Inqilab Logo

রোববার, ১৪ জুলাই ২০২৪, ৩০ আষাঢ় ১৪৩১, ০৭ মুহাররম ১৪৪৬ হিজরী

রমজানে বাজার যেন নিয়ন্ত্রণে থাকে

রমজানে বাজার যেন নিয়ন্ত্রণে থাকে | প্রকাশের সময় : ৯ ফেব্রুয়ারি, ২০২৩, ১২:০০ এএম

বছর পেরিয়ে রমজান আবার হাতছানি দিচ্ছে। রমজানে স্বাভাবিকভাবেই নিত্যপ্রয়োজনীয় সকল জিনিসপত্রের চাহিদা বেড়ে যায়। রমজানের পূর্বমুহূর্তে সঠিক তদারকি এবং পরিকল্পনা না নিলে বাজারে আগুন লেগে যায়। সবকিছুর দাম আকাশচুম্বী হয়ে যায়। ব্যবসায়ী এবং বিভিন্ন অসাধু চক্র সিন্ডিকেট তৈরি করে বাজারে কৃত্রিম সংকট তৈরি করে। মানুষের মধ্যে বিভ্রান্তি সৃষ্টি করে। পণ্য কেনার বিভিন্ন অসুস্থ প্রতিযোগিতা তৈরি করে। সঠিক দিকনির্দেশনা, পরিকল্পনা, বাজার মনিটরিং এবং জবাবদিহি না থাকায় বরাবরই একই ঘটনা ঘটে। করোনার ভয়াল থাবা পেরিয়ে মানুষ অর্থনৈতিকভাবে পঙ্গু। হাজার হাজার মানুষ শহর ত্যাগ করে গ্রামে যাচ্ছে। যারা শহরে টিকে আছে তাদের বৃহৎ একটা অংশ অর্থনৈতিকভাবে দিশেহারা। তবুও সকলের মধ্যে একটা ইচ্ছে থাকে, রমজানে অন্তত পরিবার পরিজন সাথে নিয়ে ভালোভাবে খেয়েদেয়ে সময় কাটাবে। কিন্তু যখন দেখে রমজানের আগেই বাজারে দ্রব্যমূল্যে আগুন তখন মাথায় হাত রাখতে হয়। নিরবে দীর্ঘশ্বাস ফেলতে হয়। করোনা সংকট, ইউক্রেন যুদ্ধ এবং আমাদের অর্থনৈতিক সংকট সবাইকে ভয়াবহ অবস্থায় ফেলছে। ডলার সংকট হওয়ার ফলে আমদানি সমস্যা সৃষ্টি হচ্ছে। ক্ষুদ্র এবং মাঝারি মানের কোম্পানিগুলো বাজারের সাথে তাল মিলিয়ে আমদানি করতে পারছে না। ফলে দিনদিন সকল আমদানি পণ্য বড় কোম্পানির হাতে স্টক হয়ে যাচ্ছে। যেটার সঠিক তদারকি না করলে বাজারে দাম বৃদ্ধি এবং বড়সড় সংকট তৈরি করতে পারে। তাই সরকারের পক্ষ থেকে যথাযথ পদক্ষেপ নিয়ে এই কঠিন পরিস্থিতি মোকাবেলার প্রস্তুতি নিতে হবে। যেকোনোভাবে নিত্য প্রয়োজনীয় জিনিসপত্রের দাম হাতের নাগালে রাখতে হবে। সরকারের উচিত হবে রমজান উপলক্ষে নিত্যপ্রয়োজনীয় সকল পণ্য সংগ্রহ করে রাখা, কেউ যেন কালাবাজারি, অসাধু সিন্ডিকেট তৈরি করতে না পারে সে ব্যাপারে যথাযথ পদক্ষেপ নেওয়া এবং অনুযায়ী আইনের সঠিক ও সুষ্ঠু প্রয়োগ বাস্তবায়ন করা।

মো. সায়েদ আফ্রিদী
শিক্ষার্থী, ঢাকা কলেজ।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

আরও পড়ুন