Inqilab Logo

মঙ্গলবার, ১৬ এপ্রিল ২০২৪, ০৩ বৈশাখ ১৪৩১, ০৬ শাওয়াল ১৪৪৫ হিজরী

বায়তুল মোকাররমে ঈদের ৫টি জামাত

জাতীয় ঈদগাহে সকাল সাড়ে ৮টায় প্রধান জামাত

স্টাফ রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ৬ মে, ২০২২, ১২:০৬ এএম

পবিত্র ঈদুল ফিতর উপলক্ষে প্রতি বছরের ন্যায় এবারও বায়তুল মুকাররম জাতীয় মসজিদে পর্যায়ক্রমে ৫টি ঈদের নামাযের জামাত অনুষ্ঠিত হবে। জাতীয় ঈদগাহে এবার সকাল সাড়ে ৮টায় ঈদের প্রধান জামাত হবে। এছাড়াও সকাল ৭টা থেকে বিভিন্ন সময়ে রাজধানী ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন ঈদগাহ, মসজিদ ও খেলার মাঠে ঈদুল ফিতরের জামাত অনুষ্ঠিত হবে।

সকাল সাতটায় প্রধান জামাতের সম্পন্ন হওয়ার পর জাতীয় মসজিদ বায়তুল মোকাররমে পর্যায়ক্রমে সকাল ৮টা, সকাল ৯টা, সকাল ১০টা এবং সকাল ১০টা ৪৫ মিনিটে বাকি চারটি জামাত অনুষ্ঠিত হবে। ইসলামিক ফাউন্ডেশনের এক বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, জাতীয় মসজিদ বায়তুল মোকাররমে ঈদের প্রথম জামাত অনুষ্ঠিত হবে সকাল ৭টায়। এ জামাতে ইমাম হিসেবে থাকবেন মসজিদের সিনিয়র পেশ ইমাম হাফেজ মুফতি মাওলানা মিজানুর রহমান। মুকাব্বির থাকবেন বায়তুল মোকাররম জাতীয় মসজিদের মুয়াজ্জিন হাফেজ মো. ইসহাক।

দ্বিতীয় জামাত অনুষ্ঠিত হবে সকাল ৮টায়। এ জামাতে ইমাম থাকবেন বায়তুল মোকাররম জাতীয় মসজিদের পেশ ইমাম হাফেজ মুফতি মুহিব্বুল্লাহিল বাকী নদভী। মুকাব্বির হাফেজ মো. আতাউর রহমান। (সাবেক মুয়াজ্জিন, বায়তুল মোকাররম জাতীয় মসজিদ)।

সকাল ৯টায় তৃতীয় জামাতে ইমামতি করবেন ইসলামিক ফাউন্ডেশনের মুফাসসির ড. মাওলানা আবু সালেহ পাটোয়ারী। মুকাব্বির থাকবেন হাফেজ মো. নাছির উল্লাহ। (খাদেম, বায়তুল মোকাররম জাতীয় মসজিদ)। সকাল ১০টায় চতুর্থ জামাত পরিচালনা করবেন বায়তুল মোকাররম জাতীয় মসজিদের পেশ ইমাম মাওলানা এহসানুল হক। মুকাব্বির হিসেবে থাকবেন মো. শহিদ উল্লাহ। (খাদেম, বায়তুল মোকাররম জাতীয় মসজিদ)। ঈদের পঞ্চম ও সবশেষ জামাত অনুষ্ঠিত হবে সকাল ১০টা ৪৫ মিনিটে। এতে জামাতে ইমামতি করবেন বায়তুল মোকাররম জাতীয় মসজিদের পেশ ইমাম মাওলানা মুহিউদ্দিন কাসেম। এতে মুকাব্বির হিসেবে থাকবেন জাতীয় মসজিদ বায়তুল মোকাররমের খাদেম মো. রুহুল আমিন। এছাড়া কোনো ইমাম অনুপস্থিত থাকলে বিকল্প ইমাম হিসেবে ইফার মুফতি মাওলানা মোহাম্মদ আব্দুল্লাহ দায়িত্ব পালন করবেন বলে বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়েছে।

এদিকে, জাতীয় ঈদগাহ মাঠে ঈদের প্রধান জামাত এর প্রস্তুতি সরেজমিন পরিদর্শন করেছেন ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের (ডিএসসিসি) মেয়র ব্যারিস্টার শেখ ফজলে নূর তাপস। গতকাল সকালে ব্যারিস্টার শেখ তাপস জাতীয় ঈদগাহে ডিএসসিসির সার্বিক তত্ত্বাবধানে ঈদের প্রধান জামাত আয়োজনের প্রস্তুতিমূলক কার্যক্রম পরিদর্শন করেন। জাতীয় ঈদগাহ ময়দান পরিদর্শন শেষে সাংবাদিকদের সাথে আলাপকালে মেয়র ব্যারিস্টার শেখ তাপস বলেন, জাতীয় ঈদগাহে এবার সকাল সাড়ে ৮টায় ঈদের প্রধান জামাত হবে। করোনা মহামারি অতিক্রম করে দুই বছর পরে ঢাকাবাসী যাতে আবারও জাতীয় ঈদগাহে ঈদুল ফিতর এর নামাজ আদায় করতে পারেন, সেই আয়োজন সম্পন্ন করেছি। ঈদের প্রধান ঈদ জামাতের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে আমাদের আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী কাজ করে চলেছে। এর মাধ্যমে আমরা একটি সুন্দর ও নিরাপদ পরিবেশ সৃষ্টি করছি। যাতে করে ঢাকাবাসী জাতীয় ঈদগাহে এসে ঈদের প্রধান জামাতে অংশগ্রহণ করতে পারেন।

পুরান ঢাকার লক্ষ্মীবাজারের মিয়া সাহেবের ময়দান খানকা জামে মসজিদে ঈদের জামাত সকাল ৭টায় অনুষ্ঠিত হবে। লক্ষ্মীবাজার নূরাণী জামে মসজিদে দুইটি ঈদের জামাত অুনষ্ঠিত হবে প্রথমটি সকাল পৌনে ৮টা ও দ্বিতীয়টি সকাল সাড়ে ৮টায় অনুষ্ঠিত হবে।

মিরপুরের দারুস সালম এলাকার মীর বাড়ি আদি (মাদবর বাড়ি) জামে মসজিদে দুইটি ঈদের জামাত অনুষ্ঠিত হবে। প্রথমটি সকাল সাড়ে ৭টায় এবং দ্বিতীয়টি সকাল ৯টায় অনুষ্ঠিত হবে। ধানমন্ডি ঈদগাহ ময়দানে ঈদের জামাত অনুষ্ঠিত হবে সকাল ৮টায়। মিরপুর ১২ নং সেকশনের পল্লবী থানা এ ব্লক হারুন মোল্লাহ ঈদগাহ, পার্ক ও খেলার মাঠে ঈদের জামাত অনুষ্ঠিত হবে সকাল সাড়ে ৭টায়। খানকায়ে আবুল উলায়ী সাতরওজা দরবারে সকাল ৮টায় ঈদের জামাত অনুষ্ঠিত হবে।

ঢাবি খেলার মাঠে জামাত সাড়ে ৭টায় : বংশাল বড় জামে মসজিদের ব্যবস্থাপনা কমিটির ব্যবস্থাপনায় বাংলাদেশ জমঈয়তে আহলে হাদীসের প্রধান ঈদের জামা‘আত ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় খেলার মাঠে সকাল ৭.৩০ ঘটিকায় অনুষ্ঠিত হবে ইন শা আল্লাহ। ইমামতি করবেন বংশাল বড় জামে মসজিদের খতিব শাইখ মুহাম্মাদ মোস্তফা সালাফি।

চট্টগ্রাম ব্যুরো জানায়, চট্টগ্রামে পবিত্র ঈদুল ফিতর উদযাপনের যাবতীয় প্রস্তুতি সম্পন্ন হয়েছে। টানা দুই বছর করোনার কারণে সীমিত আকারে মসজিদে মসজিদে ঈদের জামাত হলেও এবার ঈদগাহ ও খোলা ময়দানে ঈদের নামাজ আদায়ের আয়োজন চলছে। ঈদ জামাতের সকল প্রস্তুতি সম্পন্ন করেছে সিটি কর্পোরেশন। ঈদুল ফিতরের প্রথম ও প্রধান জামাত সকাল ৮টায় জমিয়তুল ফালাহ মসজিদ ময়দানে অনুষ্ঠিত হবে। একই স্থানে দ্বিতীয় জামাত হবে সকাল ৯টায়।

প্রথম জামাতে ইমামতি করবেন জমিয়তুল ফালাহর খতিব আল্লামা সৈয়দ আবু তালেব মোহাম্মদ আলাউদ্দিন আল কাদেরী এবং দ্বিতীয় জামাতে ইমামতি করবেন পেশ ইমাম হাফেজ মাওলানা আহমদুল হক। অন্যদিকে কেন্দ্রীয় ঈদ জামাত কমিটির উদ্যোগে ঈদের প্রধান জামাত অনুষ্ঠিত হবে এমএ আজিজ স্টেডিয়াম সম্মুখস্থ মাঠে সকাল ৯টায়। এতে ইমামতি করবেন বায়তুশ শরফ আদর্শ কামিল মাদরাসার প্রিন্সিপাল মাওলানা ড. সাইয়েদ মুহাম্মদ আবু নোমান।

সিটি করপোরেশনের উদ্যোগে লালদীঘি সিটি কর্পোরেশন শাহী জামে মসজিদে ঈদ জামাত অনুষ্ঠিত হবে সকাল ৮টায়। নগরীতে সিটি করপোরেশনের তত্ত্বাবধানে সকাল ৮টায় সুগন্ধা আবাসিক এলাকা জামে মসজিদ, হযরত শেখ ফরিদ (রা.) চশমা ঈদগাহ মসজিদ, চকবাজার সিটি কর্পোরেশন জামে মসজিদ, জহুর হর্কাস মার্কেট জামে মসজিদ, দক্ষিণ খুলশী (ভিআইপি) আবাসিক এলাকা জামে মসজিদ, আরেফীন নগর কেন্দ্রীয় কবরস্থান জামে মসজিদ, সাগরিকা গরুবাজার জামে মসজিদ ও মা আয়েশা সিদ্দিকী জামে মসজিদ (সাগরিকা জহুর আহমদ চৌধুরী স্টেডিয়াম সংলগ্ন) ঈদ জামাত অনুষ্ঠিত হবে। এছাড়াও নগরীর ৪১টি ওয়ার্ডে সশ্লিষ্ট ওয়ার্ড কাউন্সিলগণের তত্ত্বাবধানে একটি করে প্রধান ঈদ জামাত স্ব-স্ব মসজিদ বা ঈদগাহে অনুষ্ঠিত হবে। চট্টগ্রাম কেন্দ্রীয় ঈদ জামাত কমিটির আওতাভূক্ত নগরীর অপর ৯৪টি আঞ্চলিক ঈদগাহসমূহে ঈদ জামাত অনুষ্ঠিত হবে।

রাজশাহী ব্যুরো ব্যুরো জানায়, রাজশাহীতে পবিত্র ঈদুল ফিতরের নামাজের প্রধান জামাত হযরত শাহমখদুম রূপোস (রহ.) কেন্দ্রীয় ঈদগাহ ময়দানে অনুষ্ঠিত হবে সকাল ৮টায়। এখানে প্রধান ইমাম হিসেবে ইমামতি করবেন জামিয়া ইসলামিয়া শাহমখদুম (রহ.) মাদরাসার প্রিন্সিপাল মুফতি শাহাদত আলী। তার সহকারী হিসেবে থাকবেন নগরীর হেতেমখাঁ বড় মসজিদের পেশ ইমাম মুফতি ইয়াকুব আলী ও হযরত শাহমখদুম (রহ.) দরগা শরীফ জামে মসজিদের ইমাম মো. মুহিবুল্লাহ।

প্রিন্সিপাল মুফতি শাহাদত আলী জানান, ঈদের দিন বৈরি আবহাওয়া থাকলে ঈদগাহ ময়দানের পরিবর্তে প্রধান জামাত অনুষ্ঠিত হবে হযরত শাহমখদুম (রহ.) দরগা শরীফ জামে মসজিদে। সেখানে ঈদ জামাত অনুষ্ঠিত হলেও সময় অপরিবর্তিত থাকবে।

রাজশাহীতে ঈদের দ্বিতীয় প্রধান জামাত অনুষ্ঠিত হবে নগরীর টিকাপাড়া ঈদগাহ ময়দানে। সেখানেও সময় নির্ধারণ করা হয়েছে সকাল ৮টা। এছাড়া নগরীর সাহেববাজার জিরোপয়েন্টেও ঈদের জামাত অনুষ্ঠিত হবে সকাল ৮টায়। এখানে সাহেব বাজার বড় মসজিদসহ মধ্য শহরের পাঁচটি মসজিদের মুসল্লিরা ঈদের নামাজ আদায় করবেন। এবারও এখানে নারীদেরও জামাতে নামাজের আলাদা ব্যবস্থা থাকবে।

জেলা প্রশাসন জানিয়েছে, শহরের প্রায় ৫০টি এবং ৯ উপজেলায় আরও প্রায় ৩৫০টি ঈদগাহে ঈদের নামাজ আদায় হবে। এ জন্য ইতোমধ্যে প্রস্ততি গ্রহণ করেছে ঈদগাহ কমিটি। আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী ঈদগাহে নিশ্চিদ্র নিরাপত্তা নিশ্চিত করবে।

বাগেরহাট জেলা সংবাদদাতা জানান, বিশ^ ঐতিহ্য ষাটগুম্বজ মসজিদে বাগেরহাটের ঈদুল ফিতরের প্রধান ও দক্ষিণাঞ্চলের বৃহত্তম জামাত অনুষ্ঠিত হবে। এবার ঈদের প্রথম জামাত অনুষ্ঠিত হবে সকাল সাড়ে ৭টায়, দ্বিতীয় জামাত অনুষ্ঠিত হবে ৮টায় মিনিটে এবং ৩য় অর্থ্যাৎ সর্বশেষ জামাত অনুষ্ঠিত হবে সকাল সাড়ে ৮টায়। প্রথম ও প্রধান জামাতে ইমামতি করবেন বাগেরহাট আলিয়া (কামিল) মাদরাসার প্রিন্সিপাল মাওলানা আবুল কালাম শেখ। দ্বিতীয় জামাতে ইমামতি করবেন ষাটগম্বুজ মসজিদের ইমাম ও খতিব মাওলানা হেলাল উদ্দিন মাতব্বর। তৃতীয় এবং সর্বশেষ জামাতে ইমামতি করবেন বাগেরহাট শহরের সিঙ্গাই জামে মসজিদের ইমাম মাওলানা মোজাহিদুল ইসলাম।

ওয়ার্ল্ড হ্যারিটেজ সাইট ষাটগুম্বজ মসজিদে ঈদের জামায়াতের মুসল্লীদের নিরাপত্তা ও স্বাস্থ্যবিধি নিশ্চিত করতে পুলিশের পাশাপাশি অন্যান্য আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর বিপুল সংখক সদস্য নিয়োজিত থাকবে। ঈদুল ফিতর উদযাপন জেলা কমিটির সভায় এসব সিদ্ধান্ত নেয়া হয়।

এছাড়া বাগেরহাট আলীয়া মাদ্রাসা মাঠ, খানজাহান আলী মাজার জামে মসজিদ, পুরাতন কোর্ট জামে মসজিদ, হাজী আরিফ জামে মসজিদ, খারদ্বার ঈদগাহ মাঠসহ বিভিন্ন মসজিদ ও ঈদগাহে ঈদের জামাত অনুষ্ঠিত হবে।
বাগেরহাটের অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক খোন্দকার মোহাম্মাদ রিজাউল করিম বলেন, প্রতিবারের ন্যায় এবারও বাগেরহাট জেলার প্রধান ঈদের নামাজ ষাটগম্বুজ মসজিদে অনুষ্ঠিত হবে। ঈদের মুসল্লিদের নিরাপত্তা নিশ্চিত এবং অনাকাঙ্খিত ঘটনা এড়াতে প্রয়োজনীয় আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা নিয়োজিত থাকবে।

গফরগাঁও (ময়মনসিংহ) উপজেলা সংবাদদাতা জানান, গফরগাঁও উপজেলার প্রধান ঈদের জামাত অনুষ্ঠিত হবে ঈমাম বাড়ি ঈদগাহ মাঠে সকাল ১০ টার দিকে। এছাড়া সকাল সাড়ে ১০টার দিকে রেল স্টেশন জামে মসজিদ, রোস্তম আলী গোলন্দাজ হাইস্কুল মাঠে সকাল ১০টা, গফরগাঁও পুরাতন বাস স্টেশন (গ্যাস অফিস সংলগ্ন ) সকাল ১০টার , গফরগাঁও আলহাজ আবুল ফজল ইট খলা ঈদগাহ মাঠে সকাল সাড়ে ৮টা, শিলাসী রেলপাড় জামে মসজিদ সকাল সাড়ে ১০টার ও গফরগাঁও উপজেলার ৯নং পাঁচবাগ ইউনিয়নের দিঘীরপাড় দারুছ-ছুন্নাৎ নেছারিয়া আলিম মাদরাসা সংলগ্ন কাজী বাড়ি জামে মসজিদে সকাল সাড়ে ৯টার দিকে। এছাড়াও বিভিন্ন ইউনিয়নের প্রধান প্রধান জামাত অনুষ্ঠিত হবে।

মনোহরদী (নরসিংদী) উপজেলা সংবাদদাতা জানান, মনোহরদী উপজেলা কেন্দ্রীয় ঈদগাহ মাঠে সকাল ৮টায় ঈদের জামাত অনুষ্ঠিত হবে। শত বছরের পুরোনো শুকুন্দী গাছুয়ারকান্দা ঈদগাহ মাঠে সকাল ১০টায় ঈদের জামাত অনুষ্ঠিত হবে। এছাড়াও পীরপুর, চালাকচর, হাররদিয়া, গোতাশিয়া, হাতিরদিয়া, পাঁচকান্দিসহ বেশকয়েকটি স্থানে ঈদের জামাত অনুষ্ঠিত হবে।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ
গত​ ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ