Inqilab Logo

রোববার, ২৬ মে ২০২৪, ১২ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১, ১৭ জিলক্বদ ১৪৪৫ হিজরী

কারাগারে হামলার নিরপেক্ষ তদন্তের আহ্বান রাশিয়ার

দোষারোপ করার ইউক্রেনীয় প্রচেষ্টাকে নিন্দা কিয়েভকে সঙ্কটের কূটনৈতিক সমাধানে চাপ দিতে পারে যুক্তরাষ্ট্র :: ইউক্রেন ছাড়তে প্রস্তুত শস্যবোঝাই ১৬ জাহাজ :: তুর্কি ট্রেজারি বন্ড কেনার পর

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ১ আগস্ট, ২০২২, ১২:০১ এএম

ইউক্রেন যুদ্ধের মধ্যে ডোনেৎস্কের কারাগারে বোমা হামলার ঘটনায় নিরপেক্ষ তদন্ত চেয়েছে রাশিয়া। গত শুক্রবারে হওয়া ওই হামলা কারা করেছে খতিয়ে দেখতে জাতিসংঘ এবং রেডক্রসের স্বাধীন তদন্ত বিশেষজ্ঞদের আহ্বানও জানিয়েছে দেশটি।

গতকাল রাশিয়ার প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের বরাত দিয়ে রুশ সংবাদমাধ্যম আরটি এ তথ্য জানায়। শুক্রবার ডোনেৎস্কের কারাগারে বোমা হামলায় অন্তত ৫০ ইউক্রেনীয় বন্দি নিহত এবং আরও ৭৩ জন আহত হয়েছে। ডোনেৎস্কের দক্ষিণে ওলেনিভকার বসতি এলাকায় ওই কারাগারটি অবস্থিত। সেখানে কয়েক শত ইউক্রেনের কারাবন্দিকে আটক করে রাখা হয়েছে। তারা মূলত নব্য-নাৎসি ‘আজভ’ বাহিনীর সদস্য। গত মে মাসে তারা মারিউপোলে রুশ বাহিনীর কাছে আত্মসমর্পণ করে।

রাশিয়া এক বিবৃতিতে জানিয়েছিল, ওই কারাগারে যুক্তরাষ্ট্রের তৈরি মাল্টিপল রকেট লঞ্চ সিস্টেম (হিমারস) দিয়ে হামলা চালানো হয়। বিবৃতিতে আরও বলা হয়, ইউক্রেনের নাগরিকদের বিরুদ্ধে সব রাজনৈতিক, অপরাধ এবং নৈতিক দায়িত্বের জন্য জেলেনস্কি, তার শাসনব্যবস্থা এবং ওয়াশিংটন, যারা জেলেনস্কিকে সমর্থন দিচ্ছে তারা দায়ী।

বিপরীতে গত শুক্রবার ইউক্রেনের প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় এক বিবৃতিতে জানায়, রুশ বাহিনী শহরটিতে ক্ষেপণাস্ত্র হামলা চালিয়েছে। ইউক্রেনের বন্দিদের ওপর নির্যাতনের চিহ্ন লুকানোর পাশাপাশি কিয়েভের ওপর দোষ চাপাতে কারাগারটি ধ্বংস করেছে মস্কো। তবে ওই কারাগারে হামলার জন্য মস্কোকে সরাসরি দায়ী করেনি যুক্তরাষ্ট্র। দেশটির জাতীয় নিরাপত্তা কাউন্সিলের মুখপাত্র জন কিরবি সাংবাদিকদের বলেন, ওই কারাগারে হামলার বিষয়ে যথেষ্ট তথ্য না থাকায় তাদের পক্ষে সুনির্দিষ্টভাবে কাউকে দায়ী করা সম্ভব নয়।

এদিকে, জাতিসংঘে রাশিয়ার প্রথম উপ-স্থায়ী প্রতিনিধি দিমিত্রি পলিয়ানস্কি টুইটারে লিখেছেন, ইউক্রেন ডোনেটস্ক পিপলস রিপাবলিকের একটি প্রাক-বিচার আটক কেন্দ্রে হামলার জন্য মস্কোকে দোষারোপ করার নিরর্থক প্রচেষ্টা করছে। ‘নাৎসি ইউক্রেন এ অপরাধের জন্য আমাদের উপর দোষ চাপানোর নিরর্থক প্রচেষ্টা করেছে। তারা বুদ্ধিমান হলে মার্কিন সরবরাহকৃত হিমারস রকেট লঞ্চার ছাড়া অন্য কিছু দিয়ে এ হামলা করতে পারত,’ টুইটে লেখা হয়েছে। এর আগে, কূটনীতিক জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদের বৈঠকে বলেছিলেন যে, এ হামলা কেবলমাত্র আরও ইউক্রেনীয় সেনা সদস্যদের আত্মসমর্পণ করতে উৎসাহিত করবে।

কিয়েভকে সঙ্কটের কূটনৈতিক সমাধানে চাপ দিতে পারে যুক্তরাষ্ট্র : মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র, তার মিত্ররা এবং অংশীদাররা ইউক্রেনকে সংঘাতের একটি কূটনৈতিক সমাধান খুঁজতে রাজি করাতে পারে। ন্যাশনাল ইন্টারেস্টে লেখা একটি নিবন্ধে এ তথ্য জানিয়েছেন স্টিভেন সাইমন এবং জনাতন স্টিভেনসন, যারা এর আগে মার্কিন জাতীয় নিরাপত্তা পরিষদের কর্মীদের দায়িত্ব পালন করেছিলেন।

বিশেষজ্ঞদের মতে, ‘অস্ত্র স্থানান্তর (কিয়েভে) মঞ্চ স্থাপনের চাবিকাঠি। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র এবং ন্যাটোর উচিত ইউক্রেনের কাছে এটা স্পষ্ট করা যে, যদি একটি কূটনৈতিক সুযোগ থাকে তবে তারা আশা করে যে কিয়েভ এটি গ্রহণ করবে এবং যদি তা না হয় তবে সাহায্য বন্ধ করতে পারে,’ সাইমন এবং স্টিভেনসন জোর দিয়েছিলেন। ‘রাশিয়ার কাছে, বার্তাটি হবে এমন একটি সুযোগ গ্রহণ করা, নয়তো ইউক্রেনীয়রা অনেক বেশি অস্ত্র পাবে,’ তারা যোগ করেছে। নিবন্ধে বলা হয়েছে, ‘মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র, তার ইউরোপীয় অংশীদারদের সাথে, কূটনৈতিক সুযোগ তৈরির জন্য যা করতে পারে তা করা উচিত। যুক্তরাষ্ট্রের কাছে এটি ঘটানোর জন্য সরঞ্জাম এবং অভিজ্ঞতা রয়েছে,’ তারা যোগ করেছে। তাদের দৃষ্টিতে, ‘পশ্চিমী কূটনৈতিক উদ্যোক্তারা পারস্পরিকভাবে নির্ধারিত ডিমিলিটারাইজড জোনের মধ্যে ইউক্রেনীয় এবং রাশিয়ান বাহিনীকে অস্ত্র সীমিত করার প্রস্তাব দিতে পারে।’

ইউক্রেন ছাড়তে প্রস্তুত শস্যবোঝাই ১৬ জাহাজ : খাদ্যশস্য নিয়ে ইউক্রেনের গুরুত্বপূর্ণ ওডেসা বন্দর ছাড়ার জন্য প্রস্তুতি নিয়েছে ১৬টি জাহাজ। যেকোনো সময় এ জাহাজগুলো বন্দর ত্যাগ করতে পারে বলে ইউক্রেনের প্রেসিডেন্ট জেলেনস্কির অফিস জানিয়েছে। এসব খাদ্যশস্য আফ্রিকা, মধ্যপ্রাচ্য এবং বিশ্বের বিভিন্ন দেশে পাঠানো হবে। সংবাদ মাধ্যমের প্রতিবেদনে বলা হয়, আড়াই কোটি টন শস্য নিয়ে আফ্রিকা, মধ্যপ্রাচ্যসহ অন্যান্য দেশের উদ্দেশে জাহাজগুলো ওডেসা বন্দর ছাড়বে শিগগিরই। জুলাই মাসের ২২ তারিখ জাতিসংঘের হস্তক্ষেপে মস্কো ও কিয়েভের মধ্যে শস্য রফতানি চুক্তি সই হয়। এর আওতায় খাদ্যশস্য রফতানির কাজও শুরু হয়। যদিও দুবার ওডেসা বন্দরে ক্ষেপণাস্ত্র হামলার ঘটনা ঘটেছে। এ জন্য ইউক্রেন রাশিয়াকে দায়ী করেছে। তবে রাশিয়া বলেছে, তারা সামরিক স্থাপনায় হামলা চালিয়েছে। এরপরও ইউক্রেন জাহাজে খাদ্যশস্য তোলার কার্যক্রম অব্যাহত রাখে।
তুর্কি ট্রেজারি বন্ড কেনার পরিকল্পনা করছে রাশিয়া : রাশিয়ার একটি রাষ্ট্রীয় মালিকানাধীন কোম্পানি এই সপ্তাহে তুরস্কের আক্কুয়ু পারমাণবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্রের নির্মাণ ও উন্নয়নে অর্থায়নের জন্য ৬১০ কোটি ডলারের ঋণ চুক্তি চেয়েছে, যার মধ্যে কিছু অর্থ তুরস্কের ট্রেজারি এবং অর্থ মন্ত্রণালয়ে জমা দেয়ার পরিকল্পনা রয়েছে, সরকারী নথি অনুসারে।

সোমবার একটি পাবলিক ঘোষণায়, তুরস্কে তার সহযোগী প্রতিষ্ঠান আক্কুয় নিউক্লিয়ার জেএসসিকে ৬১০ কোটি ডলারের ক্রেডিট লাইন প্রদানের জন্য রাশিয়ার রোসাটম কর্প সম্ভাব্য ঋণদাতাদের কাছ থেকে দর সংগ্রহ করেছে। অতিরিক্ত তহবিলের বিকল্প ২৮০ কোটি ডলারের সাথে প্রাথমিকভাবে এর ক্রেডিট হবে ৩৩০ কোটি ডলার।
সরকারী নথিগুলি থেকে বোঝা যায় যে এই অর্থ চারটি প্রকল্পের জন্য ব্যবহার করা হবে, যার মধ্যে রয়েছে সরঞ্জাম ক্রয়, নির্মাণ ও ইনস্টলেশন কাজের জন্য অর্থ প্রদান, এবং ভিভিইআর-১২০০ চুল্লি সহ চারটি পাওয়ার ইউনিট ও পারমাণবিক প্ল্যান্ট পরিচালনা। এছাড়াও এ টাকা কাজাখস্তানে ইউরেনিয়াম ডিপোজিট অধিগ্রহণ ও উন্নয়নের জন্য এবং বিদেশে লিথিয়াম সম্পদ অর্জনের জন্য ব্যবহার করা হবে।

সরকারী বিজ্ঞপ্তি এবং ঋণের জন্য স্মারকলিপিতে বলা হয়েছে যে ক্রেডিট লাইনের ‘উদ্দেশ্যযুক্ত ব্যবহার’গুলির মধ্যে একটি হবে ‘আমানতে অস্থায়ী স্থাপন, তুরস্ক প্রজাতন্ত্রের ট্রেজারি এবং অর্থ মন্ত্রণালয়ের ডলার বন্ড ক্রয়’। তবে এর কোন পরিমাণ স্পষ্ট করা হয়নি। কর্মকর্তারা পরামর্শ দিয়েছেন যে, এ পদক্ষেপটি রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট পুতিনের একটি শুভেচ্ছার ইঙ্গিত ছিল যারা এই মাসে আঙ্কারার মধ্যস্থতায় ইউক্রেন শস্য চুক্তির জন্য তুরস্কর দ্বারা উপকৃত হয়েছে।

বিলাওয়ালের সাথে দেখা করলেও সফরের আমন্ত্রণ ল্যাভরভের : শুক্রবার তাসখন্দে রাশিয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রী সের্গেই ল্যাভরভ তার পাকিস্তানি সমকক্ষ বিলাওয়াল ভুট্টো জারদারির সাথে দেখা না করলেও তাকে মস্কো সফরের আমন্ত্রণ জানিয়েছেন। এমন এক সময়ে এ আমন্ত্রণ জানানো হয়েছে যখন ইসলামাবাদ পশ্চিম ও রাশিয়ার মধ্যে তার সম্পর্কের মধ্যে সূক্ষ্ম ভারসাম্য বজায় রাখার চেষ্টা করছে। একটি কূটনৈতিক সূত্র শনিবার এক্সপ্রেস ট্রিবিউনকে জানিয়েছে, শুক্রবার তাসখন্দে সাংহাই কোণ্ডঅপারেশন অর্গানাইজেশনের (এসসিও) পররাষ্ট্রমন্ত্রীদের কাউন্সিলের বৈঠকের সময় বিলাওয়ালের সাথে তার সংক্ষিপ্ত অনানুষ্ঠানিক আলাপচারিতার সময় ল্যাভরভ এ আমন্ত্রণটি করেছিলেন। দুই পররাষ্ট্রমন্ত্রীর মধ্যে একটি দ্বিপাক্ষিক বৈঠক নির্ধারিত ছিল কিন্তু তাসখন্দে ল্যাভরভের দেরিতে আগমনের কারণে বৈঠকটি বাতিল হয়ে যায়।

আরও দুটি মার্কিন এম৭৭৭ হাউইটজার ধ্বংস করেছে রুশ সেনা : রাশিয়ার সশস্ত্র বাহিনী স্টেপনোগর্স্ক, জাপোরোজিয়ে অঞ্চলের কাছে দুটি মার্কিন এম৭৭৭ হাউইটজার ধ্বংস করেছে, রাশিয়ার প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের অফিসিয়াল প্রতিনিধি লেফটেন্যান্ট-জেনারেল ইগর কোনাশেনকভ শনিবার বলেছেন। ‘দুটি আমেরিকান এম৭৭৭ হাউইটজার স্টেপনোগর্স্ক, জাপোরোজিয়ে অঞ্চলে ধ্বংস করা হয়েছে। এছাড়া কুর্দিউমোভকার বসতির চারপাশে উরাগান মাল্টিপল লঞ্চ রকেট সিস্টেমের একটি ব্যাটারি এবং গিয়াটসিন্ট-বি হাউইটজারের দুটি আর্টিলারি ব্যাটারি ধ্বংস করা হয়েছে,’ তিনি বলেন। কোনাশেনকভের মতে, রাশিয়ান সশস্ত্র বাহিনী মাল্টিপল লঞ্চ রকেট সিস্টেম গ্র্যাডের ছয়টি প্লাটুন, স্ব-চালিত আর্টিলারি সিস্টেম গোভোজডিকার দুটি ব্যাটারি এবং ডি-২০ এবং ডি-৩০ বন্দুকের সাতটি আর্টিলারি প্লাটুনকে দমন করেছে।

ন্যাটোকে প্রধান নিরাপত্তা হুমকি হিসেবে চিহ্নিত করেছে রাশিয়া : বিশ্বে আধিপত্য বিস্তারে যুক্তরাষ্ট্রের প্রচেষ্টা এবং ন্যাটোর ক্রমবর্ধমান কার্যকলাপ রাশিয়ার জন্য প্রধান নিরাপত্তা হুমকি। গতকাল রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট পুতিন কর্তৃক অনুমোদিত নতুন মতবাদে এ কথা বলা হয়েছে। নতুন নথিটি রাশিয়ান সরকারের আইনি তথ্য ওয়েব পোর্টালে পোস্ট করা হয়েছে। ‘বিশ্ব মহাসাগরের সাথে সম্পর্কিত রাশিয়ান ফেডারেশনের জাতীয় নিরাপত্তা এবং টেকসই উন্নয়নের জন্য প্রধান চ্যালেঞ্জ এবং হুমকিগুলো হল: বিশ্ব মহাসাগরে আধিপত্য বিস্তারের দিকে মার্কিন কৌশলগত পথ এবং আন্তর্জাতিক প্রক্রিয়াগুলিতে এর বৈশ্বিক প্রভাব,’ নথিটি বলে।

নতুন মতবাদটি রাশিয়ার সীমান্তে ন্যাটো সামরিক অবকাঠামোর সম্প্রসারণ এবং রাশিয়ান ভূখণ্ড সংলগ্ন সমুদ্রে সামরিক ব্লকের মহড়ার ক্রমবর্ধমান সংখ্যাকে প্রধান নিরাপত্তা হুমকি হিসেবে চিহ্নিত করে। নতুন মতবাদ বিশ্ব মহাসাগরের সম্পদ এবং অত্যাবশ্যক গুরুত্বপূর্ণ সমুদ্র পরিবহন লেনগুলিতে রাশিয়ার অ্যাক্সেস সীমিত করার জন্য মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র এবং তার মিত্রদের প্রচেষ্টা এবং মার্কিন নৌবাহিনীর অপ্রতিরোধ্য আধিপত্য অর্জনের আকাঙ্খাকে নির্দেশ করে। রাশিয়ার নতুন মেরিটাইম ডকট্রিন আর্কটিকের কার্যক্রম বাড়ানোর শর্ত দিয়েছে, নথিটি পরামর্শ দেয়। নতুন মতবাদটি ‘স্পিটসবার্গেন, ফ্রাঞ্জ জোসেফ ল্যান্ড, নোভায়া জেমলিয়া দ্বীপপুঞ্জ এবং রেঞ্জেল দ্বীপে সামুদ্রিক ক্রিয়াকলাপের বৈচিত্র্যকরণ এবং ধাপ বাড়ানোর পরিকল্পনা করে,’ নথিতে বলা হয়েছে। সূত্র : ট্রিবিউন, মিডলইস্টআই, স্কাইনিউজ, আল-জাজিরা, তাস।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ
গত​ ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ