Inqilab Logo

সোমবার, ১৫ জুলাই ২০২৪, ৩১ আষাঢ় ১৪৩১, ০৮ মুহাররম ১৪৪৬ হিজরী

হাওরে ঢল অব্যাহত

ফল-ফসল নিয়ে বাড়ছে দুশ্চিন্তা : যেন ডুবছে কৃষকের স্বপ্ন অতিবৃষ্টিতে নদ-নদীর পানি ফের বৃদ্ধির আভাস

শফিউল আলম | প্রকাশের সময় : ২০ এপ্রিল, ২০২২, ১২:০০ এএম

উত্তর-পূর্বের হাওর অঞ্চলে নদ-নদী খাল-ছরায় পাহাড়ি ঢলের পানি কোথাও বাড়ছে, কোথাও কমছে। অনেক জায়গায় পানি থমকে আছে। উত্তর-পূর্ব ভারতের আসাম, মেঘালয় ও অরুণাচলে বৃষ্টিপাত কিছুটা কমেছে। তবে গতকালও সিলেটে সারিগোয়াইন এবং নেত্রকোণায় বাউলাই নদী বিপদসীমার উপর দিয়ে প্রবাহিত হয়। হাওর এলাকায় ১৪টি স্থানে নদ-নদীর পানি বৃদ্ধি পাচ্ছে। সব মিলিয়ে হাওর অঞ্চলে ঢল-বানের পরিস্থিতি প্রায় অপরিবর্তিত এবং তা অব্যাহত রয়েছে।

ঢলের তোড়ে আধাপাকা বোরো ফসল, শাক-সবজি ও অন্যান্য ফল-ফষল রক্ষা নিয়ে কৃষকের দুশ্চিন্তার শেষ নেই। বিভিন্ন স্থানে বাঁধ ভেঙে কিংবা আগের ভাঙা বাঁধ উপচিয়ে ফল-ফসলের জমি ডুবে যাচ্ছে। যেন ডুবছে কৃষকের স্বপ্ন। এদিকে বাংলাদেশ ও বৈশি^ক বৃষ্টিপাতের পূর্বাভাস পর্যালোচনা করে পাউবো’র বন্যা পূর্বাভাস ও সতর্কীকরণ কেন্দ্র গতকাল এক বিশেষ পূর্বাভাস প্রতিবেদনে জানায়, দেশের অভ্যন্তরে উত্তর-পূর্বাঞ্চলে এবং উত্তর-পূর্ব ভারতের আসাম ও মেঘালয় প্রদেশে চলতি সপ্তাহে (১৯ থেকে ২৫ এপ্রিল) মাঝারি থেকে ভারী বৃষ্টিপাতের সম্ভাবনা রয়েছে। এর ফলে দেশের উত্তর-পূর্বাঞ্চলে নদ-নদীর পানি আবারও বৃদ্ধি পেতে পারে। গতকাল পাউবোর বন্যা পূর্বাভাস ও সতর্কীকরণ কেন্দ্র জানায়, দেশের উত্তর-পূর্বাঞ্চলে সিলেট জেলার প্রধান নদ-নদীর পানির সমতল হ্রাস পাচ্ছে। সুনামগঞ্জ ও হবিগঞ্জ জেলার নদ-নদীর পানির সমতল স্থিতিশীল রয়েছে। নেত্রকোণা জেলার প্রধান নদ-নদীর পানি বৃদ্ধি পাচ্ছে। বাংলাদেশ ও ভারতের আবহাওয়া বিভাগের তথ্য ও পূর্বাভাস অনুযায়ী, আগামী ৪৮ দেশের উত্তর-পূর্বাঞ্চল এবং এর সংলগ্ন ভারতের আসাম ও মেঘালয় প্রদেশের বিভিন্ন স্থানে মাঝারি বৃষ্টিপাতের সম্ভাবনা রয়েছে।

আগামী ২৪ ঘণ্টায় সিলেট জেলার প্রধান নদ-নদীসমূহের পানির সমতল হ্রাস অব্যাহত থাকতে পারে। তবে আগামী ২৪ ঘণ্টায় সুনামগঞ্জ জেলার প্রধান নদ-নদীসমূহের পানির সমতল স্থিতিশীল বা অপরিবর্তিত থাকতে পারে এবং কতিপয় পয়েন্টে বিপদসীমার কাছাকাছি অবস্থান করতে পারে। আগামী ২৪ ঘণ্টায় নেত্রকোণা জেলার প্রধান নদ-নদীসমূহের পানির সমতল ধীর গতিতে বৃদ্ধি পেতে পারে এবং বন্যা পরিস্থিতি অপরিবর্তিত থাকতে পারে।

গতকাল হাওর অঞ্চলে নদ-নদী প্রবাহের অবস্থা সম্পর্কে জানা গেছে, পাউবোর পর্যবেক্ষণাধীন ৩৯টি স্টেশনের মধ্যে ১৪টিতে পানি বৃদ্ধি ও ২৫টিতে হ্রাস পায়। এরমধ্যে সারিগোয়াইন নদীর পানি সিলেটে বিপদসীমার ৫ সে.মি. এবং বাউলাই নদীর পানি নেত্রকোণার খালিয়াজুরিতে বিপদসীমার ২৭ সে.মি. উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। এদিকে গত ২৪ ঘণ্টায় দেশের উত্তর-পূর্ব এবং ভারতের উত্তর-পূর্বাঞ্চলের কিছু কিছু জায়গায় মাঝারি ধরনের বৃষ্টিপাত হয়েছে।

পাউবো’র বিশেষ পূর্বাভাস প্রতিবেদন
গতকাল পাউবে’র বন্যা পূর্বাভাস ও সতর্কীকরণ কেন্দ্র জানায়, বাংলাদেশ আবহাওয়া বিভাগ ও বৈশি^ক আবহাওয়া সংস্থাসমূহ থেকে প্রাপ্ত বৃষ্টিপাতের পূর্বাভাস পর্যালোচনা করে জানা গেছে, দেশের উত্তর-পূর্বাঞ্চলে এবং এর সংলগ্ন ভারতের আসাম (বরাক অববাহিকা) ও মেঘালয় প্রদেশের বিভিন্ন স্থানে চলতি সপ্তাহে (গতকাল ১৯ থেকে আগামী ২৫ এপ্রিল) সামগ্রিকভাবে মাঝারি বৃষ্টিপাত হতে পারে। তবে আজ ও আগামীকাল (২০-২১ এপ্রিল) দেশের অভ্যন্তরে ও উজানের কতিপয় স্থানে মাঝারি থেকে ভারী বৃষ্টিপাতের সম্ভাবনা রয়েছে। এই বৃষ্টিপাতের ফলে উত্তর-পূর্বাঞ্চলের (হাওর অঞ্চল) নদ-নদীসমূহের পানি আবারও বৃদ্ধি পেতে পারে। সুনামগঞ্জ ও নেত্রকোণা জেলার কতিপয় স্থানে স্বল্পকালীন সময়ের জন্য আকস্মিক বন্যা পরিস্থিতির সৃষ্টি এবং কোথাও কোথাও অবনতি হতে পারে।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ
গত​ ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ