Inqilab Logo

রোববার, ২৬ মে ২০২৪, ১২ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১, ১৭ জিলক্বদ ১৪৪৫ হিজরী

এই সময়ে শিশুর নিউমোনিয়া

| প্রকাশের সময় : ৩০ ডিসেম্বর, ২০২২, ১২:০০ এএম

প্রতিবছর পৃথিবীতে প্রায় ৮ লাখ শিশু মারা যায় নিউমোনিয়ায় যা হাম, মেলেরিয়া, এইডসের সমন্বিত মৃত্যুর চেয়েও বেশি। ৫ বছরের নিচের বাচ্চাদের মৃত্যুর অন্যতম কারণ এই নিউমোনিয়া। পৃথিবীতে নিউমোনিয়ায় মৃত্যুতে বাংলাদেশের অবস্থান পঞ্চম। প্রতি বছর এই সময়টাতে আমাদের দেশে নিউমোনিয়ার প্রকোপ বেড়ে যায়। বাংলাদেশে প্রতিবছর প্রায় ৬০ লাখ বাচ্চা আক্রান্ত হয় এবং ২৪,০০০ মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়ে। এই মৃত্যুর অন্যতম কারণ গণসচেতনতার অভাব। সঠিক এন্টিবায়োটিক প্রয়োগে ১০০ টাকারও কম ওষুধে এর চিকিৎসা সম্ভব।

শিশুর নিউমোনিয়া
কাশি, সর্দি, জ্বরের সাথে শ্বাসকষ্ট হলেই তাকে আমাদের স্বাস্থ্য কর্মীরা নিউমোনিয়া বলে চিকিৎসা দিবে, এটাই এখনও আমাদের স্বাস্থ্য ব্যবস্থাপনার নির্দেশনা। আমাদের মত গরিব দেশগুলোতে এই নিউমোনিয়ার প্রকোপ বেশি এবং এ থেকে মৃত্যুর কারণও বেশি হওয়ায় বিশ্বস্বাস্থ্য সংস্থা একেবারে প্রাথমিক পর্যায়ের স্বাস্থ্যকর্মীরাও যাতে চিকিৎসা শুরু করতে পারে, সেজন্য শ্বাসকষ্ট হলেই তাকে নিউমোনিয়ায় চিকিৎসা শুরু করার অনুমতি দিয়েছে। নিউমোনিয়া ছাড়াও ব্রংকিওলাইটিস, হাঁপানি এপিগ্লটাইটিস, ক্রুপ, শ্বাসনালীতে কিছু প্রবেশ করার কারণেও শিশুদের শ্বাসকষ্ট হতে পারে। তাই কাশি, জ্বরের সাথে শ্বাসের গতি বেড়ে যাওয়া পর্যন্ত স্বল্পমাত্রায় নিউমোনিয়ার চিকিৎসা স্বাস্থ্যকার্মীর দেয়া এন্টিবায়োটিক ওষুধের মাধ্যমে প্রায়ই ভালো হয়ে যায়। কিন্তু বুক ডেবে গেলে তাকে অবশ্যই নিকটস্থ অভিজ্ঞ ডাক্তারের কাছে বা স্বাস্থ্য কেন্দ্রে নিয়ে যেতে হবে। আবার শ্বাসের গতি বেড়ে যাওয়া, নিউমোনিয়া ২-৩ দিনের মধ্যে উন্নতি লক্ষ্য করা না গেলে বা খারাপের দিকে গেলে বা জ্বর বেড়ে গেলে, বাচ্চা খেতে না পারলে বা নেতিয়ে পড়লে অবশ্যই অভিজ্ঞ ডাক্তারের শরণাপন্ন হতে হবে।
নিউমোনিয়া কাদের হয়?

১. বাচ্চাদের এবং বড়দের সবারই নিউমোনিয়া হতে পারে। ২. তবে ৫ বছরের কম বয়েসী বাচ্চাদের মধ্যেই এর প্রকোপ বেশি। ৩. দেখা গেছে যেসব বাচ্চা অপুষ্ট হয়ে জন্ম নিয়েছে। ৪. ওজন কম। ৫. বুকের দুধ খায়নি। ৬. টিকা ঠিকমত নেয়নি। ৭. ঘন বসতিতে থাকে। ৮. স্যাঁতসেতে ঘরে বাস করে। ৯. যে ঘরে বড়রা ধূমপান করে তাদের মধ্যে এর প্রকোপ বেশি হয়। ১০. আবার কোন কারণে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা কমে গেলে যেমনÑ অপুষ্টি, হাম, নেফ্রটিক সিনড্রম, ক্যান্সার বা ক্যান্সার ওষুধ ও স্টেরয়েড জাতীয় ওষুধ ব্যবহারকারীদের মধ্যে নিউমোনিয়া হওয়ায় হার বেশি।

কোন টিকা নিলে নিউমোনিয়া থেকে রক্ষা পাওয়া যায়?
নিউমোকক্কাস, হেমোফাইলাস, স্টেকাইলোকক্কাস, ক্লেবসিয়েলা, টিবি ইত্যাদি জীবাণু দিয়ে এই রোগ হয়। টিবি এবং হেমোফাইলাসের টিকা সরকারিভাবে সারাদেশেই বিনামূল্যে বাচ্চাদের দেয়া হয়। আর যারা ঝুঁকিপুর্ণ তাদের নিউমোকক্কাস টিকার জন্যও উপদেশ দেয়া হয়। হাম-রুবেলার টিকাও এখন বিনামূল্যে দেয়া হচ্ছে। তাই এই রোগগুলোতে সংক্রমিত হওয়ার পরবর্তীতে হওয়া নিউমোনিয়ার প্রকোপও এখন কমেছে।

নিউমোনিয়া হলে কি হয়?
শ্বাসে টেনে নেয়া বাতাস থেকে প্রয়োজনীয় অক্সিজেন এবং শরীরের অপ্রয়োজনীয় কার্বন-ডাই-অক্সাইড বের করে দেয়াই হলো শ্বাস-প্রশ্বাসের প্রধান কাজ। নিউমোনিয়া হলে শ্বাসনালীর শেষ প্রান্তে যেখানে এই বাতাসের আদান-প্রদান হয় সেখানটা ক্ষতিগ্রস্ত হয়ে এটা বাধাগ্রস্ত হয়। ফলাফলÑ অক্সিজেন পাওয়া থেকে শরীর বঞ্চিত এবং বিষাক্ত কার্বন-ডাই-অক্সাইড শরীরে জমা হওয়া। যা দ্রুতই মস্তিষ্ক, হৃদপিণ্ড, কিডনি ইত্যাদিকে ক্ষতিগ্রস্ত করে বাচ্চাকে মৃত্যুর দিকে ঠেলে দেয়।

কখন বুঝবেন আপনার বাচ্চার নিউমোনিয়া হয়েছে?
জীবাণু দিয়ে শ্বাসনালী আক্রান্ত হলেই শরীরে প্রতিরোধ হিসাবে কাশি এবং জ্বর তৈরি করে। ভাইরাসের কারণে হলে সর্দি বা চোখ দিয়ে পানি পড়ার মতো উপসর্গও থাকতে পারে। এরপর অক্সিজেন এবং কার্বন-ডাই-অক্সাইডের এক্সচেঞ্জ বাড়াতে শরীর নিজ থেকেই শ্বাসের গতি বাড়িয়ে দেয়। এই শ্বাসের গতি ২ মাসের কমে ৬০ বা এরচেয়ে বেশি, ১ বছরের নিচে ৫০ বা তারচেয়ে বেশি এবং ৫ বছরের নিচে ৪০ বা তার চেয়ে বেশি হলে আমরা তাকে নিউমোনিয়ার কারণে হওয়া দ্রুত শ্বাস হিসেবে ধরে নেই। শ্বাস নিতে গিয়ে বুকের খাঁচা দেবে গেলে তাকে আমরা মারাত্মক নিউমোনিয়া বলি। তবে শ্বাসের গতি বেড়ে গেলেই আমরা নিউমোনিয়া হয়েছে বলে ধরে নিয়ে চিকিৎসা শুরু করতে বলি।

কখন বাচ্চাকে ডাক্তারের কাছে নিবেন?
১. কাশি, জ্বরের সাথে বাচ্চার শ্বাসকষ্ট শুরু হলেই তাকে নিটকস্থ স্বাস্থ্য কেন্দ্রে বা অভিজ্ঞ ডাক্তারের কাছে নিয়ে যাবেন।
২. তবে অপুষ্টিতে ভোগা রোগীদের কাশির সাথে জ্বর বা উল্টো শরীর ঠান্ডা হয়ে গেলেও ডাক্তারের কাছে নিয়ে যেতে হবে।

৩. আবার ২ মাসের কম বয়সের রোগীদের নেতিয়ে যাওয়া, খিঁচুনি হওয়া, অজ্ঞান হয়ে যাওয়া বা খেতে না পারার লক্ষণ থাকলেও ডাক্তারের নিকট নিয়ে যেতে হবে।

নিউমোনিয়া হলে কি পরীক্ষা করাবেন?
লক্ষণ শুনে, দেখে এবং রোগীর শরীর, বুক পরীক্ষা করে নিউমোনিয়া শনাক্ত করে চিকিৎসা শুরু করা হয়। তবে নিউমোনিয়ার ধরন জেনে চিকিৎসা দেয়ার জন্য অনেক সময়ই বুকের এক্সরে পরীক্ষা করা হয়। আবার রক্ত, কফ পরীক্ষা করেও জীবাণু নির্ণয় ও রোগের প্রকোপ বের করা হয়।

চিকিৎসা করবেন কিভাবে?
১) কম মারাত্মক নিউমোনিয়ার বাচ্চাকে খোলা বাতাসে আরামে শ্বাস নেয়ার ব্যবস্থা করতে হবে।
২) বাচ্চার খাবার এবং শরীরের পানির পরিমাণ ঠিক রাখতে হবে।
৩) জ্বরের জন্য প্যারাসিটামল জাতীয় ওষুধ দিতে হবে।
৪) আর অ্যামোক্সিসিলিন, কট্রিম অক্সাজল, সেফালোস্পোরিন জাতীয় এন্টিবায়োটিক ঠিক পরিমাণ মতো (ওজন দেখে) ৫-৭ দিন দিতে হবে।
৫) নাক বন্ধ থাকলে নরমাল স্যালাইন (লবণ-পানির মিশ্রন) দিয়ে ভিজিয়ে তা খুলে দিতে হবে। আবার আলতো করে টেনেও তা বের করে আনা যাবে।

৬) মারাত্মক নিউমোনিয়ায় রোগীকে হাসপাতালে ভর্তি করে চিকিৎসা দিতে হবে। প্রথমেই অক্সিজেন দিয়ে শ্বাসে সাহায্য করতে হবে।
৭) এরপর পেটে নল দিয়ে বা শিরার মাধ্যমে পুষ্টির ব্যবস্থা করে দিতে হবে, যতক্ষণ বাচ্চা সহজে মুখে খেতে না পারবে।
৮) এরপর প্রয়োজনীয় এন্টিবায়োটিকও শিরার মাধ্যমে দিতে হবে। তবে হাসপাতালে আসার আগে, স্বাস্থ্যকর্মীর কাছে গেলে মাংসের মধ্যে ১ ডোজ এন্টিবায়োটিক সে দিয়ে দিবে।

কাশির জন্য দুশ্চিন্তা নয়
এ সময়ে কাশিতে বাচ্চাকে বুকের দুধ, গরম পানি, তুলশি পাতার রস, লেবুর রস, চা, কফি, মধু বয়স অনুযায়ী দিতে হবে। তবে এই কাশি ১ থেকে ৩ সপ্তাহ পর্যন্ত সময়ে ধীরে ধীরে কমে যাবে। নতুন কোন এন্টিবায়োটিকের প্রয়োজন নেই।

তাই বলা যায়, নিউমোনিয়া প্রতিরোধ করতে এবং দ্রুত চিকিৎসা করতে হলে গণসচেতনতা বাড়াতে হবে। তবেই এই রোগ থেকে মৃত্যুহার কমানো সম্ভব।

ডা. জহুরুল হক সাগর
নবজাতক ও শিশু-কিশোর রোগ বিশেষজ্ঞ
রুপশী বাংলা হাসপাতাল
৮৩৩ শনির আখড়া, জিয়া সরনি, কদমতলী, ঢাকা।
ফোন ঃ ০১৭৮৭ ৭৪০ ৭৪০।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

আরও পড়ুন