Inqilab Logo

শুক্রবার , ২ জুন ২০২৩, ১৯ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯, ১২ যিলক্বদ ১৪৪৪ হিজরী

যুক্তরাষ্ট্রের কারণে পারমাণবিক ডিস্টোপিয়া হতে পারে: সাবেক রুশ প্রেসিডেন্ট

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ২৬ মার্চ, ২০২২, ১২:০৫ এএম

প্রেসিডেন্ট পুতিনের ঘনিষ্ঠ মিত্রদের একজন বুধবার মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রকে সতর্ক করে দিয়েছিলেন যে, রাশিয়াকে ধ্বংস করার দীর্ঘমেয়াদী চক্রান্ত হিসাবে ওয়াশিংটন মস্কোকে চাপ দিলে বিশ্ব পারমাণবিক ডিস্টোপিয়ার দিকে চলে যেতে পারে।

দিমিত্রি মেদভেদেভ, যিনি ২০০৮ থেকে ২০১২ সাল পর্যন্ত রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ছিলেন এবং এখন রাশিয়ার নিরাপত্তা পরিষদের ডেপুটি সেক্রেটারি, বলেছেন যে, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ১৯৯১ সালে সোভিয়েত ইউনিয়নের পতনের পর থেকে ‘আদিম খেলার’ অংশ হিসাবে রাশিয়াকে ধ্বংস করার ষড়যন্ত্র করেছিল। ‘তাদের কাছে এর মানে রাশিয়াকে অবশ্যই অপমানিত, সীমিত, ছিন্নভিন্ন, বিভক্ত এবং ধ্বংস করতে হবে,’ ৫৬ বছর বয়সী মেদভেদেভ ৫৫০-শব্দের বিবৃতিতে বলেছেন।
মেদভেদেভের দৃষ্টিভঙ্গি, যাকে একসময় পুতিনের বৃত্তের অন্যতম সদস্য হিসাবে বিবেচনা করা হত, ক্রেমলিনের মধ্যে চিন্তাভাবনার একটি অন্তর্দৃষ্টি দেয় কারণ মস্কো ১৯৬২ সালের কিউবান ক্ষেপণাস্ত্র সঙ্কটের পর পশ্চিমের সাথে সবচেয়ে বড় সংঘর্ষের মুখোমুখি হয়েছে। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র বারবার বলেছে যে, তারা রাশিয়ার পতন চায় না এবং একটি সমৃদ্ধ, স্থিতিশীল এবং উন্মুক্ত রাশিয়া দ্বারা তার নিজস্ব স্বার্থ সর্বোত্তম পরিবেশিত হয়। এ বিষয়ে মার্কিন স্টেট ডিপার্টমেন্ট অবিলম্বে স্বাভাবিক ব্যবসায়িক সময়ের বাইরে মন্তব্যের অনুরোধে সাড়া দেয়নি।
মেদভেদেভ বলেছিলেন যে, ক্রেমলিন কখনই রাশিয়ার ধ্বংসের অনুমতি দেবে না, তবে ওয়াশিংটনকে সতর্ক করে দিয়েছিল যে, যদি এটি তার ধ্বংসাত্মক লক্ষ্য হিসাবে চিহ্নিত করে তা অর্জন করে তবে বিশ্ব একটি ভয়াবহ সঙ্কটের মুখোমুখি হতে পারে যা একটি ‘বড় পারমাণবিক বিস্ফোরণে’ শেষ হবে। তিনি পুতিন-পরবর্তী বিশ্বের একটি ছবিও এঁকেছেন যা রাশিয়ার পতনের পর হবে, যার কাছে অন্য যেকোনো দেশের চেয়ে বেশি পারমাণবিক ওয়ারহেড রয়েছে।
মেদভেদেভ বলেন, আয়তনের ভিত্তিতে বিশ্বের বৃহত্তম দেশটির ধ্বংস মস্কোতে একটি অস্থিতিশীল নেতৃত্বের দিকে নিয়ে যেতে পারে, যেখানে ‘সর্বোচ্চ সংখ্যক পারমাণবিক অস্ত্র মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র এবং ইউরোপকে লক্ষ্য করে’ মোতায়েন রয়েছে। রাশিয়ার পতন, তিনি বলেছিলেন, ইউরেশীয় ভ‚খÐ জুড়ে পাঁচ বা ছয়টি পারমাণবিক সশস্ত্র রাষ্ট্রের নেতৃত্ব দেবে যা ‘পাগল, ধর্মান্ধ এবং কট্টরদের’ দ্বারা পরিচালিত হবে। সূত্র : রয়টার্স।

 



 

Show all comments
  • M M Aminur Rahman ২৫ মার্চ, ২০২২, ৭:৪৫ এএম says : 0
    এভাবেই এক দেশ ধংস হবে আরেক দেশের উত্থান হবে। ক্ষমতা এবং আধিপত্যে কেউই চিরস্থায়ী নয়।
    Total Reply(0) Reply
  • Julfiquar Imam ২৫ মার্চ, ২০২২, ৭:৪৭ এএম says : 0
    অনেক সত্য কথা আছে,, এখানে ইতিহাস আমরা জানি !! এ কারণে অনেকের চোখে আমেরিকা সবচেয়ে বড় যুদ্ধ-অপরাধী !! আজকে আমেরিকাকে যদি কেউ দমাতে পারে তা-হলো রাশিয়া !! আর এখন সেটাই হচ্ছে হওয়া উচিত.
    Total Reply(0) Reply
  • আকাশ নীল শঙ্খচিল ২৫ মার্চ, ২০২২, ৭:৪৮ এএম says : 0
    পারমাণবিক যুদ্ধ হলে পুরো পৃথিবী তেজস্ক্রিয়তার ফলে ধ্বংস হয়ে যেতে পারে। জীব-বৈচিত্রের অর্ধেক বিলুপ্ত হবে। মানব জাতি চরম সংকটের মুখোমুখি হবে। সুতরাং এই যুদ্ধ কারো কাম্য নয়।
    Total Reply(0) Reply
  • মোহাম্মদ দলিলুর রহমান ২৫ মার্চ, ২০২২, ২:০১ এএম says : 0
    জলদি করে পারমাণবিক বোমা মারেন,যত দেরি হবে,বিপদ হবে সাথে উঃকোরিয়া কে নিবেন ইরান কে নিবেন চীন কে নিবেন এবং পাকিস্তান,আর পয়োজন হবে না,তবে ইজরাইল আমেরিকার জারজ ভাই তাকে বলবেন না।
    Total Reply(0) Reply

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ
গত​ ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ