Inqilab Logo

রোববার ,১১ জুন ২০২৩, ২৮ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯, ২১ যিলক্বদ ১৪৪৪ হিজরী

মুক্তির রজনী শবেবরাত

মাওলানা এসএম আনওয়ারুল করীম | প্রকাশের সময় : ২৫ ফেব্রুয়ারি, ২০২৩, ১২:০০ এএম

শবেবরাত অর্থ মুক্তির রজনী। আরবি শাবান মাসের মধ্য রজনীকে শবেবরাত বলা হয়। হাদিসের পরিভাষায় এ রাতকে বলা হয় ‘লাইলাতুন নিসফি মিন শাবান।’ এ রাতে ইবাদত-বন্দেগি করা নির্ভরযোগ্য হাদিস দ্বারা প্রমাণিত। তাই সাহাবি-তাবেয়ীনের যুগ থেকে অদ্যাবধি এ রাতে বিশেষভাবে নফল ইবাদত ধারাবাহিকতার সাথে চলে আসছে। অনেকে বলে থাকে যে, শবেবরাতের কোনো শরয়ি কোনো ভিত্তি নেই। এমনও বলা হচ্ছে যে, এ রাতে ইবাদত করা বিদয়াত। তাদের দাবিমতে, শবেবরাত সহিহ কোনো হাদিস দ্বারা প্রমাণিত নয়। মূলত এমন ধারণা ইসলামের সুপ্রমাণিত বিষয়গুলোকেই জনসাধারণের মাঝে প্রশ্নবিদ্ধ করে তুলছে।
মূলত শবেবরাত সহিহ হাদিস দ্বারা প্রমাণিত। আর শবেবরাতকে বিদয়াত ধারণা করাটা হাদিস সম্পর্কে অজ্ঞতারই পরিচায়ক। এক্ষেত্রে একটি বিষয় মনে রাখতে হবে যে, জেনেশুনে নবিজি (সা.)-এর প্রমাণিত কোনো ইবাদতকে বিদয়াত বা অপ্রমাণিত দাবি করাটা প্রকারান্তরে রাসুল (সা.)-এর হাদিস অস্বীকারেরই নামান্তর। ইসলামি শরিয়তের দৃষ্টিতে এমন ব্যক্তি মারাত্মক অপরাধে অপরাধী। নি¤েœ শবেবরাত সম্পর্কে কয়েকটি সহিহ হাদিস উল্লেখ করা হলোÑ
হযরত আলী বিন আবু তালিব (রা.) থেকে বর্ণিত। রাসুল (সা.) ইরশাদ করেছেন, যখন শাবান মাসের অর্ধেকের রজনী আসে [শবে বরাত] তখন তোমরা রাতে নামাজ পড়, আর দিনের বেলা রোজা রাখ। নিশ্চয় আল্লাহ এ রাতে সূর্য ডোবার সাথে সাথে পৃথিবীর আসমানে এসে বলেন, কোনো গোনাহ ক্ষমাপ্রার্থী আছ কি আমার কাছে? আমি তাকে ক্ষমা করে দিব। কোনো রিজিকপ্রার্থী আছে কি? আমি তাকে রিজিক দিব। কোনো বিপদগ্রস্ত মুক্তি পেতে চায় কি? আমি তাকে বিপদমুক্ত করে দিব। আছে কি এমন, আছে কি তেমন? এমন বলতে থাকেন ফজর পর্যন্ত। [সুনানু ইবনে মাজাহ, হাদিস নং ১৩৮৮; বায়হাকী শুয়াবুল ঈমান, হাদিস নং ৩৮২২]
আম্মাজান হযরত আয়েশা (রা.) বলেন, এক রাতে রাসুল (সা.)-কে না পেয়ে খুঁজতে বের হলাম। খুঁজতে খুঁজতে জান্নাতুল বাকীতে (মদিনার কবরস্থান) গিয়ে আমি তাঁকে দেখতে পাই। তিনি বললেন, কী ব্যাপার আয়েশা! তুমি যে তালাশে বের হলে? তোমার কি মনে হয় আল্লাহ এবং তাঁর রাসুল তোমার ওপর কোনো অবিচার করবেন? জবাবে হযরত আয়েশা (রা.) বললেন, আমার ধারণা হয়েছিল আপনি অন্য কোনো বিবির ঘরে গিয়েছেন। রাসুল (সা.) তখন বললেন, যখন শাবান মাসের পনেরোতম রাত আসে অর্থাৎ যখন শবে বরাত হয়, তখন আল্লাহ তায়ালা এ রাতে প্রথম আসমানে নেমে আসেন। তারপর বনু কালব গোত্রের বকরির পশমের চেয়ে বেশি সংখ্যক বান্দাদেরকে ক্ষমা করে দেন। [সুনানুত তিরমিজি, হাদিস নং ৭৩৯; মুসনাদে আহমাদ, হাদিস নং ২৬০২৮; মুসনাদে আব্দ বিন হুমাইদ, হাদিস নং ১৫০৯]
হযরত মুয়াজ বিন জাবাল (রা.) থেকে বর্ণিত। রাসুল (সা.) ইরশাদ করেছেন, অর্ধ শাবানের রাতে (শবে বরাতে) আল্লাহ তায়ালা তাঁর সমস্ত মাখলুকের প্রতি মনোযোগ আরোপ করেন এবং মুশরিক ও বিদ্বেষ ভাবাপন্ন ব্যক্তি ছাড়া সকলকে ক্ষমা করে দেন। [সহিহ ইবনে হিব্বান, হাদিস নং ৫৬৬৫; মুসনাদুল বাজ্জার, হাদিস নং ২৭৫৪; মুসনাদে ইসহাক বিন রাহওয়াই, হাদিস নং ১৭০২; আল মুজামুল আওসাত, হাদিস নং ৬৭৭৬; আল মুজামুল কাবীর, হাদিস নং ২১৫; সুনানু ইবনে মাজাহ, হাদিস নং ১৩৯০; মুসনাদুশ শামীন, হাদিস নং ২০৩, মুসন্নাফে ইবনে আবি শায়বা, হাদিস নং ৩০৪৭৯; শুয়াবুল ঈমান, হাদিস নং ৬২০৪]
এবার ভিন্ন যুক্তিতে শবেবরাতের প্রমাণ উপস্থাপন করব। ইমাম শায়খ নাসির উদ্দিন আলবানী (র) তার সিলসিলাতুস সাহিহাহর ৩য় খ-ের ১৩৫নং পৃষ্ঠায় শবেবরাতের হাদিস প্রসঙ্গে বলেনÑ ‘এই হাদিসটি সহিহ।’ এটি সাহাবিগণের এক জামাত বর্ণনা করেছেন বিভিন্ন সূত্রে। যার একটি অন্যটিকে শক্তিশালী করেছে। তাদের মাঝে রয়েছেনÑ মুয়াজ বিন জাবাল (রা.), আবু সা’লাবা (রা.), আবদুল্লাহ বিন আমর (রা.), আবু মুসা আশয়ারী (রা.), আবু হোরায়রা (রা.), আবু বকর সিদ্দীক (রা.), আউফ বিন মালিক (রা.), আয়েশা (রা.) প্রমুখ সাহাবিগণ।
উপরে বর্ণিত সবক’টি বর্ণনাকারীর হাদিস শায়খ নাসির উদ্দিন আলবানী (র) তার কিতাবে আনার মাধ্যমে সুদীর্ঘ আলোচনার পর তিনি বলেন, “সারকথা হলো, নিশ্চয় এ হাদিসটি এ সকল সূত্র পরম্পরা দ্বারা সহিহ। এতে কোনো সন্দেহ নেই। তাছাড়া সহিহ হওয়া এর থেকে কম সংখ্যক বর্ণনার দ্বারাও প্রমাণিত হয়ে যায়। যতক্ষণ না মারাত্মক কোনো দুর্বলতামুক্ত থাকে। যেমন এই হাদিসটি হয়েছে।”আল্লাহ তায়ালা মানবজাতিকে পৃথিবীতে প্রেরণের শত বছর আগে তাদের রিজিক নির্ধারণ করে রাখলেও প্রতি বছর প্রতিটি মানুষের জীবনে যা’ ঘটবে, তা’ নির্ধারণ করা হয় পবিত্র শবেবরাতে। এ রাতে আল্লাহর রহমতের ফল্গুধারা উন্মুক্ত থাকে বান্দাহর জন্য। তাঁর অবারিত করুণা পুণ্যবান মানুষের ওপর সিঞ্চিত হয়। এমনকি কথিত আছে যে, এ রজনীতে আল্লাহর প্রেরিত ফেরেশতাগণ ইবাদতকারী বান্দাহর সাথে অতিপ্রাকৃতভাবে কোলাকুলি ও মোসাফাহা করেন। আরবি শাবান মাসের ১৪ তারিখ দিবাগত রাতকে ‘লাইলাতুল বারাআত’ কিংবা শবেবরাত বলে। ‘শব’ কিংবা ‘লাইলা’ শব্দের অর্থ রাত। আর ‘বারাআত’ অর্থ হচ্ছে মুক্তি। বাংলায় ‘বরাত’ শব্দটির অর্থ বিমুক্তি, সম্পর্কচ্ছিন্নতা, মুক্ত হওয়া, নির্দোষ প্রমাণিত হওয়া ইত্যাদি। ফার্সি ‘শবেবরাত’, আরবি ‘লাইলাতুল বারাআত’ বা ‘বিমুক্তির রজনী’ বলতে আরবি শাবান মাসের চতুর্দশীর রজনীকে বোঝানো হয়। সুতরাং মানুষ যদি এ রাতে নিজ কৃতকর্মের জন্য অনুতপ্ত হয়ে চক্ষু হতে অশ্রু প্রবাহিত করে, তাহলে মহান আল্লাহ রাব্বুল আলামিন তার পাপরাশি ক্ষমা করে দেবেন। কুরআন ও হাদিসের কোথাও “লাইলাতুল বারাআত” পরিভাষাটি ব্যবহার করা হয়নি। সাহাবি-তাবেয়ীগণের যুগেও এ পরিভাষাটির ব্যবহার সম্পর্কে প্রমাণ মিলেনি; বরং এ রাতকে হাদিসে “লাইলাতুন নিসফি মিন শাবান” বা “মধ্য শাবানের রজনী” বলা হয়েছে। সাহাবি-তাবিয়ীগণের যুগের অনেক পরে এ রাতকে “লাইলাতুল বারাআত” বা “বিমুক্তির রজনী” বলে আখ্যায়িত করার প্রচলন শুরু হয়। মুহাদ্দিস ও ঐতিহাসিকগণ উল্লেখ করেছেন যে, ৪৪৮ হিজরি সনে বায়তুল মোকাদ্দাসে প্রথম এ রাতে প্রচলিত পদ্ধতিতে সালাত আদায়ের প্রচলন শুরু হয়। (মিরকাতুল মাফাতীহ ৩/৩৮৮) তবে পবিত্র কুরআনের একটি আয়াতের ব্যাখ্যায় মুফাসসিরগণ “শবেবরাত” প্রসঙ্গে আলোচনা করেছেন। মহান আল্লাহ বলেন : “আমি তো তা’ অবতীর্ণ করেছি এক মুবারক (বরকতময়) রজনীতে এবং আমি তো সতর্ককারী। এ রজনীতে প্রত্যক গুরুত্বপূর্ণ বিষয় স্থিরীকৃত হয়। (সুরা দুখান-৩-৪ আয়াত)। অবশ্য অধিকাংশ মুফাসসির একে শবেকদরের সাথেই সম্পৃক্ত করেছেন। পবিত্র কুরআনের কোথাও এ সম্পর্কে কোনো আলোচনা না থাকলেও ‘শবেবরাত’ বা ‘লাইলাতুন নিসফি মিন শাবান’ সম্পর্কে অনেক হাদিস বর্ণিত হয়েছে।
এ প্রসঙ্গে বড়পীর খ্যাত আবদুল কাদের জিলানী (র) বলেছেন, দুনিয়াবাসীর জন্যে ঈদুল আজহা ও ঈদুল ফিতর নামে মুসলমানদেও যেমন দুটি ঈদ রয়েছে, তেমনি ঊর্ধ্বাকাশসমূহে ফেরেশতাগণের জন্যেও দুটি ঈদ রজনী রয়েছে। এর একটি হচ্ছে শবেকদর, অপরটি শবেবরাত। মুমিন বান্দাগণের জন্যে ঈদ-উৎসব দিনে থাকে। আর ফেরেশতাগণের ঈদ-উৎসব নির্ধারণ করা হয়েছে রাতে। কেননা মানুষ নিদ্রা যায় পক্ষান্তরে ফেরেশতাদের কোনো নিদ্রা নেই।
শবেবরাতে করণীয় : হাদিসে শবেবরাতের নিম্নোক্ত পালনীয় আমল উল্লেখ রয়েছে :
১। কোনো বিশেষ ব্যবস্থা বা আয়োজন না করে সাধারণভাবে এ রাতে কবরস্থানে যাওয়া এবং মৃতব্যক্তিদের জন্যে দোয়া করা, দরুদ-ইসতিগফার পাঠ করে দোয়া করা।
২। এ রাতে জাগ্রত থেকে আল্লাহর ইবাদত তথা কুরআন তেলাওয়াত করা, অধিক হারে দরুদ পাঠ করা এবং নফল নামাজ পড়া। তবে নামাজের জন্য কোনো বাধ্যবাধকতা নেই; বরং সামর্থ্যানুসারে জামাত ব্যতীত অনির্দিষ্টভাবে নামাজ পড়া এবং নিজের জন্য ও সকল মুসলমানের জন্য দোয়া করা।
৩। শবেবরাতের পরদিন অর্থাৎ ১৫ শাবান নফল রোজা রাখা। রাসুলে আকরাম (সা.) ইরশাদ করেছেন, যখন তোমাদের সামনে শাবান মাসের পঞ্চদশ রাত শবেবরাত উপস্থিত হয়, তখন তোমরা সেই রাতে নামাজ পড়ো আর দিনের বেলায় রোজা রাখো।
শবেবরাতে বর্জনীয় : বরকতময় এ রজনীতে তওবা-ইসতিগফার ও ইবাদত-বন্দেগির মাধ্যমে মহান আল্লাহর সন্তুষ্টি অর্জনের মাধ্যমে নিমগ্ন থাকাই মুমিনের কর্তব্য। অথচ কিছুসংখ্যক লোক এ রাতে এমন কিছু কাজে লিপ্ত হয়ে পড়ে, যেগুলো ইসলামে সম্পূর্ণ নিষিদ্ধ। যেমন : পটকাবাজি, তারাবাজি, আতশবাজি, অতিরিক্ত আলোকসজ্জা, পোলাও-বিরানি ও হালুয়া-রুটি নিয়ে ব্যস্ত হয়ে পড়া ইত্যাদি। এগুলো নিছক কুসংস্কার বৈ কিছু নয়।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ
গত​ ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ