Inqilab Logo

বুধবার, ২৯ মে ২০২৪, ১৫ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১, ২০ জিলক্বদ ১৪৪৫ হিজরী

৩৪ বছর পর আলোচিত লকারবি বিমান হামলার অভিযুক্ত গ্রেফতার

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ১২ ডিসেম্বর, ২০২২, ১:১০ পিএম

১৯৮৮ সালে স্কটল্যান্ডের লকারবির ওপর যুক্তরাষ্ট্রের একটি যাত্রীবাহী জেট বিমানে বোমা বিস্ফোরণের ঘটনার সন্দেহভাজন এক লিবীয় গুপ্তচরকে গ্রেপ্তার করেছে এফবিআই। গতকাল রোববার এ তথ্য জানিয়েছেন এফবিআই কর্মকর্তারা। তারা জানান, উল্লিখিত ব্যক্তির বিরুদ্ধে বোমাটি তৈরির অভিযোগ রয়েছে এবং তাকে বিচারের মুখোমুখি করার জন্য যুক্তরাষ্ট্রে আনা হচ্ছে।

আবু আগেলা মাস’উদ খেইর আল-মারিমিকে গ্রেপ্তারের জন্য বিচার বিভাগ এক দশক ধরে প্রচেষ্টা চালিয়েছে। দুই বছর আগে তৎকালীন অ্যাটর্নি জেনারেল উইলিয়াম বার মাস’উদের বিরুদ্ধে ফৌজদারি অভিযোগের ঘোষণা দেন। তার বিরুদ্ধে একটি বোমা বানানো ও বিস্ফোরণ ঘটানোর মাধ্যমে প্যান অ্যামের ফ্লাইট ১০৩ ভূপাতিত করে উড়োজাহাজের ২৫৯ যাত্রীকে হত্যার অভিযোগ আনা হয়। নিহতদের ১৯০ জনই ছিলেন যুক্তরাষ্ট্রের নাগরিক। এ সময় নিচে থাকা অপর ১১ ব্যক্তিও এতে নিহত হন।
২০১২ সালে লিবিয়ার আইন প্রয়োগকারী সংস্থার এক কর্মকর্তাকে মাস’উদ জানান, তিনিই এই হামলার নেপথ্যে ছিলেন। আরও ৫ বছর পর যুক্তরাষ্ট্রের তদন্তকারীরা তার এই স্বীকারোক্তির ব্যাপারে জানতে পারেন। তখন তারা এই লিবীয় কর্মকর্তার সাক্ষাৎকার নেন এবং পরে মাস’উদের বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন করা হয়। তবে যুদ্ধবিধ্বস্ত লিবিয়ার কারাগারে দেওয়া তার এই স্বীকারোক্তি যুক্তরাষ্ট্রের আদালতে গ্রহণযোগ্য হবে কিনা, তা নিশ্চিত নয়।
মুয়াম্মার গাদ্দাফি সরকারের পতন হওয়ার পর যুক্তরাষ্ট্রের কর্মকর্তা লিবিয়ার কর্মকর্তাদের সাক্ষাৎকার নেন। এই মামলার সঙ্গে নথিভুক্ত করা এফবিআইয়ের হলফনামা অনুযায়ী লিবিয়ার কর্মকর্তারা জানান, মাস’উদ বোমা তৈরির বিষয়টি স্বীকার করেছেন এবং হামলা চালানোর জন্য আরও দুই ব্যক্তির সহায়তা নেওয়ার কথাও জানান তিনি। মাস’উদকে যুক্তরাষ্ট্রের ওয়াশিংটনের একটি আদালতের সামনে প্রথমবারের মতো হাজির করা হবে।
উল্লেখ্য, ১৯৮৮ সালের ২১ ডিসেম্বর প্যান এএম-একশো তিন ফ্লাইটে বিস্ফোরণ ঘটানো হয়। বিমানটি একটি ঘনবসতিপূর্ণ এলাকায় বিধ্বস্ত হয়। ঐ হামলায় প্রাণ যায় ২৭০ জনের। বলা হয়, ব্রিটিশ ভূখণ্ডে এটাই সবচেয়ে ভয়াবহ বিমান হামলার ঘটনা।

 



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: স্কটল্যান্ড


আরও
আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ
গত​ ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ