Inqilab Logo

বুধবার, ২৬ জুন ২০২৪, ১২ আষাঢ় ১৪৩১, ১৯ যিলহজ ১৪৪৫ হিজরী

গ্যাস-বিদ্যুৎ ও পণ্যমূল্যে দিশাহারা মানুষ

| প্রকাশের সময় : ৭ ফেব্রুয়ারি, ২০২৩, ১২:০০ এএম

রাজধানীতে গ্যাস সঙ্কট তীব্র। বহু এলাকায় সূর্য ওঠার আগেই গ্যাস চলে যায়। দিনের বেশিরভাগ সময় গ্যাস থাকে না। আসে সন্ধ্যার আগে-পরে। দিনে চুলা না জ্বলায় রান্নাবান্না বন্ধ থাকে। যারা রাত জেগে রান্নাবান্না করতে পারে, তাদের দিনে খাওয়া-দাওয়া চলে। যারা তা পারে না তাদের উপোষ থাকতে হয়। অনেক পরিবার লাকড়ির চুলার যুগে ফিরে গেছে। কোনো কোনো পরিবার ইলেকট্রিক চুলায় জরুরি রান্না সারে। এভাবেই চলছে দিনের পর দিন। সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ নিরব। কী কারণে গ্যাস সরবরাহ কমিয়ে দেয়া বা বন্ধ রাখা হচ্ছে, সেটা জানানোর সৌজন্যও নেই। গ্রাহকদের কর্তৃপক্ষ মানুষ বলেই মনে করে না। সরকার গ্যাস সাশ্রয়ের কথা বলেই খালাস। গ্যাস না থাকায় গ্রাহকদের যে অপরিসীম কষ্ট-দুর্ভোগ হচ্ছে, এর দ্রুত অবসান যে প্রয়োজন, সরকার তা অমলে নেয়ার তাকিদ বোধ করছে না। বিদ্যুতের সরবরাহও নিরবচ্ছিন্ন নয়। লোডশেডিং এখনোও হচ্ছে। বিদ্যুৎ পরিস্থিতির আগামীতে উন্নতি হবে, তেমন সম্ভাবনা দেখা যাচ্ছে না। গ্রীষ্মে বরং সঙ্কট ভয়াবহ রূপ নিতে পারে, এমন আশঙ্কাই করা হচ্ছে। গ্যাস-বিদ্যুতের আবাসিক ছাড়াও শিল্প-বাণিজ্যিক খাতে গ্রাহক রয়েছে। তাদের অবস্থাও শোচনীয়। শিল্প-কারখানার মালিক ও ব্যবসায়ীরা অবিচ্ছিন্ন গ্যাস-বিদ্যুতের সরবরাহ নিশ্চিত করার দাবি জানিয়ে আসছে বার বার। তারা এ পর্যন্ত বলেছে, নিশ্চিত সরবরাহের জন্য তারা বাড়তি কিছু মূল্য দিতেও রাজি আছে। তাদের এই নিরূপায় প্রস্তাবও গ্রাহ্যতা পায়নি। শিল্প-বাণিজ্যিক খাতে গ্যাস-বিদ্যুতের সরবরাহ স্বাভাবিক ও মসৃণ হয়নি। গ্যাস-বিদ্যুতে যেমন আবাসিক গ্রাহকদের হয়রানি-বিড়ম্বনার শেষ নেই তেমনি শিল্প-বাণিজ্যিক গ্রাহকদেরও। সবচেয়ে উেেদ্বগের বিষয়, শিল্প খাতের গ্রাহকরা ব্যাপকভাবে উৎপাদন ক্ষতির শিকার হচ্ছে। এতে রফতানিতেও ধস নামার আশঙ্কা।

সঙ্কট বা সরবরাহ ঘাটতি যতই হোক, গ্রাহকদের মূল্য বা মাশুল কিন্তু ঠিকই দিতে হচ্ছে। গ্যাসের দাম বাড়ানো হয়েছে। এলএনজির দামও বাড়ানো হয়েছে। ১২ কেজির এলএনজি সিলিন্ডারের দাম এক লাফে ২৬৬ টাকা বেড়েছে। এই বাড়তি দামেও সিলিন্ডার পাওয়া যাচ্ছে না, আরো অতিরিক্ত দিতে হচ্ছে। বিইআরসির হাতে থেকে তেল, গ্যাস, বিদ্যুতের দাম বাড়ানোর ক্ষমতা সরকারের হাতে নেয়া হয়েছে। ২৩ দিনের ব্যবধানে বিদ্যুতের দাম খুচরা পর্যায়ে দুইবার বেড়েছে। ভবিষ্যতেও এভাবে বাড়ানো হবে। গ্যাস-বিদ্যুৎ মিলে গ্রাহকদের খরচ বেড়েছে অন্তত ২০-২৫ শতাংশ। এমনিতে নিত্য পণ্যের দাম হু হু করে বাড়ছে। চাল, ডাল, তেল, চিনি, শাকসবজি, মাছ-গোশত, ডিম-দুধসহ কোনো কিছুরই দাম নি¤œবিত্ত-মধ্যবিত্তের নাগালের মধ্যে নেই। মূল্যস্ফীতি সরকারিভাবে ১০ শতাংশের ওপরে বলা হলেও প্রকৃত মূল্যস্ফীতি তার চেয়ে অনেক বেশি। পণ্য ও সেবাপণ্যের দাম বৃদ্ধিতে ইতোমধ্যে রেকর্ড সৃষ্টি হয়েছে। নি¤œবিত্ত-মধ্যবিত্তের বেঁচেবর্তে থাকাই এখন দায় হয়ে পড়েছে। পবিত্র মাহে রমজান খুব দূরে নয়। রমজানকে সামনে রেখে ব্যবসায়ীরা সব ধরনের পণ্যের দামই প্রতিযোগিতা করে বাড়িয়ে দিচ্ছে। আজ যে পণ্য যে দামে বিক্রী হচ্ছে, কাল তাতে যোগ হচ্ছে কিছু বাড়তি। সরকার বলছে, এখন পণ্যের কোনো অভাব নেই, রমজানেও অভাব হবে না। ব্যবসায়ীরা বলছে, ডলার না পাওয়ায় তারা পণ্য আমদানি করতে পারছে না। ফলে পণ্যের দাম বাড়ছে। মানুষ সরকারের কথা বিশ্বাস করবে, নাকি ব্যবসায়ীদের? সাধারণ মানুষ রীতিমত অসহায় ও দিশাহারা হয়ে পড়েছে।

মাহে রমজান আসার আগেই রাজধানীসহ সর্বত্র গ্যাসের সরবরাহ নিশ্চিত করতে হবে, যাতে রোজাদাররা কোনো অসুবিধায় না পড়ে, রান্নাবান্নায় কোনো ব্যাঘাত না ঘটে। অনুরূপভাবে বিদ্যুৎ সরবরাহও সার্বক্ষণিক করতে হবে। এইসঙ্গে নিত্যপণ্য, বিশেষত রোজায় যেসব পণ্যের চাহিদা বেশি হয়, তাদের জোগান পর্যাপ্ত ও মূল্য সাধারণ মানুষের ক্রয়ক্ষমতার মধ্যে স্থিতিশীল করতে হবে। ইদানিং সরকারের তরফে প্রায়ই বলা হচ্ছে, গ্যাস-বিদ্যুতের জন্য ভর্তুকি দেয়া সম্ভব নয়। যে দামে গ্যাস-বিদ্যুৎ কিনতে হচ্ছে সে দাম গ্রাহকদের দিতে হবে। প্রশ্ন হলো, বাড়তি বা অতিরিক্ত দামে গ্যাস-বিদ্যুৎ কিনলে তার দায় গ্রাহকরা নেবে কেন? কখন কোন খাতে ভর্তুকি দিতে হয়, দেয়া আবশ্যক বলে বিবেচিত হয়, তা সরকারি মহলের অজানা নেই। আবার এ কথাও বলা বাহুল্য, যত ইচ্ছা তত ভর্তুকি দেয়া সম্ভব নয়। কাজেই, সাশ্রয়ী মূল্যে কেনা ও চুরি-অপচয় রোধ করার বিকল্প নেই। বিশেষজ্ঞদের অভিমত, গ্যাস-বিদ্যুতের চুরি, সিস্টেম লস, অবৈধ সংযোগ বন্ধ করলে সরবরাহ বাড়ার পাশাপাশি দফায় দফায় দাম বাড়ানোর প্রয়োজন হওয়ার কথা নয়। সরকার এ কথায় কান দেয়ার গরজ দেখায় না। পণ্যমূল্য নিয়ন্ত্রণেও সরকারের অনীহা। ব্যবসায়ীরা যাচ্ছেতাই করে যাচ্ছে। সরকার মাঝে মধ্যে হুমকি-ধামকি ছাড়া তাদের দৌরাত্ম্যের লাগাম টেনে ধরছে না। সরকার ব্যবসায়ী বান্ধব বলে কি? সেবাপণ্য ও নিত্যপণ্যের বেপরোয়া মূল্যবৃদ্ধি সাধারণ মানুষের ওপর অসহনীয় জুলুমের শামিল। এর অবসান হওয়ায় জরুরি।

 



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

আরও পড়ুন