবিদ্যুৎ কেন্দ্রে আক্রমণ করলে বন্যার ঝুঁকির কারণে খেরসন অঞ্চলের ডিনিপার নদীর পশ্চিম তীরে বসবাসকারী বেসামরিক নাগরিকদের পূর্ব তীরে সরিয়ে নেয়া হবে। ৩১ অক্টোবর সালদো বলেছিলেন যে, এ অঞ্চলে ডিনিপারের পূর্ব তীর বরাবর ১৫ কিলোমিটার প্রসারিত করা হবে। সূত্র : তাস, রয়টার্স।



 

Show all comments
  • Md Shahin Islam ২০ ফেব্রুয়ারি, ২০২৩, ৮:৪২ এএম says : 0
    মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র যে ইউক্রেনে অস্ত্র দিছে সেটা কে হুশিয়ারী দেয়।
    Total Reply(0) Reply
  • Das Ratan Kumar Ratan ২০ ফেব্রুয়ারি, ২০২৩, ৮:৪৩ এএম says : 0
    এই যুদ্ধ যুক্তরাষ্ট্রর বন্ধ করলেই হয়।
    Total Reply(0) Reply
  • Md Abdur Rahim Deowan ২০ ফেব্রুয়ারি, ২০২৩, ৮:৪৩ এএম says : 0
    চীনের উচিৎ দ্রুত অস্ত্র সরবরাহ করে যুদ্ধ সমাপ্তিতে ভূমিকা রাখা। কারণ, আমেরিকা ও তার পশ্চিমা মিত্ররা পৃথিবীকে অশান্ত করে রেখেছে। তাদের পতনই বিশ্বে শান্তি আসবে।
    Total Reply(0) Reply
  • Esmail Hasan Eshak ২০ ফেব্রুয়ারি, ২০২৩, ৮:৪৩ এএম says : 0
    যুদ্ধ মানুষের জীবনে ভালো কিছু নিয়ে আসে না যুদ্ধ নয় শান্তি চায়
    Total Reply(0) Reply
  • Abdul Jalil ২০ ফেব্রুয়ারি, ২০২৩, ৮:৪৩ এএম says : 0
    পরাশক্তি দেশ গুলো নিজের পাল্টাপাল্টি হ্মমতা জাহির ও নিষেধাজ্ঞা দেওয়ার কারণে উন্নয়নশীল দেশ গুলো সমস্যায় পড়েছে।
    Total Reply(0) Reply

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: ইউক্রেন-রাশিয়া


আরও
আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ
গত​ ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ