Inqilab Logo

শনিবার , ০১ এপ্রিল ২০২৩, ১৮ চৈত্র ১৪২৯, ০৯ রমজান ১৪৪৪ হিজরী

ডনবাসে ‘কৌশলগত অগ্রগতি’ রুশ সেনার

ব্রিটেনের গোয়েন্দা রিপোর্ট ডোনেৎস্কে সংঘর্ষে ১৭০ ইউক্রেনীয় সেনা নিহত দুই সপ্তাহের মধ্যে বাখমুতের দখল নিতে পারে রাশিয়া পশ্চিমাদের জন্য নিজের নাগরিকদের উৎসর্গ করতে প্রস্তুত কিয়েভ সর

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ১১ জানুয়ারি, ২০২৩, ১২:০০ এএম

ব্রিটিশ প্রতিরক্ষা প্রধানরা গতকাল বলেছেন, রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভøাদিমির পুতিনের বাহিনী পূর্ব ইউক্রেনের বেশিরভাগ শহরের নিয়ন্ত্রণ দখল করে নিয়েছে কারণ তারা ২০০ কিলোমিটার দীর্ঘ অব্যবহৃত লবণ খনি টানেলের উপরে নিয়ন্ত্রণ প্রতিষ্ঠা করতে চাইছে।

রিপোর্টে বলা হয়, রাশিয়ান সামরিক বাহিনী এবং পুতিনের ‘ব্যক্তিগত সেনাবাহিনী’ ওয়াগনার গ্রুপ, পূর্ব ডনবাস অঞ্চলের সোলেদারে ‘কৌশলগত অগ্রগতিতে’ সফল হয়েছে। তারা রিপোর্টে জোর দিয়ে বলেছে যে, পুতিনের বাহিনীর জন্য কৌশলগত গুরুত্বপূর্ণ বাখমুতের মূল শহরটি দখল করা কঠিন হবে কারণ ইউক্রেনীয় সৈন্যরা সেনারা সেখানে প্রতিরক্ষা জোরদার করেছে। তার সর্বশেষ গোয়েন্দা আপডেটে, লন্ডনে প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় বলেছে, গত চার দিনে, রাশিয়ান এবং ওয়াগনার বাহিনী সোলেদারের ছোট ডনবাস শহরে কৌশলগত অগ্রগতি করেছে এবং সম্ভবত বেশিরভাগ বসতির নিয়ন্ত্রণে রয়েছে। ‘সোলেদার বাখমুত থেকে ১০ কিমি (৬.২ মাইল) উত্তরে অবস্থিত, যেটি দখল করা সম্ভবত রাশিয়ার প্রধান তাৎক্ষণিক লক্ষ্য হতে চলেছে। ‘রাশিয়ার সোলেদার দখলের উদ্দেশ্য সম্ভবত উত্তর থেকে বাখমুতকে ঘিরে ফেলা এবং ইউক্রেনের যোগাযোগের লাইনগুলিকে ব্যাহত করার একটি প্রচেষ্টা।’ ব্রিফিংয়ে যোগ করা হয়েছে, ‘লড়াইয়ের অংশটি ২০০ কিলোমিটার দীর্ঘ (১২৪ মাইল) অব্যবহৃত লবণ খনির টানেলের প্রবেশপথের উপর দৃষ্টি নিবদ্ধ করেছে যা শহরের নীচ দিয়ে চলে গেছে। উভয় পক্ষই সম্ভবত উদ্বিগ্ন যে, এটি তাদের বাহিনীর পিছনে অনুপ্রবেশের জন্য ব্যবহার করা যেতে পারে।

ডোনেৎস্কে সংঘর্ষে ১৭০ ইউক্রেনীয় সেনা নিহত : গতকাল ডিপিআর পিপলস মিলিশিয়ার প্রেস অফিস জানিয়েছে, গত দিনে ডোনেৎস্ক পিপলস রিপাবলিক (ডিপিআর) এর যোদ্ধাদের সাথে যুদ্ধে ইউক্রেনের সামরিক বাহিনী ১৭০ জনের বেশি সদস্য হতাহত হয়েছে। ‘শত্রুর নিম্নলিখিত অস্ত্রশস্ত্র এবং সামরিক হার্ডওয়্যার ধ্বংস করা হয়েছে: দুটি টি-৬৪বিভি ট্যাঙ্ক এবং তিনটি ২এস৩ আকাতসিয়া স্ব-চালিত আর্টিলারি বন্দুক। শত্রুর জনশক্তি ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ ১৭০ জনেরও বেশি কর্মী,’ প্রেস অফিস তার টেলিগ্রাম চ্যানেলে একটি বিবৃতিতে বলেছে।

গত ২৪ ঘন্টায়, ডিপিআর পিপলস মিলিশিয়া বাহিনী চারটি ১৫৫ মিমি এম৭৭৭ হাউইৎজার কামান এবং ১৯টি সাঁজোয়া যান ও মোটর গাড়িও ধ্বংস করেছে, বিবৃতিতে বলা হয়েছে। গত ২৪ ঘন্টার সময়কালে, কিয়েভ সরকারের সৈন্যরা তিনটি ডিপিআর সম্প্রদায়ের উপর বোমাবর্ষণ করেছে, একজনকে হত্যা করেছে এবং অন্য তিনজন বেসামরিক নাগরিককে আহত করেছে, প্রেস অফিস জানিয়েছে।
দুই সপ্তাহের মধ্যে বাখমুতের দখল নিতে পারে রাশিয়া : ইউক্রেন কয়েক সপ্তাহের মধ্যে আর্টিওমভস্ক শহর থেকে তার সৈন্য প্রত্যাহার করতে পারে, যা ইউক্রেনের বাখমুত নামে পরিচিত, ট্রয় রাশিয়ান স্বেচ্ছাসেবক বিশেষ বাহিনীর কমান্ডার ভøাদিমির নোভিকভ সোমবার বলেছেন।

‘যদি ওয়াগনার প্রাইভেট মিলিটারি কোম্পানি আগামী কয়েক সপ্তাহ তাদের বর্তমান আক্রমণাত্মক গতি বজায় রাখে, তাহলে ইউক্রেনীয় কমান্ডকে আর্টিওমভস্ক থেকে সৈন্য প্রত্যাহার করতে হবে। নাহলে তারা সেখানে ফাঁদে আটকা পড়বে এবং এর ফলে সম্পূর্ণ ধ্বংস হয়ে যাবে, এরপর শহরটি রাশিয়ার নিয়ন্ত্রণে আসবে,’ আলাবে ছদ্মনামে পরিচিত নোভিকভ তার টেলিগ্রাম চ্যানেলে লিখেছেন। যেহেতু রাশিয়ার বাহিনী সোলেদার-বাখমুতের দখল নিতে ‘ধীরে ধীরে কিন্তু নিশ্চিতভাবে অগ্রসর হচ্ছে, তাদের ঠোকেনার জন্য ইউক্রেনের সেনাবাহিনীর বিভিন্ন গ্রুপের মধ্যে বিভাজন প্রকাশ হয়ে পড়ছে,’ তিনি উল্লেখ করেছেন, ‘(ইউক্রেনীয় সেনাবাহিনীর) ১৭ তম ট্যাঙ্ক ব্রিগেড, যা কয়েক সপ্তাহ আগে মোতায়েন করা হয়েছিল, সোলেদার এবং আর্টিওমভস্কের মধ্যে ওয়াগনার আর্মিকে ঠেকাতে ব্যর্থ হয়েছে। একইসঙ্গে, চূড়ান্ত ক্ষতি রোধ করতে ইউক্রেনীয় সেনা কমান্ড এই দিক থেকে ১২৮ তম পর্বত হামলা ব্রিগেডকে প্রত্যাহার করে নিয়েছে। এই ইউনিটের দক্ষতার কারণে এটি একটি অভিজাত পদাতিক বাহিনী হিসাবে বিবেচিত হয়।’

আখমত স্পেশাল ফোর্সের কমান্ডার এবং লুহানস্ক পিপলস রিপাবলিক (এলপিআর) এর পিপলস মিলিশিয়া (এলপিআর) এর দ্বিতীয় সেনা কর্পের ডেপুটি কমান্ডার অপটি আলাউদিনভ এর আগে বলেছিলেন যে, সোলেদার এবং আর্টিওমভস্ককে আগামী দিনে মুক্ত করা যেতে পারে কারণ ওয়াগনার সৈন্যরা ফ্রন্টের সেই অংশগুলোতে অগ্রগতি করেছে, ‘যা ইউক্রেনীয় সৈন্যদের রসদ সরবরাহের জন্য অপরিহার্য’। ট্রয় স্বেচ্ছাসেবক বিশেষ বাহিনী ইউনিট হল রাশিয়ান স্বেচ্ছাসেবকদের একটি ইউনিট যারা ডনবাসে বিশেষ সামরিক অভিযানে অংশ নিচ্ছে।
পশ্চিমাদের জন্য নিজের নাগরিকদের উৎসর্গ করতে প্রস্তুত কিয়েভ সরকার : ইউনাইটেড রাশিয়া পার্টির ডেপুটি সেক্রেটারি এবং ‘ডোনেৎস্ক রিপাবলিক’ এর নাগরিক আন্দোলনের কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটির প্রধান আলেক্সি মুরাটভ বলেছেন, ইউক্রেনের সরকার প্রকাশ্যে ইউক্রেনীয় নাগরিকদের বলিদানের জন্য প্রস্তুত রয়েছে যাতে পশ্চিমারা রাশিয়াকে দমনে তাদের পরিকল্পনা সফল করতে পারে।

পূর্বে, ব্রিটেনে ইউক্রেনের রাষ্ট্রদূত ভাদিম প্রিস্টাইকো নিউজউইককে দেয়া সাক্ষাতকারে ‘বিশাল, অগণিত’ হতাহতের কথা বলেছিলেন, যা কিয়েভ শাসনের দ্বারা গোপন রাখা হয়েছিল। তিনি এটিকে রাশিয়াকে দমনে পশ্চিমাদের জন্য একটি অনন্য সুযোগ বলে অভিহিত করেছেন, কারণ ‘(ইউক্রেনীয়দের মতো) পৃথিবীতে এমন অনেক জাতি নেই যারা নিজেদেরকে এত বেশি জীবন, অঞ্চল এবং কয়েক দশকের উন্নয়ন উৎসর্গ করতে দেয়।’ মুরাটভ বলেন, ‘ইউক্রেনীয় রাজনৈতিক অভিজাতরা বিষয়টি লুকানোর কোন চেষ্টা করেনি কারণ ইতিমধ্যেই তারা পশ্চিমের কাছে বিক্রি হয়ে গেছে এবং বলেছে যে, ইউক্রেনীয়রা তাদের জন্য কেবল কামানের খোরাক। কিয়েভের পশ্চিমা চাটুকাররা ইউক্রেনের সশস্ত্র বাহিনী এবং বেসামরিকদের মধ্যে হতাহতের সংখ্যা নিয়ে গর্বিত এবং প্রকাশ্যে বলে যে, রাশিয়ার উপর পশ্চিমাদের আঘাত করার জন্য যত বেশি ইউক্রেনীয়কে হত্যা করতে হবে তারা তত বেশি ইউক্রেনীয়কে হত্যা করতে প্রস্তুত।’

মুরাটভ উল্লেখ করেছেন যে, পশ্চিমারা দক্ষতার সাথে ইউক্রেনে প্রক্সি যুদ্ধে লড়েছে। ‘ইউক্রেনের ক্ষেত্রে, প্রক্সি যুদ্ধ নীতি অভূতপূর্বভাবে দক্ষ ফলাফল দেয়। পশ্চিমারা সত্যিকারের পুতুল নাৎসিদের নিয়ে এসেছে, যাদেরকে ‘কামড় দেয়ার’ আদেশ দেয়া যেতে পারে এবং তারা তাদের মৃত্যু হলেও সে আদেশ পালন করবে। তবে, সময়ই বলে দেবে, তারা কতটা সফল হবে,’ তিনি বলেছেন। কর্মকর্তা ইউক্রেনীয়দের পশ্চিমা নীতির শিকার না হয়ে তাদের কর্তৃপক্ষের বিরুদ্ধে ঐক্যবদ্ধ হওয়ার আহ্বান জানিয়েছেন।
ইউক্রেন নয়, ‘ব্রিটেন ও যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে যুদ্ধ’ করছে রাশিয়া : রাশিয়া ‘ইউক্রেনের সাথে যুদ্ধ করছে না’ বরং ব্রিটেন এবং মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সাথে যুদ্ধ করছে, রুশ প্রেসিডেন্ট ভøাদিমির পুতিনের ঘনিষ্ঠ মিত্রদের একজন বলেছেন।

রাশিয়ার নিরাপত্তা পরিষদের সেক্রেটারি নিকোলাই পাত্রুশেভ আর্গুমেন্টি আই ফ্যাক্টি সংবাদপত্রকে বলেছেন, ‘ইউক্রেনের ঘটনাগুলো মস্কো এবং কিয়েভের মধ্যে সংঘর্ষ নয় - এটি রাশিয়া ও ন্যাটো এবং সর্বোপরি মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ও ব্রিটেনের মধ্যে একটি সামরিক সংঘর্ষ। পাত্রুশেভ, যাকে কূটনীতিকরা পুতিনের প্রধান কট্টরপন্থী প্রভাবের একজন হিসাবে দেখেন, বলেছেন, ‘পশ্চিমাদের পরিকল্পনা রাশিয়াকে আলাদা করা অব্যাহত রাখা এবং শেষ পর্যন্ত এটিকে বিশ্বের রাজনৈতিক মানচিত্র থেকে মুছে ফেলা।’ তিনি যোগ করেছেন, ‘আমরা ইউক্রেনের সাথে যুদ্ধ করছি না, কারণ, সংজ্ঞা অনুসারে, আমাদের সাধারণ ইউক্রেনীয়দের প্রতি কোন ক্ষোভ বা ঘৃণা থাকতে পারে না।’ সূত্র : দ্য টেলিগ্রাফ, তাস, ইভনিং স্ট্যান্ডার্ড।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: ইউক্রেন-রাশিয়া


আরও
আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ
গত​ ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ