Inqilab Logo

বৃহস্পতিবার, ২০ জুন ২০২৪, ০৬ আষাঢ় ১৪৩১, ১৩ যিলহজ ১৪৪৫ হিজরী

পাবনায় স্মরণকালের সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ৫.৫ ডিগ্রী সেলসিয়াস, জনজীবন অচল

মুরশাদ সুবহানী, পাবনা থেকে | প্রকাশের সময় : ৭ জানুয়ারি, ২০১৮, ৫:৫৪ পিএম

পাবনায় স্মরণ সময়ের মধ্যে সর্বনিম্ন তাপমাত্রা পাবনায় রেকর্ড করা হয়েছে ।
পাবনার ঈশ্বরদী উপজেলা আবহাওয়া দপ্তর সূত্রে জানা গেছে , রবিবার ৫.৫ ডিগ্রী সেলসিয়াস তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়েছে। পাবনার ঈশ্বরদী আবহাওয়া অধিদপ্তরের কর্মকর্তা আব্দুল খালেক জানিয়েছেন, এরচেয়ে তাপমাত্রা আর নিচে নামবে না। তার ভাষ্য আগামী দুই সপ্তাহের মধ্যে তাপমাত্রা বাড়বে। প্রচণ্ড শীতে মানুষ-জীব-জন্তু কাহিল হয়ে পড়েছে।
দরিদ্র মানুষ চরম কষ্টে পড়েছেন। সাধ্যানুসারে সেকেন্ড হ্যান্ড মার্কেট থেকে শীতবস্ত্র কিনে কোন মতে শীতের কবল থেকে রক্ষা পেতে চাইছেন। শুধু নিম্ন আয়ের মানুষজনই নন, মধ্যম আয়ের মানুষজনদেরও আনাগোনা চলছে এই মার্কেটে। মধ্যবিত্ত কারো সাথে এই মার্কেটে দেখা হলে আভিজাত্য বজায় রাখতে বলছেন, বাড়ীর কাজের মানুষের জন্য কিছু গরম কাপড়-চোপর কিনছি।
তীব্র শৈত্য প্রবাহ , আর ঘন কুয়াশার মধ্যে মহা সড়কগুলোতে ধীরগতিতে যান চলাচল করছে। পাশাপাশি কিছুটা শিডিউল বিপর্যয়ের মধ্যে রয়েছে ট্রেন চলাচল। নিম্ন ও মধ্যম আয়ের মানুষগুলো দুর্যোগপূর্ণ আবহাওয়া উপেক্ষা করে গ্রামের প্রত্যন্ত অঞ্চল থেকে কাজের উদ্দেশ্যে শহরে এসে প্রচণ্ড শীতের মধ্যে এক জায়গায় জড়ো হয়ে খড়কুটো আর কুড়ানো কাগজ জ্বালিয়ে হাতের তালু গরম করছেন। শহরের অধিকাংশ দোকান-পাট বেলা ১১টার পর খোলা হচ্ছে। প্রয়োজন ছাড়া সহজে মানুষজন ঘরের বাইরে আসছেন না। জেলা প্রশাসক মো. জসিম উদ্দিন ও জেলা সিভিল সার্জন তাহজ্জেল হোসেনের পক্ষ থেকে মানুষজনকে শীত জনিত স্ট্রোক থেকে রক্ষা পেতে প্রচার-প্রচারণা চালানো হচ্ছে। পাবনা প্রাণী সম্পদ অধিদপ্তরের কর্মকর্তা গবাদিপশুকে শীতে গরম বস্ত্র ছালা এবং তার নিচে তুলার কাপড় ব্যবহার করার পরামর্শ দিয়েছেন। প্রবীণ মানুষজন বলছেন, এতো শীত (স্থানীয় ভাষায় জার) আগে পড়েনি।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ
গত​ ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ