Inqilab Logo

মঙ্গলবার, ১৬ জুলাই ২০২৪, ১ শ্রাবন ১৪৩১, ০৯ মুহাররম ১৪৪৬ হিজরী

ইউক্রেনের ৬০টিরও বেশি আর্টিলারি ইউনিট ধ্বংস

২০০ সেনা নিহত ১৩৯টি লেপার্ড ট্যাঙ্ক পাঠাতে পারে জার্মানি ইউক্রেন সরাসরি জয়ের পথে নেই : ডেইলি টেলিগ্রাফ বেলারুশকে অনাগ্রাসন চুক্তির প্রস্তাব দিয়েছে ইউক্রেন: লুকাশেঙ্কো

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ২৫ জানুয়ারি, ২০২৩, ১২:০০ এএম

রাশিয়ার প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র লেফটেন্যান্ট-জেনারেল ইগর কোনাশেনকভ সোমবার রিপোর্ট করেছেন যে, ইউক্রেনে বিশেষ সামরিক অভিযান চলাকালীন রাশিয়ার যুদ্ধ বিমান, ক্ষেপণাস্ত্র সৈন্য এবং কামান গত দিনে ৬০টিরও বেশি ইউক্রেনীয় আর্টিলারি ইউনিটকে ফায়ারিং অবস্থানে আঘাত করেছে। পাশাপাশি, বিভিন্ন স্থানে সংঘর্ষে ২ শতাধিক ইউক্রেনীয় সেনা নিহত হয়েছে।

‘গত ২৪ ঘন্টায়, রাশিয়ান গ্রæপ অফ ফোর্সের অপারেশনাল-কৌশলগত বিমান, ক্ষেপণাস্ত্র সৈন্য এবং আর্টিলারি ৯৭টি এলাকায় জনশক্তি এবং সামরিক সরঞ্জামসহ ফায়ারিং পজিশনে ৬৩টি আর্টিলারি ইউনিটে আঘাত করেছে,’ মুখপাত্র বলেছেন। এছাড়া, রাশিয়ান আর্টিলারি কুপিয়ানস্ক এলাকায় দুটি ইউক্রেনীয় সেনা ব্রিগেডের জনবলকে আঘাত করেছে, এতে গত দিনে ৪০ জনেরও বেশি ইউক্রেনীয় সেনা নিহত হয়েছে, কোনাশেনকভ রিপোর্ট করেছেন।

গত দিনে রাশিয়ান আর্টিলারি এবং প্যারাট্রুপারদের দ্বারা ক্ষতিগ্রস্থ হওয়ার ফলে ক্রাসনি লিমান এলাকায় ইউক্রেনের সামরিক বাহিনী প্রায় ৭০ জন সৈন্য এবং দুটি রাডার হারিয়েছে, কোনাশেনকভ রিপোর্ট করেছেন। ‘ক্র্যাসনি লিমান এলাকায়, সেন্ট্রাল মিলিটারি ডিস্ট্রিক্ট এবং এয়ারবর্ন ফোর্সের আর্টিলারি দ্বারা দেয়া আগুন সেরেব্রিয়ানস্কি বনাঞ্চলে ইউক্রেনীয় সেনাবাহিনীর ৮০ তম এবং ৯৫ তম এয়ার অ্যাসল্ট ব্রিগেডের ইউনিটগুলির ক্ষতি করেছে। শত্রæর ক্ষতির পরিমাণ ছিল ৭০ জন কর্মী, চারটি সাঁজোয়া যুদ্ধ যান এবং দুটি মার্কিন-তৈরি এএন/টিপিকিউ-৩৭ এবং এএন/টিপিকিউ-৫০ কাউন্টার-ব্যাটারি রাডার,’ মুখপাত্র বলেছেন।

রাশিয়ান বাহিনী গত দিনে ডোনেটস্ক এলাকায় ৬০ টিরও বেশি ইউক্রেনীয় সেনা, দুটি সাঁজোয়া যান এবং দুটি হাউইৎজার কামান ধ্বংস করেছে, কোনাশেনকভ রিপোর্ট করেছেন। ‘গত ২৪ ঘন্টায়, ৬০জনেরও বেশি সৈনিক, দুটি সাঁজোয়া যুদ্ধ যান, তিনটি মোটর যান, দুটি হাউইটজার কামান এবং একটি মার্কিন-তৈরি এএন/টিপিকিউ-৫০ কাউন্টার ব্যাটারি রাডার ধ্বংস করা হয়েছে ডোনেৎস্ক এলাকায়,’ মুখপাত্র বলেছেন।

রাশিয়ান বাহিনী গত দিনে প্রায় ৩০ ইউক্রেনীয় সৈন্য এবং একটি গ্র্যাড রকেট সিস্টেমকে জাপোরোজিয়ে এলাকায় নির্ম‚ল করেছে, কোনাশেনকভ রিপোর্ট করেছেন। ‘জাপোরোজিয়ে এলাকায়, ৩০ জন ইউক্রেনীয় সেনাকর্মী, তিনটি মোটর গাড়ি এবং একটি গ্র্যাড মাল্টিপল রকেট লঞ্চার গত ২৪ ঘন্টা ধরে ইউক্রেনীয় সেনা ইউনিটগুলিতে পূর্ব সামরিক জেলার সৈন্যদের দ্বারা সম্মিলিত ফায়ারপাওয়ার দ্বারা ক্ষতির ফলস্বরূপ ধ্বংস হয়ে গেছে,’ মুখপাত্র বলেছেন। কোনাশেনকভ রিপোর্ট করেছেন যে, রাশিয়ান বাহিনী গত দিনে ডিনিপার এলাকায় তার ক্রুসহ মার্কিন তৈরি হিমারস মাল্টিপল লঞ্চ রকেট সিস্টেম ধ্বংস করেছে। এছাড়া, রাশিয়ান বিমান প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা গত দিনে ১৪টি হিমারস রকেট আটকে দিয়েছে।

সব মিলিয়ে রাশিয়ার সশস্ত্র বাহিনী বিশেষ সামরিক অভিযানের শুরু থেকে ৩৭৬টি ইউক্রেনীয় যুদ্ধবিমান, ২০৩টি হেলিকপ্টার, ২,৯৩৪টি মনুষ্যবিহীন আকাশযান, ৪০১টি সারফেস টু এয়ার মিসাইল সিস্টেম, ৭,৬০৭টি ট্যাংক এবং অন্যান্য সাঁজোয়া যুদ্ধ যান, ৯৮৭টি মাল্টিপল রকেট লঞ্চার, ৩,৮৯৩টি ফিল্ড আর্টিলারি ও মর্টার এবং ৮,১৫৩টি বিশেষ সামরিক মোটর গাড়ি ধ্বংস করেছে, কোনাশেনকভ রিপোর্ট করেছেন।

ইউক্রেনে ১৩৯টি লেপার্ড ট্যাঙ্ক পাঠাতে পারে জার্মানি : জার্মানির প্রতিরক্ষা সংস্থা রাইনমেটাল গতকাল বলেছে যে, তারা ইউক্রেনে ১৩৯টি লেপার্ড ট্যাঙ্ক পাঠাতে পারে। ‘আমাদের কাছে লেপার্ড ২এ৪ টাইপের ২২টি (যুদ্ধের) ট্যাঙ্ক আছে যেগুলোকে আমরা প্রস্তুত করতে পারি এবং ইউক্রেনে পাঠানোর ব্যবস্থা করতে পারি,’ কোম্পানির একজন কর্মকর্তা রিডাকসিওনস্ন্যাকজ্যাক ডয়েশ্চল্যান্ড-এর সাথে একটি সাক্ষাৎকারে বলেছেন।

তার মতে, এই মেশিনগুলো মেরামত করতে এক বছর সময় লাগবে, তাই যে কোনও সরবরাহ ২০২৩ সালের শেষের দিকে কিংবা ২০২৪ সালের শুরুর দিক থেকে হতে পারে। এবং আরও ২৯টি লেপার্ড ২এ৪ যুদ্ধ ট্যাঙ্ক রয়েছে যেগুলি এই এপ্রিল-মে মাসের প্রথম দিকে পাঠানোর জন্য প্রস্তুত হবে। ‘আমরা ৮৮টি লেপার্ড ১ (যুদ্ধ) ট্যাঙ্কও সরবরাহ করতে পারি,’ তিনি যোগ করেছেন।

ইউক্রেন সরাসরি জয়ের পথে নেই : দ্য ডেইলি টেলিগ্রাফের অনলাইন মন্তব্য বিভাগের প্রধান শেরেল জ্যাকবস সোমবার রাতে লিখেছেন, পশ্চিমারা ইউক্রেনকে সম্ভবত ‘একটি বিপর্যয়মূলক অচলাবস্থার’ দিকে নিয়ে যাচ্ছে। তিনি একটি বিকল্প পরিস্থিতি হিসাবে বসন্তে রাশিয়ানদের জন্য নিষ্পত্তিমূলক অগ্রগতি দেখেন। তার মতে, যদিও পশ্চিমা অভিজাতরা অনুমান করে যে, ইউক্রেনীয়দের জন্য একটি বিজয় ‘অবশ্যই অর্জিত হতে হবে’, বাস্তবতা হল যে, ইউক্রেন ক্রমবর্ধমানভাবে পিছনের দিকে সরে যাচ্ছে। রাশিয়ান অর্থনীতিকে দুর্বল করতে পশ্চিমা দেশগুলোর চেষ্টা সম্পূর্ণরূপে কাজ করেনি, তাই উভয় পক্ষই বছরের পর বছর ধরে লড়াই চালিয়ে যেতে পারে, জ্যাকবস যুক্তি দেন। ইতোমধ্যে ইউরোপীয় দেশগুলো ক্রমবর্ধমান অর্থনৈতিক ও সামাজিক চ্যালেঞ্জের মুখোমুখি হচ্ছে, তিনি যোগ করেন।

বেলারুশকে অ-আগ্রাসন চুক্তির প্রস্তাব দিয়েছে ইউক্রেন : বেলারুশের প্রেসিডেন্ট আলেকজান্ডার লুকাশেঙ্কো গতকাল বলেছেন, ইউক্রেন বেলারুশকে একটি অ-আগ্রাসন চুক্তিতে স্বাক্ষর করার প্রস্তাব দিচ্ছে, পাশপাশি তারা জঙ্গিদেরও প্রশিক্ষণ দিচ্ছে যা বেলারুশের জাতীয় নিরাপত্তার জন্য সম্ভাব্য হুমকি সৃষ্টি করে। ‘আমি জানি না কেন ইউক্রেনীয়দের এটা দরকার। একদিকে, তারা আমাদেরকে কোনো অবস্থাতেই ইউক্রেনের সাথে যুদ্ধ না করতে, আমাদের বাহিনীকে সেখানে না সরানোর জন্য বলে। তারা আমাদেরকে একটি অ-আগ্রাসন চুক্তি স্বাক্ষর করার প্রস্তাব দেয়। অন্যদিকে, তারা জঙ্গিদের প্রশিক্ষণ এবং অস্ত্র দেয়,’ লুকাশেঙ্কো প্রজাতন্ত্রের সামাজিক ও রাজনৈতিক পরিস্থিতি এবং অপরাধের বিষয়ে বৈঠকের সময় বলেছিলেন।

লুকাশেঙ্কো বিশ্বাস করেন যে, ‘পোল্যান্ড এবং লিথুয়ানিয়া, ইতিমধ্যে সম্পূর্ণ পাগল হয়ে গেছে।’ ‘তাদের এর জন্য (হুমকি তৈরি করা) কী দরকার? আমার কোন ধারণা নেই। তাই আমাদের দৃঢ়ভাবে প্রতিক্রিয়া জানাতে হবে,’ তিনি বলেন। বেলারুশিয়ান প্রেসিডেন্ট বলেন, ‘আমাদের পরিধিতে যথেষ্ট সমস্যা রয়েছে - আকাশপথ এবং স্থল উভয় ক্ষেত্রেই, (তথাকথিত) সবুজ সীমানা। সেখানে আমাদের যথেষ্ট সমস্যা রয়েছে। ঈশ্বর আমাদের সেগুলি ধরে রাখতে সাহায্য করুন,’ বেলারুশিয়ান প্রেসিডেন্ট বলেছেন। সূত্র : তাস, রয়টার্স, আল-জাজিরা।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: ইউক্রেন-রাশিয়া


আরও
আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ
গত​ ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ