Inqilab Logo

শনিবার, ১৫ জুন ২০২৪, ০১ আষাঢ় ১৪৩১, ০৮ যিলহজ ১৪৪৫ হিজরী

‘ভারত পাকিস্তানে না এলে জাহান্নামে যাক’

এশিয়া কাপ নিয়ে মিয়াঁদাদের হুঁশিয়ারি

স্পোর্টস ডেস্ক : | প্রকাশের সময় : ৭ ফেব্রুয়ারি, ২০২৩, ১২:০০ এএম

এশিয়া কাপ নিয়ে দিন দিন বিতর্ক বেড়েই চলছে। এশিয়ান ক্রিকেট কাউন্সিলের সভা হয়েছে গত শনিবার, এশিয়া কাপ সংযুক্ত আরব আমিরাতে হতে পারে কি না, তা নিয়ে আলোচনাও হয়েছে। কিন্তু ভেন্যু নিয়ে আলোচনা হলেও আসেনি কোনো সমাধান। পরে বিজ্ঞপ্তি দিয়ে এসিসি জানায়, চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে আগামী মাসে। তবে তাতে বিতর্ক যেন আরও ডালপালা ছড়িয়েছে। আগামী এশিয়া কাপের আয়োজক দেশ পাকিস্তান হওয়াতেই যত বিপত্তি। ভারত কিছুতেই পাকিস্তানে দল পাঠাবে না, পাকিস্তানও কিছুতেই আয়োজক হওয়ার অধিকার ছাড়তে রাজি নয়। পাকিস্তান ক্রিকেট বোর্ডের চেয়ারম্যান নাজাম শেঠি তো হুমকিই দিয়ে রেখেছেন- যদি এশিয়া কাপ খেলতে ভারত পাকিস্তানে না আসে, তাহলে এ বছরের অক্টোবর-নভেম্বরে ভারতে অনুষ্ঠেয় ওয়ানডে বিশ্বকাপে পাকিস্তান খেলবে না। এমন একটা পরিস্থিতিতে বিতর্কের আগুনে ঘি ঢেলেছেন পাকিস্তানের সাবেক অধিনায়ক ও কিংবদন্তি ক্রিকেটার জাভেদ মিয়াঁদাদ। তিনি বলেন, পাকিস্তানে খেলতে না এলে ভারত জাহান্নামে যাক, পাকিস্তানের টিকে থাকার জন্য ভারতের প্রয়োজন নেই।
পূর্বনির্ধারিত সূচি অনুযায়ী আগামী সেপ্টেম্বরে পাকিস্তানের মাটিতে বসার কথা এশিয়া কাপের ১৬তম আসর। কিন্তু রাজনৈতিক শীতল সম্পর্কের কারণে প্রতিবেশী দেশে যেতে চায় না ভারত। তাই এবারের আসরটি নিরপেক্ষ ভেন্যুতে আয়োজনের ইচ্ছার কথা গত অক্টোবরে জানান বিসিসিআই সচিব জয় শাহ। যিনি একই সঙ্গে এশিয়ান ক্রিকেট কাউন্সিলের সভাপতি। জয়ের এমন মন্তব্যের পর প্রতিক্রিয়া জানিয়েছিল পাকিস্তান ক্রিকেট বোর্ডও (পিসিবি)। তখনকার পিসিবি চেয়ারম্যান রমিজ রাজা ভারতে অনুষ্ঠেয় ২০২৩ বিশ্বকাপ বয়কটের হুমকি দেন। পাকিস্তানী গণমাধ্যমের খবর, নতুন পিসিবি প্রধান নাজাম শেঠিও একই সুরে কথা বলছেন। তবে গত দু’দিনে এসিসির বৈঠকের বরাত দিয়ে ভারতীয় গণমাধ্যমের দাবি, আরব আমিরাতেই হতে যাচ্ছে আসন্ন এশিয়া কাপ। এর পরই টচেছেন ক্রিকেট অন্তঃপ্রাণ এই সাবেক তারকা। ইউটিউবে পোস্ট করা এক ভিডিওতে ১৯৯২ বিশ্বকাপজয়ী পাকিস্তান ক্রিকেট দলের অন্যতম এই সদস্য বলেছেন, ‘ভারত যদি পাকিস্তানে খেলতে না আসে, তাহলে তারা জাহান্নামে যাক। টিকে থাকার জন্য পাকিস্তানের কোনো প্রয়োজন নেই ভারতকে।’
এ ধরনের বিতর্ক নিরসনে আইসিসির ভূমিকা নিয়েও প্রশ্ন তুলেছেন মিয়াঁদাদ। সংস্থাটিকে এই সঙ্কট নিরসনে আরো বেশি সক্রিয় হতে হবে বলে মনে করেন মিয়াঁদাদ, ‘আমি সব সময়ই বলে এসেছি, ভারত যদি না আসে, তাহলে করার কিছু নেই। আমরা আমাদের খেলা চালিয়ে যাব। আইসিসির দায়িত্ব এই ব্যাপারগুলো নিয়ন্ত্রণ করা। না হলে ক্রিকেটের কোনো নিয়ন্ত্রক সংস্থার কী প্রয়োজন থাকতে পারে।’ মিয়াঁদাদ মনে করেন সব সদস্য দেশের জন্যই আইসিসির একটাই আইন থাকা উচিত, ‘কোনো দল যদি কোথাও খেলতে যেতে না চায়, তাহলে যত শক্তিধর ও ক্ষমতাশালী দেশই সেটি হোক না কেন, আইসিসির উচিত তাদের নিষিদ্ধ করা।’ ভারত যেন পৃথিবীর কোনো জায়গাতেই খেলার ব্যাপারে আপত্তি জানাতে না পারে, সে ব্যাপারে মিয়াঁদাদ আইসিসির হস্তক্ষেপ চান, ‘আমি চাই এসব ব্যাপারে আইসিসি ব্যবস্থা নিক। যে দেশই হোক, তারা যদি কোথাও খেলার ব্যাপারে আপত্তি জানায়, তাহলে তাদের বিরুদ্ধে শক্ত ব্যবস্থা নিতে হবে। সেই দলকে প্রয়োজনে নিষিদ্ধ করতে হবে।’
ভিডিওটির সবশেষে পাক-ভারত লড়াইয়ের উত্তাপ আরেকটু বাড়িয়ে দিয়েছেন এই সাবেক কিংবদন্তি। কথার লড়াইয়ের সেই পুরনো সুরে বলেছেন, ভারত পাকিস্তানের মাটিতে হেরে যাওয়ার ভয়েই পাকিস্তানে আসতে চায় না বলে মনে করেন মিয়াঁদাদ, ‘তারা কেন পাকিস্তানে আসবে না? তাদের আসা উচিত। আসলে তারা পাকিস্তানের মাটিতে নিজেদের পরিণতি নিয়ে চিন্তিত।’ মিয়াঁদাদ মনে করেন ভারতের এই আতঙ্কের মূল কারণ নিজেদের দেশের দর্শক, ‘ভারতের দর্শক নিজেদের দেশের হার মেনে নিতে পারে না। তারা সবকিছু পুড়িয়ে দেয়। ভারত মনে করে পাকিস্তান সফরে গিয়ে যদি তারা হারে, তাহলে ভারতীয় জনগণ তাদের ছাড়বে না। নরেন্দ্র মোদিও হাওয়ায় মিলিয়ে যাবে।’



 

Show all comments
  • Md Helal Karim ৭ ফেব্রুয়ারি, ২০২৩, ১:১৪ পিএম says : 0
    একদম সঠিক কথা বলেছেন মিয়াদাদ। পাকিস্তানের উচিত নিজেদের অবস্থান ধরে রাখা। প্রয়োজনে এশিয়া কাপ বয়কট করা।
    Total Reply(0) Reply

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

আরও পড়ুন
গত​ ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ